Tuesday, 14 August 2018

কেন্দ্রের কাছে "আচ্ছে দিন " যখন অধরা , সেটাই কন্যাশ্রী রূপে বাংলায় বাস্তবায়িত করলেন মমতা ।

ওয়েব ডেস্ক ১৪ই অগাস্ট ২০১৮ :কেন্দ্রে বসে নরেন্দ্র মোদির কাছে যখন "আচ্ছে দিন " মরীচিকার মতো , সেই "আচ্ছে দিন" বাস্তবে মেয়েদের জন্য রূপান্তরিত করে দেখিয়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় । নিজে যেরকম আবির্ভত হলেন কল্পতরু হিসেবে, তেমনি একগুচ্ছ সুযোগ সুবিধার অধিকারী হলেন বাংলার কন্যারা। যেরকম, বয়েসের উর্দ্ধসীমা বলে এখন থেকে আর কোনো বাধাই রইলনা , তেমনি বাংলার মেয়েরা কারিগরি শিক্ষার অধিকারী হয়ে যাতে চাকরি পায় সেটাও সুনিশ্চিন্ত করেন মুখ্যমন্ত্রী ,সঙ্গে অঙ্গীকার করলেন মেয়েদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় গড়ার ।

মঙ্গলবার কন্যাশ্রী দিবস উপলক্ষে নেতাজি ইন্ডোরে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেখানে রাজ্যের বিভিন্ন স্কুল থেকে ছাত্রীরা এসেছিল। মমতা তাদের সামনেই ঘোষণা করেন, এখন থেকে কন্যাশ্রী প্রকল্পের জন্য কোনও ঊর্ধ্বসীমা থাকছে না। সকলেই কন্যাশ্রী পাবে। সরকারি হিসাব মতো এই মুহূর্তে প্রায় ৫০ লাখ ছাত্রী কন্যাশ্রী প্রকল্পের আওতায় রয়েছে। এ ক্ষেত্রে ছাত্রীর পারিবারিক আয় বছরে দেড় লাখ টাকার কম হতে হয়। সেই ঊর্ধ্বসীমাই এ বার তুলে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এর ফলে আরও ৩ লাখ ছাত্রী কন্যাশ্রীর আওতায় আসবে। সে ক্ষেত্রে সরকারের প্রায় ২০০ কোটি টাকা অতিরিক্ত খরচ হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।মমতার দাবি, কন্যাশ্রী প্রকল্প চালু হওয়ার পর স্কুলছুট ছাত্রীর সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১১ শতাংশ কমেছে।নেতাজি ইন্ডোরের মঞ্চ থেকে এ দিন তিনি বলেন, ‘‘এই কন্যাশ্রীর মেয়েরা রাজ্যের গর্ব। দেশের গর্ব। বিশ্বের গর্ব। এরা সব কিছু জয় করতে পারে। এবং আরও জয় করবে।’’ এই প্রসঙ্গে তিনি মহিলা সংরক্ষণ বিলের কথাও তুলে ধরেন। মমতা বলেন, ‘‘মেয়েদের আমরা গুরুত্ব দিই। ভোট এলে মাঝেমাঝে ৩৩ শতাংশ মহিলা সংরক্ষণের কথা ওঠে। কিন্তু, কোনও আইন পাশ হওয়ার আগেই সংসদে আমাদের তৃণমূলের সাংসদদের মধ্যে কত শতাংশ মহিলা জানেন? ৩৫.২৯ শতাংশ। গোটা দেশে এক নম্বর। বিশ্বেও। সরকার, সংসদ নিয়ম করার আগেই আমরা প্রমাণ করে দিয়েছি। সারা ভারতে হিসাবটা ১২.২ শতাংশ হবে।’’
প্রসঙ্গত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্বপ্নের কন্যাশ্রী আন্তর্জাতিক খ্যাতিনামা ।উনিসেফএর থেকে পুরস্কারও পেয়েছে , সারা বিশ্ব যখন জানে আশা করা যায় এর থেকে কেন্দ্রও কিছুটা শিখবে , অন্তত বিদ্যজনেদের একাংশের তো এমনটাই আশা  ।



তথ্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার "আনন্দ বাজার পত্রিকা "

No comments:

Post a Comment

loading...