Friday, 12 January 2018

সুপ্রীম কোর্টের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা চার বিচারপতির, ঐতিহাসিক সংকট বিচারবিভাগে

ওয়েব ডেস্ক , ১২ই জানুয়ারী :- শীতের কাঁপুনি ভুলে উত্তেজনায় ফুটছে দিল্লি কারণ স্বাধীন ভারতের ইতিহাসে নজিরবিহীন ভাবে সুপ্রিম কোর্টের চার বিচারক সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলেন। বিচারবিভাগে দুর্নীতি নিয়েও খোদ প্রধান বিচারক দীপক মিশ্রর বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন।  শুক্রবার সকালে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারকের পরেই যার স্থান অর্থাৎ আদালতের দু'নম্বর বিচারপতি চেলমেশ্বরের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিচারক জে চেলামেশ্বরের বাসভবনে এই সাংবাদিক বৈঠক হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিচারক এম বি লোকুর, বিচারক রঞ্জন গগৈ, বিচারক ক্যুরিয়েন জোসেফ।


এই দিন সাংবাদিক বৈঠকের আমন্ত্রণ পেয়ে সেখানে সাংবাদিকরা খুব উৎসাহের সঙ্গে উপস্থিত হন .. কিন্তু তাল কেটে যায় যখন বিচারক জে চেলামেশ্বর বলতে শুরু করেন। তিনি বলেন এ এক ব্যতিক্রমী ব্যাপার। এটা কোনও আনন্দের ব্যাপার নয় , তবু আমরা সাংবাদিক বৈঠক ডাকতে বাধ্য হলাম। এটা আমাদের কাছে যন্ত্রণার মূহূর্ত। সুপ্রিম কোর্টে সব কিছু ঠিকঠাক চলছে না। শীর্ষ আদালতের প্রশাসন সঠিক ভাবে কাজ করছে না। গত কয়েক মাসে এমন বেশ কিছু ঘটনা ঘটেছে, যা কাঙ্খিত নয়। বিগত চারমাস ধরে যে এই ঘটনা ঘটছে সে কোথাও তারা উল্লেখ করেন।

সোহরাবুদ্দিন এনকাউন্টার মামলার বিশেষ সিবিআই বিচারক বিএইচ লোয়ার রহস্যজনক মৃত্যু নিয়েও প্রশ্ন তোলেন তাঁরা। যেভাবে সিনিয়র বিচারপতিদের অগ্রাহ্য করে জুনিয়রদের হাতে এই মামলা বিচারের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়েছে, তাতেও অসন্তোষ প্রকাশ করেন এই চার বিচারপতি।

কিন্তু এভাবে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে প্রধান বিচারপতির নামে নালিশ করা তো নজিরবিহীন। সে ব্যাপারে বিচারপতি গগই বলেন, ‘‘আমরা কোনও নিয়ম ভাঙছি না। জাতির প্রতি আমাদের ঋণ শোধ করছি মাত্র।’’

তাঁরা অভিযোগ করেন, এ ভাবে যদি দেশের সর্বোচ্চ আদালত চলে তাহলে ভারতের গণতন্ত্র বাঁচবে না। বিচারপতি চেলামেশ্বর বলেন, ‘‘ আমরা চাই না, আজ থেকে ২০ বছর পরে লোকে বলুক যে, এই চার জন বিচারপতি নিজেদের অন্তরাত্মাকে বিসর্জন দিয়েছিল।’’ সুপ্রিম কোর্ট সুরক্ষিত না থাকলে দেশে গণতন্ত্র বাঁচবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। তবে প্রধান বিচারপতিকে ইমপিচ করা উচিত কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন করা হলে বিচারপতিরা সেই দায়িত্ব দেশের মানুষের উপরেই ছেড়ে দেন।

আদালত প্রশাসনের গাফিলতির অভিযোগ খোদ তিন বিচারপতির মুখ থেকে উঠে আসায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে সবর্ত্র।নজির বিহীন এই সাংবাদিক বৈঠকের পরই দেশের আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের সঙ্গে জরুরি বৈঠকে বসেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। 

No comments:

Post a Comment

loading...