Friday, 30 November 2018

বিজেপির নিয়ন্ত্রণে নেই কিছুই , আবার পৃথক রাজ্যের দাবি জানাল তাদের শরিক দল আই.পি.এফ.টি

ওয়েব ডেস্ক ৩০শে নভেম্বর, ২০১৮:  বিজেপির সময়টা  একদমই ভালো যাচ্ছেনা , যদি যেতই তাহলে তারা যাদের সাথে গাঁটছড়া বেঁধে ত্রিপুরাতে সরকারে এসেছিল তারা এই ভাবে বেঁকে বসতনা ।তারা চিরকালই পৃথক রাজ্যের দাবি নিয়ে সরব ছিল এবার লোকসভা নির্বাচন যখন দৌড়গোড়ায় তখন বৃহস্পতিবার সন্ধেয় আগরতলা প্রেস ক্লাবে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ৫ ডিসেম্বর ১২ ঘণ্টার এডিসি বন্‌ধের ডাক ঘোষণা করলেন  দলের সহ–সভাপতি অনন্ত দেববর্মা ও সহকারী সাধারণ সম্পাদক মঙ্গল দেববর্মা।সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে ত্রিপুরায় পৃথক রাজ্য ‘‌তুইপ্রাল্যান্ড’‌ চেয়ে দিল্লির যন্তরমন্তরে গণ অবস্থান ও র‌্যালি করা হবে।


পরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের কাছে দাবি পেশ করা হবে। দিল্লির কর্মসূচিতে ত্রিপুরা থেকে দলের অন্তত এক হাজার কর্মী অংশ নেবেন বলে জানানো হয়েছে। আইপিএফটি–র সহকারী সাধারণ সম্পাদক মঙ্গল দেববর্মা বলেন, ৫ ডিসেম্বর এডিসি এলাকায় ১২ ঘণ্টা বন্‌ধের পেছনে আরও ২টি দাবি রয়েছে। একটি হল, কেন্দ্রের নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ত্রিপুরায় যাতে কার্যকর করা না হয়। অন্যটি হল, এডিসি–তে বিভিন্ন ভিলেজ কমিটিতে প্রায় ১৫০০ শূন্যপদ পূরণে অবিলম্বে যাতে উপনির্বাচন করা হয়। সর্বোপরি রয়েছে, পৃথক রাজ্য ‘‌তুইপ্রাল্যান্ড’‌–এর দাবি। তবে রেল পরিষেবা বন্‌ধের আওতার বাইরে থাকবে বলে জানানো হয়েছে। এদিকে, ১০ ডিসেম্বর রাজ্যের অপর জনজাতিভিত্তিক দল আইএনপিটি–ও নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল প্রত্যাহারের দাবিতে ত্রিপুরায় ১২ ঘণ্টা জাতীয় সড়ক ও রেল অবরোধ করে রাখার ঘোষণা করেছে। ইতিপূর্বে ত্রিপুরায় জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকরণ (এনআরসি) কার্যকরের দাবিকে আইপিএফটি সমর্থন করে বলে জানিয়েছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক তথা রাজ্যের উপজাতি কল্যাণমন্ত্রী মেবারকুমার জমাতিয়া। এদিন এ প্রসঙ্গে আইপিএফটি নেতাদের জিজ্ঞাসা করা হলে তাঁরা জানান, রাজ্যে এনআরসি কার্যকর করা তাদের দাবি নয়। দলের মূল দাবি একটাই এবং তা হল, পৃথক রাজ্য ‘‌তুইপ্রাল্যান্ড’‌। আর এই দাবিকে সামনে রেখেই ৫ ডিসেম্বর এডিসি–তে ১২ ঘণ্টার বন্‌ধ এবং ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে দিল্লি অভিযান করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিদ্যজনেদের একাংশের অভিমত তাহলে কিসের প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিজেপি তার শরিক দলের সমর্থন নিয়ে ত্রিপুরা দখল করেছিল সেটা এবার সামনে আসা উচিত ।যদি সব কিছু মিটেই যেত তাহলে আইপিএফটি কখনই আবার পৃথক রাজ্যের জন্য আন্দোলনে নামতনা ।

No comments:

Post a Comment

loading...