Sunday, 22 April 2018

এক লক্ষেরও বেশি ধর্ষণ হওয়ার পর আইন পরিবর্তন করলো বিজেপি সরকার

ওয়েব ডেস্ক ২২ শে এপ্রিল ,২০১৮ :রবিবার রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, ১২ বছরের কম বয়সী মেয়েদের ধর্ষণের দায়ে দোষীদের জন্য মৃত্যুদণ্ড সহ কঠোর শাস্তি প্রদানের জন্য একটি আইন প্রনয়ণ করেছেন।
১২  বছরের কম বয়সী মেয়েদের ধর্ষণের অপরাধে  আদালতকে দোষীদের  মৃত্যুদন্ডের অনুমতি দেওয়ার জন্য শনিবার মন্ত্রিপরিষদের তরফ থেকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।ফৌজদারি আইন (সংশোধনী) অধ্যাদেশ ২০১৮  অনুযায়ী, এই ধরনের মামলা মোকাবেলা করার জন্য নতুন ফাস্ট ট্র্যাক আদালত স্থাপন করা হবে এবং ধর্ষণের ক্ষেত্রে বিশেষ ফরেনসিক  কিটগুলি  সব থানা ও হাসপাতালগুলিতে দেওয়া হবে।
 
                                                                                                                  প্রতীকী চিত্র

বিশেষত ১৬  এবং ১২  বছরের নিচে ধর্ষিত  মেয়েদের ক্ষেত্রে  এটি  অপরাধীদের কঠোর শাস্তি প্রদান করবে । ১২ বছরের কম বয়সী মেয়েদের ধর্ষণের জন্য মৃত্যুদণ্ড প্রদানের রায় দেওয়া হয়েছে। নারীর ধর্ষণের ক্ষেত্রে ন্যূনতম দণ্ড সাত বছর কঠোর কারাদণ্ড থেকে ১০  বছর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে, এবং সেটি আজীবন কারাদণ্ডের জন্য প্রযোজ্য ।
১৬  বছরের কম বয়সী মেয়েদের  ধর্ষণের ক্ষেত্রে, সর্বনিম্ন শাস্তি ১০  বছর থেকে ২0 বছর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে  , যা বাকি জীবনকে কারাবাসের
 থাকতে বাধ্য করবে যতক্ষননা স্বাভাবিক মৃত্যু হয় ।
  ১৬ বছরের কম বয়সী মেয়েকে গণধর্ষণ করলে অভিযুক্তদের আজীবন কারাবাসে দণ্ডিত করা হবে ।  ১২ বছরের কম বয়সী মেয়েকে ধর্ষণের জন্য কঠোর শাস্তি কমপক্ষে ২0 বছরের  কারাগারে পরিণত করা হয়েছে  যা মৃত্যুদণ্ড অবধিও যেতে পারে ।
আরো জানা গেছে ভারতীয় দণ্ডবিধির (আইপিসি), প্রমাণ আইন, ফৌজদারি কার্যবিধি (সিআরপিসি) এবং যৌন অপরাধ থেকে শিশুদের সুরক্ষা (POCSO) আইন এ সংশোধিত করা হবে।ধর্ষণের সব ক্ষেত্রে তদন্তের সময়সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে, যা দুই মাসের মধ্যে বাধ্যতামূলকভাবে সম্পন্ন করতে হবে।
    ১৬  বছরের কম বয়সী কোনো  মেয়েকে ধর্ষণ বা গণধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত হলে সেই ব্যক্তির  জন্য আগাম জামিনের ব্যবস্থাও থাকবে না।

No comments:

Post a Comment

loading...