Thursday, 27 December 2018

আসন্ন লোকসভা ভোটে বিজেপি বেকায়দায় , না হলে মোদির সমালোচককে উত্তর প্রদেশের দায়িত্ব দেওয়া হয় !

ওয়েব ডেস্ক ২৭শে ডিসেম্বর ২০১৮: দেওয়ালে পীঠ থেকে গেলে , হাতের সামনে যাকে
 পাওয়া যায় তাকেই আঁকড়ে ধরে বাঁচার চেষ্টা করে মানুষ । বিজেপির অবস্থাটা কি অনেকটা সেইরকম ? গতি  প্রকৃতির ইঙ্গিত অনেকটা সেইরকমই । না হলে যাদের একবার বাত্য করে ছিলেন নরেন্দ্র মোদী তাদের হাতেই আবার দায়িত্ব দেবেন কেন ? প্রসঙ্গত ২০০৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে নিজের মন্ত্রিসভা থেকে গোর্ধন ঝাড়াফিয়াকে ছেঁটে ফেলেছিলেন গুজরাটের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সঙ্গে এও বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, বিধানসভার টিকিটও দেওয়া হবে না গোর্ধনকে। আর দেরি করেননি বিশ্ব হিন্দু পরিষদের নেতা প্রবীন তোগাড়িয়ার অন্যতম ঘনিষ্ট এই নেতা। নিজের দল গড়ে সে বার বিধানসভা নির্বাচনে লড়েছিলেন গোর্ধন। প্রচারের সময় মোদির বিরুদ্ধে অনেক গালমন্দ করেছিলেন তিনি। সেই বিতর্কিত গোর্ধন ঝাড়াফিয়াকেই নতুনভাবে দলে ফেরালো বিজেপি। উত্তরপ্রদেশে বিজেপির দায়িত্ব পেলেন তিনি। ২০০৭ সালে নতুন দল গড়লেও, নির্বাচনে রাজনৈতিক সাফল্য পাননি গোর্ধন। ২০১২ সালেও আর এক মোদি বিরোধী কেশুভাই প্যাটেলের সঙ্গে হাত মিলিয়ে নির্বাচনে লড়েছিলেন তিনি। কিন্তু সে বারেও সাফল্য পাননি। শেষমেশ রণে ভঙ্গ দিয়ে ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে ফের বিজেপিতে ফিরে আসেন গোর্ধন ঝাড়াফিয়া। ২০১৭ সালের গুজরাট বিধানসভা ভোটে বিজেপির হয়ে প্রচার করেন গোর্ধন। তাঁর হাতেই এ বার উত্তরপ্রদেশের চাবি তুলে দিলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ। আগামী বছরের ভোটের আর ছ’মাসও বাকি নেই। তার আগে ১৭ টি রাজ্যে পর্যবেক্ষক বদলেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটের সময় রাজনাথ সিং ছিলেন বিজেপির সভাপতি। সেই সময় মোদির পরামর্শে উত্তরপ্রদেশের পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব অমিত শাহকে দিয়েছিলেন রাজনাথ সিং। এ বার অমিত শাহ বিজেপি সভাপতি। আর উত্তরপ্রদেশের পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব দেওয়া হলো গোর্ধন ঝাড়াফিয়াকে।অনুমান করা কঠিন নয় ,গর্ধনের হাত ধরেই উত্তরপ্রদেশের সিংহ ভাগ আসনে থাবা বসাতে চাইছে বিজেপি । আর নরেন্দ্রমোদির যে পূর্ণ সায় আছে এটিও দিনের আলোর মতো পরিষ্কার ।তবে একটা প্রশ্ন রাজনৈতিক মহলে ঘোরাফেরা করছে তাহলে বিহারি বাবুকেও (শত্রুঘন সিনহা ) কি ডাকবেন মোদির বিজেপি ? সেটা সময়ই বলবে । তবে ইটা ঠিক এই লোকসভা নির্বাচন জেতার জন্য বিজেপিজে মরিয়া সেটা বোঝাই যাচ্ছে না হলে মোদির সমালোচক বলে পরিচিত কাউকে দায়িত্ব দেওয়া , ভাবাই যায় না !

No comments:

Post a Comment

loading...