Saturday, 28 July 2018

নির্বাচনী প্রচারে রাফায়েলকে হাতিয়ার করে এগিয়ে চলছে কংগ্রেস

ওয়েব ডেস্ক ২৮শে জুলাই ২০১৮ :রাফায়েল চুক্তি নিয়ে বিজেপিকে  আরও কোন ঠাসা করার কাজে নেমে পড়ল কংগ্রেস ।সব নথি পত্র নিয়ে আসরে কংগ্রেস যে নামবেই সেটা এক রকম ঠিকই ছিল , কিন্তু কথা হচ্ছে কি কি নথি পেশ করতে পারে কংগ্রেস । ফর্দটার মধ্যে  প্রতিরক্ষা মন্ত্রক, ফ্রান্সের বিমান তৈরির সংস্থা ‘‌ডসল্ট অ্যাভিয়েশন’‌, পিআইবি, রিলায়েন্স এবং আরও কিছু সরকারি নথি রয়েছে  । যেটা সবথেকে বেশি আলোড়ন ফেলেছে সেটা হল প্রোধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী  ফ্রান্স সফরে গিয়ে রাফাল চুক্তি ঘোষণার মাত্র ১২ দিন আগে তৈরি করা হয়েছিল অনিল আম্বানির রিলায়েন্স ডিফেন্স লিমিটেড। সেদিন পর্যন্ত তাদের হাতে যুদ্ধবিমান তৈরির লাইসেন্সও ছিল না। অথচ, সরকারি সংস্থা ‘‌হিন্দুস্থান অ্যারোনেটিক্স লিমিটেড’কে বাতিল করে রাতারাতি রিলায়েন্সকেই ৩০ হাজার কোটির চুক্তি পাইয়ে দিয়েছে মোদি সরকার।কংগ্রেসের দাবি করছে রাফায়েলের চুক্তির পরিমাণ ৬০,১৪৫ কোটি টাকা ।



Image result for pics of rafale aircrafts
ব্যঙ্গের সুরে রাহুল গান্ধী টুইট করে বলেছেন, ‘‌একটা স্যুট পরা উচিত। ৪৫ হাজার কোটি ঋণ হওয়া উচিত। ১০ দিনের পুরনো কোম্পানি হওয়া উচিত। জীবনে কোনওদিন একটিও বিমান তৈরি করেননি। যদি আপনি এইসব মানদণ্ড পূরণ করেন, তাহলে ‘‌অফসেট চুক্তি’‌–‌‌তে ৪ বিলিয়ন ডলার পর্যন্ত পুরস্কার পাবেন।’‌ এরপর আবার টুইট করে রাহুল বলেছেন, এরসঙ্গে লাইফ সার্কল চুক্তি যোগ করলে অঙ্কটা দাঁড়াবে ২০ বিলিয়ন ডলারে। এদিন কংগ্রেস মুখপাত্র ‌রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা বলেছেন, ৪টি বিষয় অত্যন্ত স্পষ্ট। প্রথম বিষয়, ডসল্ট অ্যাভিয়েশন কোম্পানি ২০১৪ সালের ১৩ মার্চ ভারতের হিন্দুস্থান অ্যারোনেটিক্স লিমিটেড‌এর সঙ্গে ৩০ হাজার কোটির ‘‌ডিফেন্স অফসেট কন্ট্রাক্ট’‌ স্বাক্ষর করে। কিন্তু, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০১৫ সালের ১০ এপ্রিল ফ্রান্সে গিয়ে যখন ৩৬টি বিমান কেনার কথা ঘোষণা করলেন, ঠিক সেদিনই এইচএএল–‌‌কে এই চুক্তি থেকে বের করে দেওয়া হল। দুই, ‘‌ডিফেন্স অফসেট কন্ট্রাক্ট’ দেওয়া হয়েছে রিলায়েন্স গোষ্ঠীকে। যাদের বিমান তৈরির অভিজ্ঞতা শূন্য। সেই ‘‌রিলায়েন্স ডিফেন্স লিমিটেড’‌ তৈরি করা হয়েছে ২০১৫ সালের ২৮ মার্চ। অর্থাৎ, ফ্রান্সে প্রধানমন্ত্রীর রাফাল ঘোষণার মাত্র ১২ দিন আগে। তিন, রিলায়েন্স গোষ্ঠীর আর একটি কোম্পানি ‌রিলায়েন্স এয়ারোস্ট্রাকচার লিমিটেড‌কে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক যুদ্ধবিমান তৈরির লাইসেন্স দিয়েছে। কিন্তু, আবেদনের আগে ও পরে ওই কোম্পানির কোনও বিল্ডিং বা জমি পর্যন্ত ছিল না। আশ্চর্যের বিষয় হল, মোদি ফ্রান্সে ৩৬টি যুদ্ধবিমান কেনার কথা ঘোষণার ১৪ দিন পর, ২৪ এপ্রিল এই কোম্পানি তৈরি হয়েছে। ফলে, যোগসাজশ বুঝতে কারও অসুবিধা হওয়ার কথা নয় ।
এখন কথা হচ্ছে ,  বাড়ে বাড়ে প্রধানমন্ত্রী বলে আসছেন তিনি বিস্তারিত কিছুই জানাতে পারবেননা ,কারণ দেশের স্বার্থ এর মধ্যে জড়িয়ে আছে ।এটাই কি আসল কথা না এর মধ্যে অন্য কিছু রয়েছে ? বিদ্যজনেদের একাংশ কিন্তু প্রশ্ন করতে শুরু করে দিয়েছে।

তথ্য কৃত্যজ্ঞতা স্বীকার "আজকাল "

No comments:

Post a Comment

loading...