Sunday, 23 December 2018

‘বাংলা ফসল বিমা যোজনা’-র খাতে টাকা জমা করল রাজ্য সরকার , মোদীজি শুনতে পারছেন ?

ওয়েব ডেস্ক ২৩শে ডিসেম্বর ২০১৮: নরেন্দ্র মোদির সরকার যেটা প্রতিশ্রুতি দেন , মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সেই কাজটি করে দেখান ।এখন এই কথাটি সারা বাংলার চাউর হচ্ছে ।এযাবৎ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার গরিব মানুষের জন্য যা করেছে তা পূর্বের সরকার স্বপ্নেও ভাবতে পারেনি ।প্রসঙ্গত শুক্রবার সকাল থেকে জেলার দ্বীপাঞ্চল ঘোড়াবেড়িয়া-চিতনানের দক্ষিণ পাড়া, মাইতিপাড়া, দামুপাড়া, মুসলিম পাড়া, মীরপাড়া-সহ বেশ কয়েকটি এলাকার মানুষের ফোনে ব্যাংক থেকে ম্যাসেজ আসতে শুরু করে।

এই এলাকার দুটি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের প্রায় ২৫০ জন গ্রাহক দেখেন যে তাঁদের অ‍্যাকাউন্টে হঠাৎ করে বেশ কিছু টাকা এসে গিয়েছে। ব্যাংক ধর্মঘট থাকার কারণে তাঁরা বিষয়টির সত্যতা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারেননি। প্রথমে বিষয়টা গুজব বলে উড়িয়ে দিলেও পরে গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্র বা সাইবার ক্যাফেতে গিয়ে জানা যায় যে সত্যি সত্যিই তাঁদের ব্যাংক অ‍্যাকাউন্টে টাকা এসেছে। কিন্তু কোথা থেকে এত টাকা এল তা নিয়ে ধন্দে পড়েন সকলেই। ওই এলাকায় এটিএম না থাকার কারণে অনেকেই অন্যত্র গিয়ে এটিএম থেকে টাকা তুলে নিতেও শুরু করেন। অনেকে আবার গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্র থেকে টাকা তোলেন।আবার টাকা না পাওয়া মানুষেরা ভিড় জমাতে শুরু করেন স্থানীয় পঞ্চায়েত অফিসে। এই বিষয়ে তাঁরা কিছুই জানেন না বলে পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষ পরিষ্কার জানিয়ে দেয়। এই ঘটনা নিয়ে যখন সারা এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে ঠিক তখনই এই টাকা রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ‘বাংলা ফসল বিমা যোজনা’-র খাতে চাষীদের দেওয়া হয়েছে বলে আমতা-২ পঞ্চায়েত সমিতির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়। সমিতির সভাপতি সুকান্ত পাল জানান, দু’টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় মোট ১ কোটি ৮৫ লক্ষ টাকা কৃষকদের অ‍্যাকাউন্টে দেওয়া হয়েছে বলে এখনও পর্যন্ত বেসরকারিভাবে জানা গিয়েছে। তবে সোমবার ব্যাংক খুললে পুরো ছবিটা আরও পরিষ্কার হয়ে যাবে বলে তিনি জানান। তৃণমূল কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি বাপি মল্লিক জানান, বিষয়টি তিনি বাজারে গিয়ে লোকমুখে শুনতে পান। স্থানীয় গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্রে গিয়ে তিনি বিষয়টির সত্যতা জানতে পারেন। তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন যে, প্রায় ২৫০ জন মানুষের অ‌্যাকাউন্টে হাজার হাজার টাকা জমা পড়েছে। যদিও তিনি এ বিষয়ে ব্যাংকের ম্যানেজারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে ম্যানেজার জানান এ বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। ঘটনাটি সম্পর্কে স্থানীয় ব্লক উন্নয়ন আধিকারিক-সহ প্রশাসনের বিভিন্ন জায়গায় জানানো হয়। আগামী দিনে কৃষকদের জন্য আরো ভালো কিছু যে অপেক্ষা করছে এটা তারই আগাম সংকেত নয় তো ? যদি তাই হয় তাহলে তো সোনায় সোহাগা ।

No comments:

Post a Comment

loading...