Thursday, 10 May 2018

আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে ,বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়ে মমতাকে হারানোর ছক সিপিএমের

ওয়েব ডেস্ক ১০ই মে ২০১৮ : কেরলে তারা চির প্রতিদ্বন্দ্বী , শুধু তাই নয় , ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে তাদের সাপে নেউলে সম্পর্ক ৷ সারা দেশে প্রতি ফোরামে একে অপরের প্রতি  ঘৃণা প্রদর্শনের কোন সুযোগই তারা ছাড়ে না  ।আশ্চর্য হলেও , এটাই সত্যি পশ্চিমবঙ্গে সিপিএম এবং বিজেপি একে অপরকে জায়গা ছেড়ে দিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে পরাস্ত করার জন্য ৷ যেই কমিউনিস্ট পার্টি অফ ইন্ডিয়া নীতি নিয়ে , বিজেপিকে সাম্প্রদায়িক দল ঘোষণা করে বাংলার মাটিতে বৃহত্তম আন্দোলনের ডাক দিয়েছিলো ,সেই নীতি আজ তাদের কোথায় ? বিদ্দ্যজনেদের একাংশের জিজ্ঞাসা  ৷

                                                                                                  চিত্র সৌজন্যে ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস

তাহলে ৩৪ বছর ধরে বাংলার মানুষকে বোকা বানানোটাই তাদের একমাত্র ইউ .এস.পি (উনিক সেলিং পয়েন্ট) ছিল ? বাংলার মানুষের এই প্রশ্নের, মুজাফ্ফর আহমেদ ভবন বা আলিমুদ্দিনের কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি  ৷
কলকাতার ১৩০  কিলোমিটার উত্তরে নাদিয়া জেলায় নন্দীগ্রামের  নির্বাচনে  বিজেপির পদ্ম ফুল  আর  সিপিএমের কাস্তে হাতুড়ির  পাশাপাশি প্রার্থীদের নাম এবং ভোট চাওয়ার  আবেদনও রয়েছে।
এরকম আরেকটি ঘটনা দেখা দিয়েছে করিমনগরের মোল্লাহাদ গ্রামে যেখানে সিপিএমের সুস্মিতা মন্ডলের জন্য যেমন গ্রাম পঞ্চায়েত নির্বাচনে জয়ী করার আহ্বান করা হয়েছে ঠিক তেমনি একই দেয়ালে বিজেপির বিকাশ মন্ডল আর অরিজিৎ রায় কে পঞ্চায়েত সমিতি আর জেলা পরিষদের নির্বাচনে বিপুল ভোট জয়ী করার আহ্বান জানানো ।
তাহলে এতদিন ধরে রাজ্য সিপিএম নেতৃত্ব মানুষের মূল্যবোধ, নিজেদের নীতি নিয়ে এতো লেকচার দিয়ে  এসেছে তাহলে সেগুলো কি সব মিথ্যে ? প্রবীণ নদীয়া জেলার মানুষ কিন্তু প্রশ্ন করতে শুরু করেছে ।
বর্ধমানের পূর্বশোলিতে  বিজেপি নেতা দাবি করেন, স্থানীয় সিপিএম নেতৃবৃন্দও তৃণমূলের বিরুদ্ধে "ক্ষুদ্র যৌথ প্রতিবাদ অভিযানে " অংশ নেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছেন। ২8 শে এপ্রিল রানাঘাটের মজহারগ্রামে  বিক্ষোভ মিছিলে সিপিএমের বিধায়ক রমা বিশ্বাস ও দলের কর্মীরা বিজেপি কর্মী ও নেতাদের সঙ্গে একই মিছিলে পা মিলিয়েছেন  । 

No comments:

Post a Comment

loading...