Sunday, 13 May 2018

২০১৪ বিজেপির সরকারের আসাটা "ঐতিহাসিক" এবং হিন্দুত্বের মানে জাতীয়তাবাদ হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে দ্বাদশ শ্রেণীর বইয়ে

ওয়েব ডেস্ক ১৩ই মে ২০১৮: ২০১৪  সালের সাধারণ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং ভারতীয় জনতা পার্টির জয়কে  "ঐতিহাসিক" হিসেবে , দ্বাদশ শ্রেণীর এনসিইআরটি পাঠ্য বই বর্ণনা করা হয়েছে । ১৯৮৯  সালের শাহ বানু মামলার পরবর্তী সময়ে ক্ষমতাসীন সরকারের বিরুদ্ধে কীভাবে বিজেপিকে   মুসলিম নারীর স্বপক্ষে দলীয় মত প্রতিষ্ঠা করতে হয়েছিল সে ঘটনাও বর্ণনা করা হয়েছে ।
শিরোনামের অধ্যায়ে "সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মনিরপেক্ষতা, গণতন্ত্র" , বুদ্ধিমান শিক্ষার্থীদের আলোকিত করার চেষ্টা করে এই লিখে , ১৯৮৬  সালের পর বিজেপি কীভাবে তার মতাদর্শে হিন্দু জাতীয়তাবাদী শক্তির উপর জোর দিতে শুরু করেছিল।


"হিন্দুত্ব  আক্ষরিকভাবে হিন্দুত্ততা বোঝায়  এবং তার উৎপত্তি ভি.ডি. সাভারকার দ্বারা ভারতীয় জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে সংজ্ঞায়িত করা হয়। এটি মূলত ভারতীয় জাতির সদস্য হওয়া বোঝায়, প্রত্যেকেরই কেবল ভারতকে তাদের পিতার ভূমি হিসেবে গ্রহণ করা উচিত নয়, তবে তাদের পবিত্র ভূখন্ডও "হিসেবেও গণ্য করা উচিত বলে বইটিতে লেখা হয়েছে ।
 বইটি মধ্যে  'হিন্দুত্ব'র  অর্থ ব্যাখ্যা করা হয়েছে ।যেখানে  "হিন্দুত্বের বিশ্বাসীরা বলছেন যে এক শক্তিশালী দেশ তখনি  শক্তিশালী হয় যখন  জাতীয় সংস্কৃতির ভিত্তিতে দেশটি নির্মিত হয় ," এই কোথাও লেখা হয়েছে ।
এই বইটি ২০০২  সালের গুজরাটের দাঙ্গায় একটি অংশে  " মুসলিম বিরোধী" শব্দটিকেও বাদ দেওয়া হয়েছে । বইয়ের অংশে  "২00২ সালের গুজরাট দাঙ্গা" কথাটি  শিরোনামে  রাখা হয়েছে ।এখানেই শেষ নয়  'মুসলমান' শব্দটির ভিতর থেকে বাদও দেওয়া  হয়েছে, যদিও গুজরাট সরকারের  দাঙ্গা মোকাবিলা নীতি নিয়েও  সমালোচনা করা হয়েছে ।
এনসিইআরটি'র পরিচালক এইচ কে সেনাপাতি কাছে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হয়েছিল কিন্তু তাকে পাওয়া যায়নি , কাউন্সিলের তরফ থেকে জানানো হয় , ১১  বছর পর পাঠ্যবইগুলির কয়েকটি জায়গায়  সংশোধনের অংশই  ছিল বিষয়বস্তু।


তথ্য সূত্র ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

No comments:

Post a Comment

loading...