Sunday, 2 September 2018

তৃণমূল করার অপরাধে অন্তঃসত্ত্বাকে প্রচন্ড মার , হাসপাতালে মৃত্যু

ওয়েব ডেস্ক ২রা  সেপ্টেম্বর ,২০১৮ : সিপিএম কি তাদের পুরোনো ফর্মুলায় ফিরে  যাচ্ছে ?যেখানে ভাইয়ের সাথে ভাইয়ের যুদ্ধ , বাপের সাথে ছেলের যুদ্ধ ,যদি দুজন মধ্যে একজন অন্য রাজনৈতিক মতাদর্শে বিশ্বাসী হয়   ?যদি সেটা ভেবে থাকে তাহলে বড় ভুল করবে বলে মনে করেন বিদ্যজনেদের একাংশ । এটা ২০১৮ এটা আশির দশক নয় যখন বাড়ির একজন যদি সিপিএম না করতো তাহলে বাকিরা যারা সিপিএম করতো তারা সেই ব্যক্তিকে শত্রুর  চোখে দেখতো ।



 প্রসঙ্গত তৃণমূল করায় ‌বৌদি ও ভাইঝিকে খুন করার অভিযোগ উঠল মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জে। অভিযোগ সিপিএম কর্মী দেওরের বিরুদ্ধে। সিপিএম না করায় অন্তঃসত্ত্বা বৌদিকে বাঁশ দিয়ে পেটানো হয় বলে অভিযোগ। পেটে ও হাতে গুরুতর আঘাত লাগে তাঁর। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বৌদিকে মালদা মেডিক্যালে ভর্তি করা হলে সেখানেই এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন তিনি। কিন্তু একদিন পরেই সদ্যোজাতর মৃত্যু হয়। বাঁচানো যায়নি মাকেও। এই ঘটনায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ধুলিয়ান এলাকায়। মৃতের নাম সারিফা বিবি (‌৩০)‌। মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জ থানার লালপুরে তাঁর শ্বশুরবাড়ি। এলাকাটি ধুলিয়ান পুরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডে। স্বামী সেলিম শেখ পেশায় মজুর। নিতান্তই গরিব পরিবার। সেলিম তৃণমূল কর্মী। অভিযুক্ত ভাই ডালিম শেখ সিপিএম কর্মী। এর আগে পুরসভার ভোটে সিপিএম–‌‌কে হারিয়ে জয়ী হন তৃণমূলের শিবু মণ্ডল। সেই থেকেই দাদার ওপর রাগ ডালিমের। এর আগে দাদাকে খুন করবে বলে শাসানি দিত সে। কিছুদিন আগেও সিপিএম করার জন্য চাপ দিতে থাকে। দাদা সেলিম শেখ ভাইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন, ‘‌ভাই আমাদের সিপিএম করার জন্য চাপ দিচ্ছিল। আমি না মানায় আমাকে খুন করার হুমকি দিত। সেদিন আমাকে ও আমার স্ত্রীকে খুব মেরেছে।’‌ পুলিস জানিয়েছে, গত ২৬ আগস্টের ঘটনা। সেদিন অভিযুক্ত ভাই এসে ৯ মাসের অন্তঃসত্ত্বা বৌদিকে বাঁশ দিয়ে এলোপাথাড়ি মারতে থাকে। মাটিতে ফেলে বাঁশ দিয়ে তাঁর পেটে মারে। বৌদিকে বাঁচাতে দাদা ছুটে এলে তাঁকেও বেধড়ক পেটানো হয়। জখম সারিফা হাসপাতালে কন্যাসন্তান প্রসব করেন। সদ্যোজাত সঙ্কটজনক অবস্থায় ছিল বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা। শুক্রবার সকালে সদ্যোজাতের মৃত্যু হয়। ওইদিন‌ রাতে মৃত্যু হয় মায়ের। ধুলিয়ান পুরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূলের কাউন্সিলর শিবু মণ্ডল বলেন, ‘সিপিএম করার জন্য বিভিন্নভাবে চাপ দিচ্ছে সিপিএমের হার্মাদবাহিনী। নিজের আত্মীয়দেরও ছেড়ে কথা বলছে না।বিদ্যজনেদের একাংশের বক্তব্য , সিপিএম যদি কেরলের মতন অবস্থা করতে চাই তাহলে খুব ভুল করবে, উল্লেখ্য কেরলে সিপিএম বিরোধীদলের কর্মীদের শরীর ছিন্ন বিনয় করে খুন করে যাচ্ছিল ।


তথ্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার "আজকাল "

No comments:

Post a Comment

loading...