Saturday, 18 August 2018

আরবিআই এর রিপোর্ট অনুসারে নোটবন্দি এবং জিএসটি বাস্তবায়নের ফলে ক্ষুদ্র শিল্পে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে

ওয়েব ডেস্ক ১৮ই অগাস্ট ২০১৮ :রিজার্ভ ব্যাঙ্কের এক গবেষণায় দেখা গেছে, নভেম্বর ২০১৬  সালে নোটবন্দিতে ক্ষুদ্র শিল্পের ক্ষতি ছাড়া ভালো কিছুই হয়নি  , জিএসটি আসার পরেও  ইতিবাচক কোনো  প্রভাবও  সৃষ্টি হয়নি, বরং রপ্তানিতে উল্লেখ যোগ্য হ্রাস পেয়েছে । যদিও সাম্প্রতিক কালে ক্ষুদ্র শিল্প সংস্থা গুলোকে ব্যাঙ্ক থেকে লোন দেওয়া হলেও, জিএসটি বান্তবায়নের জন্য চতুর্থ অর্ধে রপ্তানিতে ব্যাপক ধাক্কা খেয়েছে  ।

 উল্লেখ্য , ৬৩ মিলিয়ন ইউনিট রয়েছে ক্ষুদ্র শিল্পে যেখানে কাজ করছেন ১১১ মিলিয়ন  মানুষ ,আর ভারতের জিডিপিতে ক্ষুদ্র শিল্প যোগ করছে ৩০ %, উৎপাদনে যোগ করছে ৪৫% আর ৪০% যোগ করছে ভারতের রপ্তানিতে  ।এতো সোজা কিছু ক্ষুদ্র শিল্পের থেকে আসার পরেও ,কেন্দ্রের ভুল নীতির জন্য ক্ষুদ্র শিল্প আজ মার খাচ্ছে  ।
ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) এর অনুমান অনুযায়ী, ক্ষুদ্র শিল্পে  অর্থের  সম্ভাব্য চাহিদা ৩৭০  বিলিয়ন ডলার, কিন্তু বর্তমানে  অর্থ  সরবরাহ হচ্ছে ১৪০ বিলিয়ন ডলার, তার মানে ২৩০ বিলিয়ন ডলারের একটা ঘাটতি রয়ে যাচ্ছে বিজেপি সরকারের আমলে যার জন্য ১১ % জিডিপি ঘাটতি দেখা দিয়েছে ।
উল্লেখ্য ২০১৫ থেকে ২০১৬ অর্থ বর্ষে ব্যাঙ্ক লোন ক্ষুদ্র শিল্পকে দেওয়ার  ব্যাপারে ১.৬ % নেমে এসেছিলো ।ক্রেডিট বৃদ্ধি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছিলো  নভেম্বর ২০১৬ থেকে ফেব্রুয়ারী ২০১৭ অবধি যার জন্য ক্ষুদ্র শিল্প তো তলানিতে গিয়ে থেকে ছিলই সঙ্গে নোটবন্দির জন্য আরও খারাপ অবস্থায় পরিনিত হয় ক্ষুদ্র শিল্প ।

No comments:

Post a Comment

loading...