Tuesday, 14 August 2018

বিজেপির বাংলাভাষী মানুষদের ওপর নেতিবাচক মনোভাবের বিরুদ্ধে মুখ খুললেন মমতা

ওয়েব ডেস্ক ১৪ই অগাস্ট ২০১৮ :সন্দেহটা অনেকের মনেই দানা বেঁধেছিলো , কিন্তু প্রকাশ্যে মুখ খোলেননি কেউ , তবে স্বভাব সিদ্ধ ভাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যের কাছ থেকে এরকম উক্তি যেকোনো সময় আসতেই পারতো আর সেটাই এসেছে । তবে তার উক্তি যে অমূলক কিছু নয় সেটা বাংলা তথা ভারতের মানুষ মুখ না খুললেও মনের দিক থেকে তাদের সমর্থন শতকরা একশো  শতাংশ ।বিজেপিকে এক হাত নিয়ে তিনি প্রশ্ন করেছেন বাংলা ভাষা বা মানুষদের ওপর বিজেপির এতো নেতিবাচক মনোভাব কেন ?



তিনি বলেন, ‘‌বাংলা ভাষায় কথা বলা কোনও অপরাধ নয়। আমি বুঝে পাই না এই ভাষার প্রতি বিজেপি–‌র এত বিদ্বেষ কেন?‌ বাংলা ভাষা কিন্তু এশিয়াতে দ্বিতীয়। সভ্যতা, সংস্কৃতির পীঠস্থান এই বাংলাকে বাদ দিয়ে ভারত চলে না। এই বাংলা থেকেই স্বাধীনতার পর সমাজ সংস্কার হয়েছিল। বাংলায় বিভিন্ন ভাষাভাষী সম্প্রদায়ের বাস। আমি বিজেপি–‌র আচরণে সত্যিই মর্মাহত।’‌ বিজেপি সম্পর্কে মমতার অভিযোগ, একটা বিদ্বেষ প্রচার করা হচ্ছে। ওরা এত বাংলা বিরোধী কেন?‌ তিনি বলেন, ‘‌ইলিশ মাছ, জামদানি শাড়ি, আম, দই–‌মিষ্টি কি অনুপ্রবেশকারী,‌ নাকি শরণার্থী?‌’‌ তিনি বলেন, ‘‌বিজেপি কাউকে সম্মান করে না। উগ্রপন্থা চিন্তাধারা নিয়ে কাজ করে। বিভেদের রাজনীতি করে। বাংলা সবাইকে আপন করে নিতে জানে।’‌ প্রসঙ্গত অসমে নাগরিক পঞ্জি থেকে ৪০ লক্ষ্য ভারতীয়র নাম বাদ গেছে । এই প্রসঙ্গ টেনে মমতা বলেন  ‘‌এর মধ্যে ৭০ শতাংশ বাঙালি। ৩০ শতাংশ অসমিয়া। ভোটার তালিকা থেকে ৪০ লক্ষ নাম বাদ গেলে কত থাকে?‌ জন্মের সার্টিফিকেট চাইছে। আমার মা–‌বাবার সার্টিফিকেট চাওয়া হলে, আমি দিতে পারব না। মার জন্ম তারিখ জানি না। আমরা যদি সার্টিফিকেট না দিতে পারি, তাহলে গরিবরা কীভাবে পারবেন?‌’‌‌
উল্লেখ্য দেশ ভাগের সময় অনেক মানুষ তখনকার পূর্ব পাকিস্তান থেকে এক কাপড়ে ভারতের মাটিতে পা রেখেছিলো , নিজেদের ইজ্জত বাঁচাবার জন্য  , কেননা তখন কার পাকিস্তানী সৈন্য বাংলা ভাষী মানুষদের ওপর ওতথ্য অত্যাচার চালাচ্ছিল । এবার তারা যদি আবার উদ্বাস্তু হয় ,তাহলে এর থেকে গর্হিত কাজ আর অন্য কিছু হতে পারেনা ।



তথ্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার "আজকাল "

No comments:

Post a Comment

loading...