Friday, 21 September 2018

স্মৃতি ইরানির পর এবিভিপির অঙ্কিব বৈশ্যর নাম জড়াল জাল ডিগ্রীর ব্যাপারে, চারিদিকে ছি ছি

ওয়েব ডেস্ক  ২১শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ : সুশাসনের নামে গুন্ডামি তো আগেই চলছিল , বিজেপি শাসিত রাজ্যে , এর মধ্যে কিছু বেকার স্বঘোষিত শিক্ষিত ছেলেও শামিল ছিল । কে প্রেম করছে , কে গরু নিয়ে যাচ্ছে , এগুলো দেখাই কাজ কর্ম ছিল কিছু ব্যক্তির , যারা নিজেদের আন্টি রোমিও  বাহিনী , বা গোরক্ষক বাহিনীর সদস্য বলে দাবি করতো ।এতো অবধি ব্যাপারটা বুঝতে পারা যাচ্ছিলো ।কিন্তু রাজনীতি করতে গেলেও তো একটু পড়াশোনার দরকার পড়ে, সেটা না করেই কেউ যদি দাবি করে "আমি শিক্ষিত "তাহলে তার হাল অঙ্কিব বৈশ্যর মতোই হয় ।

প্রসঙ্গত দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে জয় পেয়েও স্বস্তিতে নেই সঙ্ঘ–প্রভাবিত ছাত্র সংগঠন এবিভিপি। সভাপতি পদে জয়ী এবিভিপি–‌র অঙ্কিব বৈশ্যর ডিগ্রি নাকি জাল!‌ এই অভিযোগ তুলে সরব হয়েছে বিরোধী কংগ্রেস প্রভাবিত ছাত্র সংগঠন এনএসইউআই। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনে গণনায় ইভিএম কারচুপির অভিযোগ তো ছিলই। এবার ‘‌জাল সার্টিফিকেট’‌ নিয়ে হাতেগরম ইস্যু পেয়ে গেল বিরোধীরা।সত্যিই কি অঙ্কিব তামিলনাড়ুর থিরুবাল্লুবার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্র‌্যাজুয়েশন করেছেন?‌ জানতে চেয়ে চিঠি লেখে এনএসইউআই। বিশ্ববিদ্যালয় লিখিত বিবৃতিতে জানায়, সার্টিফিকেটটি জাল। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ওই নামে কোনও ছাত্রকে পাশ সার্টিফিকেট দেওয়া হয়নি। এই লিখিত বিবৃতিকে হাতিয়ার করে রাজনৈতিক চাপান–‌‌উতোর শুরু হয়েছে। জেএনইউয়ের বাম ছাত্র নেতা কানহাইয়া কুমার টুইট করেছেন, ‘ভাজপা‌র এটা অধিকারে পরিণত হয়েছে, যত বড় নেতা তত বড় ভুয়ো ডিগ্রি!‌’‌ এনএসইউআই    দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছে ছাত্র সংগঠনটি।  বলা হয়েছে, জাল সার্টিফিকেট জমা করে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ে বুদ্ধিস্ট স্টাডিজে ভর্তি হয়েছেন অঙ্কিব। অঙ্কিব অবশ্য বলেছেন, ‘৬৬ শতাংশ নম্বর পেয়ে গ্র‌্যাজুয়েশনে পাশ করেছি। আমার সমস্ত আসল নথিপত্র দেখে তবেই বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ভর্তির সুযোগ দিয়েছেন।’ এবিভিপি–র মিডিয়া কনভেনর মণিকা চৌধুরি বলেছেন, ‘দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় অঙ্কিবের পুরো নথিপত্র খতিয়ে দেখছে। অপেক্ষায় রয়েছি।’‌‌

তথ্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার "আজকাল "

No comments:

Post a Comment

loading...