Saturday, 27 October 2018

এল.পি.জি গ্যাসের ডিস্ট্রিবিউটরশীপের বিজ্ঞাপন বেরোনোর আগেই দুর্নীতির ছক তৈরী ,পুড়ুন

ওয়েব ডেস্ক ২৭শে অক্টোবর ২০১৮: এল পি জি দুর্নীতির তদন্ত করতে নেমে চাঞ্চল্যকর তথ্য হাতে পেল লালবাজারের তদন্তকারী অফিসারেরা ।বিজেপি নেতা রণজিৎ মজুমদারকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা গেছে , সংবাদ মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেওয়ার অনেক আগেই এই দুর্নীতিনির ছক বোনা হয় ।ঘটনাটি এই রকম ,বিভিন্ন রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার এলপিজি ডিস্ট্রিবিউটরশীপ নেওয়ার জন্য কেন্দ্রের পেট্রোলিয়াম মন্ত্রক থেকে সরকারি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। কিন্তু তদন্তকারী অফিসারের দাবি, সরকারিভাবে বিজ্ঞপ্তি জারির পনেরো দিন আগেই ধৃত বিজেপি নেতা একটি গোপন বৈঠক করেছিলেন। সেখানেই তিনি প্রত্যেক জেলার বিজেপি সভাপতিকে একটি ই-মেল করেন।

 ই-মেলে গ্রামে গ্রামে ডিস্ট্রিবিউটরশীপ নিতে ইচ্ছুক বিজেপি কর্মীদের নাম পাঠাতে বলা হয়। এই ই-মেলে পাঠানো নাম থেকেই এলপিজি ডিস্ট্রিবিউটরদের নামের তালিকা তৈরী করা হয়। এর জন্য প্রত্যেকের থেকে প্রায় ৪ লক্ষ থেকে ৭ লক্ষ টাকা নিয়েছেন ধৃত ওই বিজেপি নেতা বলেই পুলিশ সূত্রের খবর।পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত নেতাকে জেরা করে ওই ই-মেল উদ্ধার করা হয়েছে। এই ঘটনায় রণজিৎ মজুমদার ছাড়াও আরও কয়েকটি জেলার বিজেপি সভাপতিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইচ্ছুক আরও যে সমস্ত কর্মীরা টাকা দেওয়া সত্ত্বেও ডিস্ট্রবিউটরশীপ পায়নি, সেই প্রতারিত বিজেপি কর্মীদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ।দুর্নীতির এই ঘটনা কার্যত স্বীকার করে নিয়ে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, "কেউ যদি কারও নাম সুপারিশ করে থাকে তাতে আপত্তির কী আছে?" বিজ্ঞাপন বেরোনোর আগে বৈঠক সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, "দলীয় বৈঠক হয়নি। কোনো ব্যক্তি বৈঠক করে থাকতে পারেন। যে দল যখন সরকারে থাকে, তারা তখন এরকম করে।" বিদ্যজনেদের একাংশের অভিমত  , দিলীপ ঘোষ কি করে এই কথা বলতে পারেন যে , যে যখন সরকারে আসে তথন এই কর্ম ঘটনা হয়ে থাকে । তার মানে কি উনি এই দুর্নীতিটাকে মেনে নিচ্ছেন ? বিদ্যজনেদের একাংশ আরো দাবি করেছে , দিলীপ ঘোষের পরিষ্কার করা উচিত এই ব্যাপারে উনি কি অবস্থান গ্রহণ করছেন । 

No comments:

Post a Comment

loading...