Saturday, 8 December 2018

অসমে তৃণমূল ভালো ফল করলে অবাক হওয়ার কিছুই নেই

ওয়েব ডেস্ক ৮ই ডিসেম্বর ২০১৮  : তৃণমূল আসার পর বাংলা এখন উন্নতির পথে , সারা ভারতের  মানচিন্ত্রে বাংলার এখন একটা উন্নতি শীল রাজ্য । এটা অবশ্যই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পদে বসার পর । অসমের জনতা সেটা ভালো ভাবেই জানেন , সূত্রের খবর অনুসারে  সর্বসম্মত ভাবে তারা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওপরেই আস্থা রাখতে চান । কলকাতা থেকে অনেক নেতা মন্ত্রী অসমে গিয়ে ব্যাপক প্রচার চালিয়েছে এবার , এবং তাতে অভূত পূর্ব সারাও পাওয়া গেছে ।তাই আগামী দিনে তৃণমূল যদি অসমে সরকার গঠন করে তাহলে অবাক হওয়ার কিছুই থাকবেনা বলে মনে করেন বিদ্যজনেদের একাংশ । শুক্রবার অসমে পঞ্চায়েত নির্বাচনে প্রচার শেষ হল।



জেলা পরিষদ–‌সহ পঞ্চায়েত সমিতি, পঞ্চায়েত সদস্য, আঞ্চলিক পঞ্চায়েত মিলিয়ে তৃণমূল মোট ১৭৯ আসনে প্রার্থী দিয়েছে। ইতিমধ্যে বাংলা থেকে মন্ত্রী ও সাংসদরা অসমে গিয়ে প্রচার করেছেন। দু’‌দফার মধ্যে ৫ ডিসেম্বর একদফা ভোট হয়েছে। ৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় দফায় ভোট। প্রচার করে বাংলার নেতারা খুশি। বিভিন্ন সভায় জনসমাগম দেখে তারা জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। প্রচারের শেষ দিনে অসম তৃণমূল বিভিন্ন জেলায় বাইক র‌্যালি করে। প্রার্থীদের সমর্থনে দলের চেয়ারম্যান গোপীনাথ দাস সাধারণ সম্পাদক অন্তোষ চৌধুরি ও প্রসেনজিৎ চৌধুরি বিভিন্ন জেলা ঘুরে প্রচার সেরেছেন। ৯টি জেলায় প্রার্থী দেওয়া হয়েছে। জেলাগুলি হল, কামরূপ, বরপেটা, গোয়ালপাড়া, ধুবড়ি, সোন্তিপুর, নলবাড়ি, হোজাই, কাছাড় ও হাইলাকান্দি। প্রচারের শেষে গোপীনাথ দাস জানিয়েছেন, ‘‌বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি অসমে প্রভাব তৈরি করতে পেরেছেন। নির্বাচনে প্রচার করতে গিয়ে আমরা দেখেছি, অনেকেই ওঁনার নাম বলছিলেন। নাগরিকপঞ্জি নিয়ে তিনি যেভাবে প্রতিবাদ করেছেন, তাতে অসমে বাঙালিদের মধ্যে তাঁর প্রতি বিশ্বাস তৈরি হয়েছে। শুধু তাই নয়, তিনি বাংলার নেতা ও মন্ত্রীদের পাঠিয়েছেন। এর ফলে কর্মীদের মধ্যে উৎসাহ–‌উদ্দীপনা তৈরি হয়েছে। প্রার্থীরাও মনোবল পেয়েছেন।’‌ গোপীনাথবাবু বিজেপিকে আক্রমণ করে বলেন, ‘‌বিজেপি ও কংগ্রেস প্রচুর টাকা ছড়িয়েছে। আমরা তার তুলনায় কিছুই করতে পারিনি। বাংলার নেত্রীর ওপর ভরসা করেই নির্বাচনে নেমেছি। জয় আমাদের হবেই। এই নির্বাচনে জিততে পারলে ২০১৯–‌এ লোকসভা নির্বাচনে লড়াই করার মনোবল আরও বাড়বে।’‌ বিদ্যজনেদের একাংশের অভিমত অসমের মানুষ বুঝতে পেরেছে , বিজেপি দিয়ে রাজ্যের উন্নতি সম্ভব নয় , তার কারণ , বিজেপি যতটানা উন্নতি নিয়ে চিন্তাভাবনা করে তার থেকে বেশি ভাবে  ধর্ম নিয়ে ।অসমের মানুষের চাই উন্নতি এবং সেটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই একমাত্র দিতে পারবে ।

No comments:

Post a Comment

loading...