Wednesday, 10 January 2018

পুরোহিত সম্মেলনে ডেকে অপমান:- তৃণমূল নেতারা চেয়ারে; আর হিন্দু পুরোহিতরা মাটিতে


                                                                                                                               

 বীরভূম ৯ই জানুয়ারি :- বিজেপির ক্রমবর্ধমান ভোট শাসক তৃণমূলের কাছে গলার কাঁটার মতো বিঁধছে৷  দলের শীর্ষ স্থানীয় নেতারা কারণ বিশ্লেষণ করে বোঝেন যে তৃণমূল সরকারে আসার পর সংখ্যালঘুদের জন্য অনেক কাজ করলেও হিন্দুদের জন্য একরকম কোনো কাজই করেননি ৷  এর ফলে হিন্দুদের মধ্যে অসন্তোষ বাড়ছে৷ আর এই অসন্তোষের উপর ভিত্তি করেই বিজেপি তাদের ভোট বাড়াচ্ছে ৷ এর ফলে রীতি মত আসোনি সংকেত দেখতে শুরু করেছে শাসক দল ৷ এই অসন্তোষ কে ধামা চাপা দিতেই বীরভূমে পুরোহিত ভাতা ও গাভী প্রদানের কথা বলে , হিন্দু পুরোহিতদের সম্মেলনের আয়োজন করে শাসক দল৷ রীতি মত ঢাক ঢোল পিটিয়ে প্রচার করলেও একরাশ হতাশা নিয়েই বাড়ি ফিরলেন হিন্দু পুরহিতরা ৷

                 "ইমাম ভাতা" আদলে "পুরোহিত ভাতা" দেওয়া হবে ঘোষণা দিয়ে সোমবারই বীরভূমের ডাকবাংলো মাঠে পুরোহিত সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল৷ জেলার ১৫ হাজার পুরোহিতকে ডেকে ম্যারাপ বেঁধে তাঁদেরকে গীতা, মণীষীদের ছবি ও অমৃতবাণী এবং পেটপুরে ভোজন করানো হয়েছিল৷ তবে পুরোহিতদের ভাতার বিষয়ে কোনও ঘোষণা হয়নি৷ ঘোষণা করা হয়েছিল, সম্মেলনের পর প্রত্যেক পুরোহিতকে ১ টি করে গাভী দেওয়া হবে৷ যদিও সভা শেষে তৃণমূলের তরফে জানানো হয়, দু’একদিনের মধ্যে পুরোহিতদের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া হবে গাভী৷ কিন্তু পুরোহিত ভাতার আশ্বাস না পেয়ে ও সমগ্র অনুষ্ঠানে নেতারা চেয়ারে বসলেও পুরোহিতদের মাটিতে বসতে দেওয়া হয়৷ সমগ্র ঘটনায় যারপরনাই ক্ষুব্ধ পুরোহিতদের সিংহভাগ অংশ ৷


                তবে এই ঘটনা নিয়ে জেলায় রাজনৈতিক তরজা শুরু হয়ে গেছে৷ বীরভূমের হাঁসন বিধানসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস বিধায়ক মিলটন রশিদ। তিনি কিছুদিন আগেই বিধানসভায় চিঠি পাঠিয়ে পুরোহিতদের ভাতা দেওয়ার আবেদন জানান। চিঠিটি মুখ্যমন্ত্রীর কাছে বিবেচনার জন্য পাঠানো হয়।তবে রশিদ কে এড়িয়ে সম্মেলন করে রশিদ যারপরনাই ক্ষুব্ধ৷ তিনি বলেন ‘‘দিদিমণি নওয়াজ পড়ছে৷ অনুব্রত পুরোহিত সম্মেলন করছে৷ এর থেকেই তো স্পষ্ট- ওরা ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করতে চাইছে৷ কই আমি তো বলিনি, পুরোহিত ভাতা পেলে কংগ্রেস করতে হবে৷’’ পুরোহিতদের এভাবে অপমান করার প্রতিবাদে আগামী ১২ জানুয়ারী বিবেকানন্দের জন্মদিবসে ধর্মতলায় অবস্থান বিক্ষোভ করা হবে বলেও জানান রশিদ৷ তবে এই বিষয়ে জেলা বিজেপির কোনো প্রতিক্রিয়া এখনো পাওয়া যায়নি ৷
                                                                                                                   (চিত্র - সংগৃহিত) 

No comments:

Post a Comment

loading...