Saturday, 13 October 2018

ওয়েব ডেস্ক ১৩ই অক্টোবর ২০১৮:এম.যে আকবকের সময়টা একেবারেই ভালো যাচ্ছেনা , প্রথমে দেশীয় এক মহিলা  তার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ আনল মে টু তে  এবার সিএনএনের এক মহিলা সাংবাদিক তার বিরুদ্ধে যৌন্য হেনস্তার অভিযোগ আনল, যা নিয়ে রাজনৈতিক মহল তোলপাড় । সালটা ২০০৭ তখন মজলি ডে পাই কাম্প অষ্টাদশী ,ইন্টার্ন হিসেবে এশিয়ান এজে জয়েন  করেছিলেন , যেই সুযোগটা করে দিয়েছিলেন এম যে আকবর স্বয়ং ।



সেই পরিপ্রেক্ষিতে এম যে আকবরকে ধন্যবাদ জানাতে গিয়েছিলেন মজলি ডে পাই, কিন্তু যখনি তিনি হাত বাড়িয়ে করমর্দন করতে যান , এমজে আকবর সটান মজলি ডে পাই কাম্প এর    হাত টেনে , তার শরীরটা নিজের বুকের কাছে নিয়ে ঠোঁটে ঠোঁট লাগিয়ে চুম্বন করতে থাকেন ।এবং অনেকক্ষন ধরে তিনি চুম্বন করতে থাকেন ।মজলি ডে পাই কাম্প তার টুইটে লিখেছেন , কিছু বুঝে ওঠার আগেই তিনি এরকম অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হন ।সেদিনের ঘটনা আজও ভুলতে পারেননি কাম্প। কিন্তু প্রকাশ্যে বলতে ভয় পেয়েছিলেন তখন। ভয়ে সিঁটিয়ে গিয়েছিলেন। এত বছর পর সেটা নিয়ে কথা বলতে শুরু করার কারণ একটাই। যখন একের পর এক মহিলা সাংবাদিক তাঁর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ তুলছেন, তখন নিজে আর চুপ করে থাকতে পারেননি। এ নিয়ে বিরোধীরা তীব্র আক্রমণ শানিয়েছেন বিজেপি এবং এমজে আকবরের বিরুদ্ধে , যদিও বা অমিত শাহ আশ্বাস দিয়েছেন , এম যে আকবরের বিরুদ্ধে সব অভিযোগ তদন্ত করে দেখা হবে ।
ওয়েব ডেস্ক ১৩ই অক্টোবর ২০১৮:শবরীমালা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রায়কে কার্যত চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বিজেপি এবং আর,এস .এস এর কর্মীরা বৃহত্তম মিছিল করল ।এরকম মিছিল , সাম্প্রদায়িক পরিস্তিতি তৈরী করার পক্ষে যে যথেষ্ট সেটা দিনের আলোর মতন পরিষ্কার ।আর এস এস বা তাদের শাখা সংগঠনগুলি কিংবা তাদের রাজনৈতিক সংগঠন বিজেপি কেন সুপ্রীম কোর্টের সিদ্ধান্ত ভালো ভাবে মেনে নিতে পারছেনা সেটা সহজেই অনুমেয় ।



উগ্র হিন্দুত্ববাদ একটা কারণ । এসব না থাকলে রাজনৈতিক হিন্দুরা তাদের দৈনন্দিন কার্যকলাপ চালাতে পারবে না বলেই মনে করছেন বিদ্যজনেদের একাংশ । তাই স্বাভাবিক কারণেই আর এস এস এবং তাদের রাজনৈতিক সংগঠন বিজেপি শবরীমালা মন্দিরে সব বয়সের নারীদের প্রবেশের স্বীকৃতি ঘিরে এই রাজনৈতিক আসর গরম করে তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচি "সাম্প্রদায়িকতা" কে বিস্তৃত করে তুলতে চাইছে বলে মনে করছে বামপন্থী সংগঠন গুলি ।প্রসঙ্গত কেরলে একবার কংগ্রেস ,আর একবার সিপিএম ক্ষমতায় আসতো , কিন্তু এবার বিজেপি দিল্লি দখল করার পর প্রধান দুই প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দল হয়েছে সিপিএম এবং বিজেপি ।এবার শবরীমালাকে কেন্দ্র করে বিজেপি তার রাজনৈতিক ভাবে আরো একটু ভালো অবস্থানে যেতে চাইছে , যেটা সিপিএমের পক্ষে অসস্তিকর বলেই মনে করছেন বিদ্যজনেদের একাংশ ।
ওয়েব ডেস্ক ১৩ই অক্টোবর ২০১৮:বিজেপি নেতা মন্ত্রীরা কি নিজেদের সর্বোচ্চ আদালতের উর্ধে বলে নিজেদের মনে করছেন ? ঘটনা প্রবাহ যে দিকে গড়াচ্ছে তাতে তো তাই বলেই মনে হচ্ছে , অন্তত বিদ্যজনেদের একাংশের এটাই অভিমত । লাগামহীন কথা বার্তা তো আগেই ছিল এবার নব তম সংযোজন বিজেপি নেতা তথা অভিনেতা কোল্লাম থুলাসী।
                                

"মহিলাদের দুভাগে চিরে ফেলা উচিত। একটা অংশ দিল্লিতে ও অপর অংশ কেরালার মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠানো উচিত" - সুপ্রীম কোর্টে কেরলের শবরীমালা মন্দিরে সব বয়সের মহিলাদের প্রবেশাধিকারের অনুমতি প্রসঙ্গে এমনই বর্বর ভাষায় মহিলাদের আক্রমণ করলেন বিজেপি নেতা তথা অভিনেতা কোল্লাম থুলাসী।কেরলের চাভারাতে শবরীমালা মন্দিরের প্রাচীন প্রথা রক্ষা করার জন্য একটি র়্যালির আয়োজন করে বিজেপি শাসিত এনডিএ জোট। সেখানেই মহিলাদের এমন কুৎসিত ভাষায় আক্রমণ করেন তিনি।এখানেই থেমে থাকেননি মালায়ালাম এই অভিনেতা। শীর্ষ আদালতের যে চারজন বিচারপতি এই মামলার রায় ঘোষণা করেছিলেন তাঁদের 'নির্বোধ' বলেও সম্বোধন করেছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, "বৃদ্ধা মায়েদের শবরীমালা মন্দিরের এই বিচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা উচিত।"অভিনেতা যখন মহিলাদের উদ্দেশ্যে এই মন্তব্য করছিলেন তখন মঞ্চে কেরলের বিজেপি সভাপতি পি এস শ্রীধরণ ও আর এক বিজেপি নেতা উপস্থিত ছিলেন। দর্শকরাও অভিনেতার এই মন্তব্যকে হাততালি দিয়ে সমর্থন করেছিলেন।এরপর সাংবাদিকরা বিজেপি রাজ্য সভাপতিকে অভিনেতার এই মন্তব্য সমর্থন করেন কিনা জিজ্ঞেস করলে সভাপতি বলেন, "এটি একটি গণ প্রতিবাদ। বহু জনগণ এতে অংশ নিয়েছে। তাদের মধ্যে কে কী বলবে আমরা সেবিষয়ে কিছু জানিনা। থুলাসী আয়াপ্পা দেবীর ভক্ত, তাই তিনি একথা বলেছেন।" বিদ্যজনেদের একাংশের দাবি ভাষায় আরও সংযম থাকা উচিত , রাজনীতিকদের , প্রত্যেকটা মানুষেরই একটা মূল্য বোধ আছে , সেখানে আঘাত হানাতা একদম উচিত নয় বলেই মনে করেন বিদ্যজনেদের একাংশ ।

Friday, 12 October 2018

ওয়েব ডেস্ক ১২ ই অক্টোবর ২০১৮: #‌Me‌Too‌–তে যখন সারা দেশ উত্তাল , এবং একের পর এক অভিযোগে ভারতের  স্বনামধন্য লোকেরা বিচলিত তখন বিজেপির প্রবীণ সাংসদ এবং জনপ্রিয় সাংবাদিক এম জে আকবরের পক্ষে দাঁড়াতে গিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে বসলেন মধ্যপ্রদেশের বিজেপি–র মহিলা মোর্চার প্রধান লতা কেলকার।


 প্রসঙ্গত এম জে আকবরের বিরুদ্ধে যৌন্য হেনস্তার অভিযোগ এনেছিলেন এক মহিলা সাংবাদিক  ।  সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মধ্যপ্রদেশের বিজেপি–র মহিলা মোর্চার প্রধান লতা কেলকার বলেন ‘‌এম জে আকবর প্রাক্তন সাংবাদিক। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগও এনেছেন মহিলা সাংবাদিকরা। কিন্তু আমার মনে হয় মহিলা সাংবাদিকরা নিষ্পাপ নয় যে, তাঁদের সঙ্গে কেউ কিছু করবে কিংবা তাঁদের কেউ ব্যবহার করবে।’ যদিও ‌#‌Me‌Too–র প্রতি সমর্থন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‌এই মি টু আন্দোলনকে আমি স্বাগত জানাই। আমি মনে করি, এতে মহিলারা নিজেদের উপর হওয়া অত্যাচারকে সবার সামনে প্রকাশ করার সাহস দেখাতে পেরেছেন।’ বিদ্যজনেদের একাংশের অভিমত , বিজেপি শাসিত রাজ্যে বা বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধেই এতো অভিযোগ উঠছে কেন , সেটা ভেবে দেখা দরকার । 
ওয়েব ডেস্ক ১২ ই অক্টোবর ২০১৮:যতই দিন যাচ্ছে টাকার দাম পরেই চলেছে , তেলের দামও সেঞ্চুরি পার করবে বলেই মনে করছেন অর্থনীতিবিদদের একাংশের ।  আজ সব রেকর্ড ছাপিয়ে  টাকার দাম ডলারের অনুপাতে দিনের শেষে সর্ব নিম্ন ৭৪.‌২৭ টাকায় গিয়ে দাঁড়ায় যেটা মোটেও ভালো লক্ষণ নয় ।

শেয়ার বাজার খোলার সময় , টাকার দাম ছিল ৭৩.‌৯৩ টাকা ডলারের অনুপাতে  কিন্তু বেলা গড়ার সাথে সাথেই নিম্ন মুখের আকার নেয় । প্রথমে কিছুটা উঠে দাম হয়েছিল ৭৩.‌৮৮ টাকা কিন্তু বাজার বন্ধ হওয়ার সময় সেটা গিয়ে দাঁড়ায় ৭৪.‌২৭ টাকায়।এর আগে গত পাঁচ তারিখ ডলার প্রতি টাকার দাম ছিল  ৭৪.‌২৩ টাকা। বিদেশি মুদ্রার বিনিয়োগকারীরা বলেছেন, যেহেতু আমদানিকারকদের কাছে মার্কিন ডলারের চাহিদা বেড়ে গিয়েছে, সেজন্য টাকার দামের পতনে বার্ষিক ঘাটতির পরিমাণ বাড়বে। এছাড়া গত শুক্রবারই আরবিআই পরিষ্কার  করে জানিয়ে   দিয়েছিল তারা রেপো রেট ৬.‌৫ শতাংশেই অপরিবর্তিত রাখবে। প্রসঙ্গত চলতি বছরেই ডলারের নিরিখে টাকার দাম পড়েছে ১৪%। তথ্য অনুসারে এ বছরে এশীয় বাজারে  টাকার অবস্থাই সব  থেকে  খারাপ অনন্য মুদ্রার তুলনায় , যেটা খুবই লজ্জা  জনক ব্যাপার । আজ শেয়ার বাজার ভালো অবস্থাই খুললেও , দিনের শেষে শেয়ার সূচক ০.‌২৬ শতাংশ পড়ে দাঁড়ায় ৩৪৩৮৪.‌৯১ পয়েন্টে ।অন্যদিকে, ২০.‌৪০ পয়েন্ট বা ০.‌২০ শতাংশ পড়ে নিফটির সূচক দাঁড়ায় ১০৩২৭.‌৬৫ পয়েন্টে। বিদ্যজনেদের একাংশের অভিমত রঘুরাম গোবিন্দ রাজনকে যদি কেন্দ্রীয় সরকার রেখে দিতো তাহলে এরকম অবস্থা হতনা ভারতীয় অর্থনীতির , কিন্তু নিজেদের স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্যই এরা অভিন্দ রাজনের মতো লোককে সুচতুরতার সাথে তাড়িয়েছে  ।        
ওয়েব ডেস্ক ১২ ই অক্টোবর ২০১৮:বিপ্লব দেবের ছোঁয়া কি এবার বিজেপির অন্য অন্য নেতা , মন্ত্রীদের মধ্যে সংক্রমনিতো  হতে লাগল ? ভারতীয় রাজনীতিতে সেটা এখন চর্চার বিষয়ে ।কেননা কিছু বিজেপি নেতা মন্ত্রী নিজেদের বক্তব্য রাখার সময় বেশ কিছু বিতর্কিত মন্তব্য করে ফেলছেন যেটা বিজেপি পক্ষে অস্বস্তিকর । বিরোধীদের একাংশের অভিমত তারা তাদের আসল মনোভাবের কথাটাই বলে ফেলছেন ক্যামেরার সামনে ।

যে রকম বললেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং বিজেপি সংসদ অন্ত কুমার হেগড়ে ।তিনি বলেন  সমাজসেবা করতে নয়, তাঁর দল ক্ষমতায় এসেছে রাজনীতি করতে। তিনি আরও বলেন, ‘‌আপনারা আমাদের দলকে ভোট দিয়েছেন। আপনাদের পছন্দের দলই সরকার গড়েছে, এটা আপনাদের অধিকার। অনেকে বলে আমরা কেবল রাজনীতি করি, কিন্তু আমরা এখানে তো সেটা করতেই এসেছি। এরকম না হলে আর রাজনীতির ময়দানে এসেছি কেন? রাজনীতির জন্যই আমি সাংসদ হয়েছি। রাজনীতি ছাড়া আর কিছু করতে পারব না। আমার সাধ্যের মধ্যে এটাই আছে। সমাজসেবার জন্য রাজনীতির ময়দানে পা রাখিনি। সাংবাদিকরা আমার এই বক্তব্যের যে কোনও অর্থ বের করতে পারেন।’‌ এই বিবৃতির পর , বিরোধীরা কোমর বেঁধে বিরোধিতা করতে শুরু করেছেন , তাদের বক্তব্য বিজেপি যে সাম্প্রদায়িকতার রাজনীতিতে বিশ্বাসী সেটাই প্রমাণিত হলো অনন্ত  কুমারের কোথায় , তারা আরো বলেছেন , বিজেপি কোনো মানুষের ভালো যে করতে আসেনি এই কতটাই উন্নত কুমারের মুখ থেকে বেরিয়ে গেছে , এতেই প্রমাণিত হয় তাদের উদ্দেশ্যটা কি, বিরোধীরা অনন্ত কুমারের পদত্যাগ দাবি করেছেন  ।
ওয়েব ডেস্ক ১২ ই অক্টোবর ২০১৮:মধ্য যুগীয় বর্বরতা বিজেপি শাসিত রাজ্যে সাম্প্রতিক কালে ভালোই দেখা যাচ্ছে ,গতকাল খবরের শিরোনামে এসেছিল দলিতদের কালী প্রতিমা স্থাপনে বাধা উচ্চবর্ণে লোকেদের দ্বারা , আজ সামনে এলো ডাইনি অপবাদে এক নিরীহ মহিলাকে খুন করার ঘটনা , ঘটনাটি বিহারের ।   সূত্রের খবর অনুসারে ঘটনাটি ঘটে সীতামারহির শিভার গ্রামে।

এই গ্রামের বাসিন্দা ৩০ বছরের সবিতা দেবীকে তাঁরই দেওর সুনীল মুখিয়া খুন করে। জানা গিয়েছে, সুনীলের স্ত্রীর সন্তান হচ্ছিল না বলে এক স্থানীয় তান্ত্রিকের দ্বারস্থ হয় তারা। ওই তান্ত্রিকই তাদের জানায় যে সুনীলের বৌদি সবিতা আসলে ডাইনি এবং তিনি তাঁর বাড়িতে ডাইনিবিদ্যা অভ্যাস করেন। যার জন্যই সুনীল ও তার স্ত্রীর সন্তান হচ্ছে না। তান্ত্রিক পরামর্শ দেয়, ভগবানকে সন্তুষ্ট করতে হলে সবিতা দেবীর বলি চড়াতে হবে। তবেই সুনীলের পুত্রসন্তান হবে। তান্ত্রিকের কথামতোই সবিতা দেবীর দেওর তাঁকে খুন করে। পুলিশের তরফ থেকে জানা গেছে সুনীলের স্ত্রী , সুনীল নিজে , এবং তার ভাই বিরু এই হত্যা কাণ্ডের সাথে সমান ভাবে জড়িত । দোষীরা তাদের দশ স্বীকারও করেছে । প্রসঙ্গত সবিতা দেবীর মায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে এদের জেরা করা শুরু করেছিল সীতামারহির পুলিশ ।প্রাথমিক তদন্তে সবিতা দেবীর স্বামীকেও পুলিশ সন্দেহের উর্ধে রাখেনি , কিন্তু প্রাথমিক জেরার পর তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে । 

Thursday, 11 October 2018

ওয়েব ডেস্ক ১১ই অক্টোবর ২০১৮: উত্তরপ্রদেশের সেই জাতি ভেদাভেদ যেমন ছিল তেমনি আছে , যোগীর শাসন কালে একদম পরিবর্তন  হয়নি বরং উল্টোটাই ঘটেছে ।প্রসঙ্গত মেরঠে কয়েকটি দলিত পরিবার একটি শিব মন্দিরে কালী প্রতিমা স্থাপন করতে গিয়েছিল সেই সময় উচ্চবর্ণের চারটি পরিবারের পক্ষ থেকে তাদের কালী প্রতিমা স্থাপনে বাধা দেওয়া হয় , এই নিয়েই গোলমাল শুরু হয় ।


গোলমাল এতটাই বেড়ে যায় যে জেলা শাসক অবধি সেটা গড়ায়, সেখানে লিখিত অভিযোগ করে দলিত পরিবার গুলো , এখানেই শেষ নয় তারা প্রশ্ন তোলে , তারা দলিত হলেও জাতে তো তারা হিন্দু তাহলে তাদের সঙ্গে এরকম বৈষম্য করা হচ্ছে কেন ? তাদের    এও অভিমত , যদি প্রতিমা স্থাপন করতে না পারে তাহলে তারা কোথায় যাবে , এর থেকে ধর্মান্তিকরন করাই শ্রেয় ।এতেই মেরঠ বেশ  উত্তপ্ত  ।সূত্রের খবর অনুসারে যেই ৫০ টি দলিত পরিবার আন্দোলনের পথে নেমেছে , শুধু তারাই নন , আরও ১০০টি পরিবার ধর্ম পরিবর্তনের কথা গম্ভীর ভাবে ভাবছে  ।দলিত পরিবার গুলোর আরও অভিযোগ , উচ্চবর্ণের লোকেরা কালীমন্দিরটাকে গাড়ি পার্ক করার জায়গা হিসেবে ব্যবহার করে থাকে , এখানেই শেষ নয় , রাতে মদ্যপের আসরও চলে । বিদ্যজনেদের একাংশের অভিমত , এই ভাবে দলিতরা যদি ধর্ম পরিবর্তন করে তাহলে ভারতের মতো ধর্মনিরপেক্ষতা দেশে ব্যাপারটা গ্রহণ যোগ্য নয় ।      
ওয়েব ডেস্ক ১১ই অক্টোবর ২০১৮: বিরোধীদের কথাই সত্যি  প্রমাণিত হচ্ছে । প্রসঙ্গত কংগ্রেস সহ অন্যান্য বিরোধীরা অনেকদিন ধরেই বলে আসছিলো , ভারতীয় অর্থ্যনীতি তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়বে , কিন্তু অরুন জেটলি থেকে বিজেপির তাবড় তাবড় নেতারা ব্যাপারটা গম্ভীর ভাবে নেননি আজ তারই খেসারত দিতে হচ্ছে বলে মনে করেন ভিডিও জনেদের একাংশ ।


  আজ শেয়ার বাজার খোলার পর থেকে ধস নামে। প্রায় ১০০০ পয়েন্ট পড়ে দিন শুরু করে স্টক এক্সচেঞ্জ। বাজার খোলার আগেই যদি ১০০০ পয়েন্ট পরে যায় তাহলে ধস নামটা অনিবার্য্য ছিল এবং হয়েছেও তাই  ।নিফটি ৩১১ পয়েন্ট পরে মার্কেট শুরু করে, পরবর্তী সময়ে ডলারের নিরিখে টাকার দাম আরো পড়তে থাকায় বাজার  আরো নিচের দিকে চলে যায় । আজ ডলার প্রতি টাকার দাম গিয়ে দাঁড়ায় ৭৬.‌৪৫ । যেটা সর্বকালীন রেকর্ড , এবং মনে রাখা দরকার এক দিনে ২৪ পয়সা বেড়ে গিয়ে এই দামটায় গিয়ে দাঁড়িয়েছে  । এখানেই শেষ নয়, এছাড়া এদিন পেট্রল ডিজেলেরও দাম কিছুটা বাড়ে। কলকাতায় পেট্রলের দাম বেড়ে লিটার পিছু হয় ৮৪.‌১৯ টাকা। এছাড়া, ২৭ পয়সা বেড়ে ডিজেলের দাম দাঁড়ায় ৭৬.‌৪৭ টাকা।  প্রসঙ্গত মোদির অর্থনীতি নিয়ে দেশের  তাবড় তাবড়  অর্থনীতিবিদ প্রকাশ্যে সমালোচনা করেছে , কিন্তু তাতে কোনো রকম ভুরুক্ষেপ করেননি অরুন জেটলি বা প্রধানমন্ত্রী , কারণ তারা মনে করেছিল দীর্ঘ উন্নতির জন্য জি,এস.টি  প্রয়োজন কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি ।নোটবন্দি করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার , সেখানে দেখা যাচ্ছে ক্ষুদ্র শিল্প প্রচন্ড ধাক্কা খেয়েছে ।

Wednesday, 10 October 2018

ওয়েব ডেস্ক ১০ই অক্টোবর ২০১৮: পূর্ব ভারতে ফ্লিপ কার্টের কোনো ইন্ডাস্ট্রিয়াল হাব ছিল না এবার সেটাই তৈরী পশ্চিমবাংলার হরিণঘাটায় । নবান্নের সূত্রে খবর এ রাজ্যে প্রায় ৯৫১ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে ফ্লিপকার্টের মূল সংস্থা ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রাইভেট সার্ভিসেস লিমিটেড।যে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক রয়েছে, সেখানেই ১০০ একর জমি দেওয়া হবে সংস্থাটিকে।


অর্থমন্ত্রীর দাবি, ১৮ হাজারেরও বেশি মানুষের সেখানে চাকরির সুযোগও তৈরি হবে। এছাড়া এই প্রথম পূর্ব ভারতে ফ্লিপকার্টের কোনও ইন্ডাস্ট্রিয়াল হাব তৈরি হতে চলেছে। গত এক বছর ধরেই এই বিষয়টি নিয়ে রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা চালাচ্ছিল সংস্থাটি। অবশেষে তা বাস্তবের রূপ পেতে চলেছে। অন্যান্য রাজ্যগুলির সঙ্গেও কথা বলেছিলেন ফ্লিপকার্টের আধিকারিকরা। এ রাজ্যে বেশ কয়েকটি জায়গাতেও জমি দেখতে গিয়েছিলেন তিনি।  শেষে হরিণঘাটার জায়গাটিই তাঁদের পছন্দ হয়। আগামী তিন মাসের মধ্যে জমি হাতে পেয়ে যাবে সংস্থাটি। শুরু হয়ে যাবে কাজও। জানা গিয়েছে আগামী দেড় বছরের মধ্যে সমস্ত কাজ শেষও করে ফেলবে সংস্থাটি।বিদ্যজনেদের একাংশের দাবি এতদিন বিরোধীরা অনেক কুৎসা রত্না করেছিল তৃণমূল সরকারের প্রতি । এবার তারা কি বলবে ?
loading...