Friday, 4 January 2019

"রাম ভগবান ছিলেন না, ছিলেন একজন সাধারণ মানুষ " এই কথা বইতে লিখেই শ্রীঘরে ঠাঁই কন্নড় লেখকের

ওয়েব ডেস্ক ৪ঠা  জানুয়ারি ২০১৯: ভারতবর্ষের মত  গণতন্ত্র দেশে, ফ্রিডম অফ স্পিচ কথাটা আছে , যার মানে প্রত্যেকেরই  নিজের অভিমত পেশ করার অনুমতি আছে কিন্তু তার মানে তো  এই নয় কেউ ভগবান হনুমানকে দলিত বলবেন ?কেউ বলবেন মুসলমান,আর কেউ বলবেন জাট ? এই নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রচন্ড ক্ষোভ হওয়াতে সেগুলি বন্ধ হলেও কন্নড় এক লেখক উদয় হলেন তার বিতর্কিত বই নিয়ে যা সাধারণ মানুষের রক্ত চাপ বৃদ্ধি করতে যথেষ্ট । “রাম কোনো ভগবান ছিলেন না,তাঁর জীবনযাত্রা ছিল আর পাঁচজন সাধারন মানুষের মত।”

কর্নাটকের লেখক কে এস ভাগবান কানাড়া ভাষায় তাঁর লেখা ‘রামা মন্দির একে বেদা’ অর্থাৎ ‘কেন রাম মন্দিরের দরকার নেই?’- বইটিতে এ কথা বলেন। বইটিতে লেখক দাবি করেছেন, রাম এক জন সাধারণ মানুষ। সাধারণ মানুষের মতোই দুর্বল, কষ্ট পেয়েছেন। লেখকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, তিনি তাঁর বইতে রামকে অপমান করেছেন।পুলিশ জানিয়েছে, এই অপরাধে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ড বিধির ২৯৫এ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।মামলা করা হয়েছে হিন্দু জাগরণ বৈদিক মাইসোর-এর পক্ষ থেকে।পুলিশ জানিয়েছে, বইতে লেখক খুব খারাপ ভাবে রামকে বর্ণনা করেছেন এই অভিযোগে প্রতিবাদে নামেন দক্ষিণপন্থীরা। তাঁরা শুক্রবার বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছিলেন।বইতে গীতার ভুল ব্যখ্যা করা হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। লেখক অবশ্য আত্মপক্ষ সমর্থনে বলেছেন এই সবই বাল্মীকি রামায়ণে আছে।সক্রিয় হিন্দুত্ববাদীরা লেখকের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ করেন। পাশাপাশি কর্নাটক রাজ্য বিজেপির নেতা-কর্মীরা মুখ্যমন্ত্রীর নজর কাড়ার চেষ্টা করছেন।এই বিষয়ে কর্ণাটক রাজ্য বিজেপির প্রবীণ সদস্য তথা বিধায়ক এস সুরেশ কুমার রাজ্য সরকারের দিকে তোপ দেগেছেন। বলেছেন, সরকারের দু’টি করণীয়র মধ্যে একটি বাছতে হবে। হয় ভগবানের কারাবাসের সাজা দিতে হবে, অথবা মানসিক হাসপাতালে পাঠাতে হবে। ভুল কিছুই বলেননি , আসলে কিছু  লেখক নিজেদের বইয়ের "বেস্ট সেলার " তকমা পাওয়ার জন্য সস্তায় প্রচার পেতে চান ।তাদেরই মধ্যে একজন হয়তো কে এস ভাগবান ।

No comments:

Post a Comment

loading...