Monday, 17 September 2018

সারা দেশে ১৩৫১১ টি গ্রামে স্কুল নেই , তাতেও হেল দোল নেই বিজেপি সরকারের, সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড়

ওয়েব ডেস্ক ১৭ই সেপ্টেম্বর ২০১৮:বিজেপি, সরকারে আসবার আগে কত প্রতিশ্রুতিই না দিয়েছিল ,তার একটাও পূরণ করতে পেরেছে কি ?এনিয়ে যতদিন যাচ্ছে অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠছে দেশ ।প্রসঙ্গত , ভারতের গত লোকসভা নির্বাচনে এক বিরাট সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকারে এসেছিল ভারতীয় জনতা পার্টি ,প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন নরেন্দ্র মোদী। নির্বাচনের প্রচারে প্রতিশ্রুতি ছিল অনেক।গত পাঁচ বছরে সেই প্রতিশ্রুতি কার্যত কতটা সঠিক ভাবে সফল করা গেছে তা নিয়ে ২০১৯এর লোকসভা নির্বাচনের আগেই উঠছে অনেক প্রশ্ন। প্রসঙ্গত সারা দেশ জুড়ে আগুন লেগেছে পেট্রোপণ্যের দাম নিয়ে , অন্যদিকে জাতি সংরক্ষণে আইন পাস করায় দেশ জুড়ে উঠেছে প্রতিবাদ।


এদিকে নিয়মিত শিক্ষার ক্ষেত্রে সরকারিভাবে দেশের মানুষকে সচেতন করার উদ্যোগে দীর্ঘদিন দেখা গেছে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন।ঢাকঢোল পিটিয়ে প্রচার করা হচ্ছে  শিক্ষার ক্ষেত্র নিয়ে । কিন্তু কার্যত সবটাই বিশ বাঁও জলে , এমনই এক তথ্য উঠে এসেছে কেন্দ্রীয় গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রকের সাম্প্রতিকতম রিপোর্টে। এই রিপোর্টে উল্লেখ করা  হয়েছে এদেশের ১৩,৫১১টি গ্রামে এখনও নেই কোনও স্কুল ! স্কুল তৈরি না করতে পারার পেছনে একাধিক কারণ তুলে ধরেছেন গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রকের আধিকারিকরা।যদিও মিজোরাম একমাত্র রাজ্য যাতে প্রত্যেকটি গ্রামে রয়েছে স্কুল। প্রসঙ্গত উত্তর-পূর্ব রাজ্যগুলি এ বিষয়ে  অন্য রাজ্যের থেকে অনেকটা  এগিয়ে । যদিও শুধু মেঘালয় কিঞ্চিৎ ব্যতিক্রম । জানা যাচ্ছে উত্তর -পূর্ব রাজ্যগুলির মধ্যে  ৪১ টা গ্রামে নেই কোনও স্কুল। অন্যদিকে সারা দেশের মধ্যে স্কুলবিহীন গ্রামের সর্বোচ্চ সংখ্যা তালিকায় রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। আবার সারা দেশের মধ্যে গোয়ার কোনও তথ্যের উল্লেখ পাওয়া যায়নি এই রিপোর্টে। এই বিষয়ে  বিশেষজ্ঞরা দিয়েছেন নানা মতামত । ন্যাশনাল স্কুল অফ রুরাল ডেভেলপমেন্টের অধ্যাপক এইচ এস সোলাঙ্কি বলেন প্রাথমিকভাবে এই সব গ্রামের মানুষদের বদলাতে হবে ভাবনা চিন্তা , কারণ এইসব মানুষরা কৃষি এবংঅর্থ উপার্জনকারী চাকরি ও শিল্প বা কারখানা স্থাপিত করার দিকে বেশিভাবে প্রভাবিত ফলে বাচাদের স্কুল তৈরি বা শিক্ষার ক্ষেত্রে বড়োই উদাসীন এরা।অন্যদিকে সিম্বসিস ইনস্টিটিউট অফ বিসনেস ম্যানেজমেন্টের (গ্রামীণ উন্নয়ন) রাজেশ পান্ডা বলেন,সরকারি ভাবে এই উদ্যোগ এই মুহূর্তেই নেওয়া উচিত যাতে প্রত্যেক গ্রামে স্কুল করা যায় এবং একই সঙ্গে  বাচ্চাদের অভিভাবকদের স্কুলের প্রয়োজনীয়তা ও উপকারিতা বোঝানো যায় । তাহলেই এইসব গ্রামের বাচ্চাদের স্কুলে যাওয়ার উত্সাহ বাড়বে , একই সঙ্গে  শ্রী পান্ডা বলেন যদি এই রিপোর্ট সঠিক হয় তাহলে এটাতে কোনও  সন্দেহ নেই যে এটা অত্যন্ত বিপদের সম্ভাবনা তৈরি করছে সারা দেশ জুড়ে , ফলে সরকারি তরফে এই মুহূর্তে বিষয়টাকে গুরুত্ব দিয়ে প্রত্যেক গ্রামে স্কুল তৈরি করার উদ্যোগ নিতে হবে।বিদ্যজনেদের একাংশের কটাক্ষ , যারা  গ্রামে স্কুলের বন্দ্যোবস্ত করতে পারেনা তারা কিনা গর্বে নতুন ভারত ? এটাও কি সম্ভম ?

No comments:

Post a Comment

loading...