Thursday, 20 September 2018

নতুন চাকরির ব্যবস্থা না করে বিধায়কদের ৪৫ হাজার টাকা করে বাড়াল বিজেপি সরকার গুজরাটে

ওয়েব ডেস্ক  ২০শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ : যে দেশে লক্ষ লক্ষ বেকার যুবক ঘুরে বেড়াচ্ছে চাকরির সন্ধানে , এবং নরেন্দ্রমোদী দিল্লির মসনদে বসবার আগে প্রতিশ্রুতি দিয়েও চাকরি দিতে পারেননি সেই নরেন্দ্র মোদীর এক সময়কার রাজ্য গুজরাটে বিধায়কদের বেতন বাড়ল ৪৫ হাজার টাকা ।এমনই চাঞ্চল্যকর খবর সামনে এসেছে ,যার জন্য নিন্দার ঝড় বইছে সোশ্যাল মিডিয়ায় ।বৃহস্পতিবারই গুজরাট বিধানসভায় বিধায়কদের বেতন সংক্রান্ত বিল পাশ হয়।যদিও এ নিয়ে বিরোধীদের তির্যক মন্তব্যের মুখে পড়তে হয়েছে গুজরাট সরকারকে।

                           

বৃহস্পতিবার বিধায়কদের বেতন নিয়ে একটি নতুন বিল পাস করা হয়েছে গুজরাত বিধানসভায়। সেখানেই বিধায়ক–মন্ত্রীদের বেতন এবং অন্যান্য ভাতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। খুব স্বাভাবিকভাবেই এই বৃদ্ধিতে চাপ বেড়েছে সরকারি কোষাগারের। গুজরাতের বিধায়কেরা বর্তমানে প্রতি মাসে ৭০ হাজার ৭২৭ টাকা বেতন পান। নতুন বিল অনুসারে তাঁদের বেতন বেড়ে দাঁড়াচ্ছে ১ লক্ষ ১৬ হাজার ৩১৬ টাকা। অর্থাৎ বেতন বাড়ল ৪৫ হাজার ৫৮৯ টাকা। এছাড়াও বৃদ্ধি পেয়েছে বিধায়কদের ভাতার পরিমাণ। তাঁদের দৈনিক ভাতা ২০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে এক হাজার টাকা করা হয়েছে। মাসিক ডাক ভাতার লস অফ পে ছিল এক হাজার টাকা। তা বেড়ে হয়েছে ১০ হাজার টাকা।ওই রাজ্যের মন্ত্রীদের বেতনও বেড়েছে একই হারে। আগে গুজরাতের মন্ত্রীরা প্রতি মাসে ৮৬ হাজার টাকা বেতন পেতেন। তাঁদের বর্ধিত বেতন হয়েছে এক লক্ষ ৩২ হাজার টাকা করে। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, এই বর্ধিত বেতন ধার্য হচ্ছে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসের ২২ তারিখ থেকে। যার অর্থ, পরবর্তী সময়ের টাকা গুজরাতের মন্ত্রী এবং বিধায়কেরা এরিয়ার হিসেবে পেয়ে যাবেন। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে গুজরাত বিধানসভায় ১৮২ জন নির্বাচিত সদস্য ছিলেন। নতুন বেতন এবং ভাতার কাঠামো অনুসারে প্রতি মাসে সরকারি কোষাগার থেকে খরচ হবে ৭২ লক্ষ টাকা। বার্ষিক হিসেবে যার পরিমাণ প্রায় ১০ কোটি টাকা।বিদ্যজনেদের একাংশের মন্তব্য, এই ভাবে ৪৫ হাজার টাকা না বাড়িয়ে , যদি সেই ৪৫০০০ টাকা দিয়ে নতুন কর্মচারী রাখতো সরকার তাহলে অনায়াসেই বেকার সমস্যায় কিছুটা হলেও কমতো ।


তথ্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার "আজকাল "

No comments:

Post a Comment

loading...