Thursday, 31 January 2019

রাষ্ট্রপতিকে দিয়ে নিজেদের গুনকীর্তন গাইয়ে কি বিজেপি ২০১৯এর নির্বাচনের বৈতরণী পার করতে পারবে ? রেখে গেল অনেক প্রশ্ন

ওয়েব ডেস্ক ৩১শে জানুয়ারি ২০১৯: বিজেপির কি এতই  খারাপ দিন এসেছে ,যে নিজেদের ঢাক পেটানোর জন্য রাষ্ট্রপতির ভাষণের শরণাপন্ন হতে হচ্ছে ?আজ বাজেট অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি যে ভাবে বর্তমান বিজেপি সরকারের প্রশংসা করলেন , ভারতের ইতিহাসে এরকম নজির নেই । তিনি লড়াকু ও অতি-আধুনিক এই যুদ্ধবিমানের প্রয়োজনীয়তা কথা  উল্লেখ করেন ।
রাষ্ট্রপতির ভাষণে রাফালের প্রশংসা উঠে আসতেই করতালিতে ভেসে যায়  সংসদের সেন্ট্রাল হল। প্রথামাফিক বাজেট অধিবেশনের শুরুতে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওই অনুষ্ঠানে তখন সংসদে হাজির শাসক ও বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলির সমস্ত সাংসদ।স্বাভাবিকভাবেই রাফালের প্রশংসা শুনে টেবিল-চাপড়ে সমর্থন জানালেন বিজেপি ও এনডিএ-র সাংসদরা। প্রায় তিরিশ সেকেন্ড ধরে চলল ওই অভিভাদন। কিছুক্ষণের জন্য হলেও ভাষণ থামালেন রাষ্ট্রপতি। তখন বিরোধী সাংসদরা একেবারে নিস্তব্ধ।এদিন রাষ্ট্রপতির ভাষণে কিছুটা  অপ্রত্যাশিতভাবে উঠে এসেছে সরকারের একাধিক উন্নয়নমূলক প্রকল্পের কথা। নতুন ভারত গড়ার সংকল্পের কথা। উজ্জ্বলা যোজনা, আয়ুষ্মান ভারত, জেনারেল ক্যাটগরির গরিবদের জন্য সংরক্ষণ, জিএসটি, মেক ইন ইন্ডিয়া-সহ একাধিক প্রকল্পের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরেন তিনি।কালো টাকার বিরুদ্ধে মোদী সরকারের লড়াইয়ের কথা, নোটবাতিলের সাফল্য, ভুয়ো সংস্থা রুখতে, আয়কর দুর্নীতি রুখতে পদক্ষেপও এদিনের ভাষণে উল্লেখ করেছেন রাষ্ট্রপতি।রাষ্ট্রপতি ভাষণে যেটা উঠে আসেনি , সেটা হল নোটবন্দির জন্য বেকারত্ব বেড়ে যাওয়া , যেটা উঠে আসেনি তা হল আসামে বাংলাভাষী মানুষ যারা কয়েক পুরুষ ধরে বসবাস করছেন আসামে তাদের ডিটেনশন ক্যাম্পে ঢুকিয়ে দেওয়া , যেটা উঠে আসেনি বক্তব্যে তা হল একাধিক মোবলিংচিঙের ঘটনা , যেটা উঠে আসেনি সেটা হল আন্তর্জাতিক সমীক্ষায় নারী বসবাসের অযোগ্য জায়গা হিসেবে ভারতকে চিহ্নিত করা । এতো কিছুর মধ্যেও রামনাথ কবিন্ড এর মতো লোক কি করে বিজেপি সরকারের গুনকীর্তন গাইলেন সেটা বোঝা অসম্ভব । আর আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির খারাপ অবস্থা শীর্ষ স্থানীয় নেতারা বুঝতে পেরেই কি রাষ্ট্রপতিকে দিয়ে এতো গুলো কথা বলানো  হল ? প্রশ্ন কিন্তু উঠছে ।

No comments:

Post a Comment

loading...