Friday, 17 August 2018

টাকার দাম পড়ে যাওয়াতে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

ওয়েব ডেস্ক ১৭ই অগাস্ট ২০১৮ :টাকার দাম নতুন করে পড়ে যাওয়াতে , গভীর দুশ্চিন্তা ব্যক্ত করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ,তিনি টুইট করেন  ‘টাকার সর্বকালীন পতন হয়েছে৷ সেটা আমরা সবাই জানি৷ ফলে, তেল আমদানি করতেও দাম বাড়বে৷ সবজির দামও বাড়বে৷ নোটবন্দির পর একের পর এক ধাক্কা৷ এবার ধাক্কা এল টাকাতেও৷ দেশের ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসার আরও ক্ষতি হবে৷ দেশের কৃষকরাও আরও ক্ষতিগ্রস্ত হবেন৷ ক্রমশ সময় পেরিয়ে চলেছে৷ দেওয়াল লিখন পড়া যাচ্ছে।’


প্রসঙ্গত আমেরিকা ও তুরস্কের মধ্যে শুল্ক নিয়ে চাপানউতোর জন্য , বিনিয়োগকারীরা তুরস্কের শেয়ার বাজার থেকে টাকা তুলে নেওয়ায়, তুরস্কের মুদ্রা লিরার দাম পড়েছে। ভারতের মতো উন্নয়নশীল দেশের শেয়ার বাজারে টাকা রাখার সাহস পাচ্ছেন না বিনিয়োগকারীরা। সব মিলিয়ে তারই প্রভাব পড়ছে টাকার দামে। অর্থনীতিবিদদের আশঙ্কা, লিরার এই পতনের ফলে বৈদেশিক মূল্য লেনদেন ব্যাহত হবেই, তার সঙ্গে মুদ্রাস্ফীতির কারণে বৃদ্ধি পাবে ব্যক্তিগত ব্যয়ভারও।টাকার পতনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে অশোধিত তেল, সার, ওষুধ ও লোহা আমদানি। জ্বালানির প্রায় ৭০ শতাংশই আমদানি করে থাকে ভারত। পেট্রল ও ডিজেলের মূল্য এমনিতেই আকাশছোঁয়া, মুদ্রাস্ফীতির ফলে তা হতে পারে দুর্মূল্য। টাকার পতনের ফলে দাম বাড়তে পারে চাল, ডালের মতো নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যেরও। অসুবিধায় পড়তে পারেন শিক্ষা ঋণ নিয়ে বিদেশে পড়তে যাওয়া শিক্ষার্থীরা। আমদানিভিত্তিক শিল্পগুলিও বড়সড় ধাক্কা খেতে পারে। সমস্যা হতে পারে পর্যটন ব্যবসাতেও। ‌‌‌
এদিকে, টাকার দামে পতনের কারণে দেশের অর্থনীতির ওপর চাপ বাড়াবে তেল আমদানি খাতে খরচ। চলতি আর্থিক বছরে ‌অশোধিত জ্বালানি তেল আমদানি খাতে ভারতের খরচ হবে বাড়তি প্রায় ১.‌৮২ লক্ষ কোটি টাকা। এর জেরে ফের বাড়তে পারে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম। বৃহস্পতিবারই দিল্লিতে লিটার পিছু ৬ পয়সা বেড়েছে পেট্রোল ও ডিজেলের দাম। কিন্তু বিদ্যজনেদের  একাংশের মত, আমেরিকা যে তুরস্কের থেকে আমদানি করা জিনিসের ওপর শুল্ক বাড়াতে পারে সেই খবর তো কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আগে থেকেই ছিল ,কিন্তু তা সত্ত্বেও কেন কেন্দ্রীয় সরকার যথাযথ ব্যবস্থা নেয়নি? তা নিয়ে প্রশ্ন প্রশ্ন উঠেছে অনেক মহলেই   । ‌‌‌




তথ্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার "আজকাল "

No comments:

Post a Comment

loading...