Friday, 11 January 2019

সিপিএমের মধ্যে আর কিছুই নেই , তাই দলে দলে তৃণমূলে ঢোকার হিড়িক শুভেন্দুর নের্তৃত্বে

ওয়েব ডেস্ক ১১ই  জানুয়ারি ২০১৯: বাংলার সেইসব মানুষ যারা সিপিএম পার্টির সক্রিয় সমর্থক ছিলেন তারা এখন বুঝতে পেরেছেন যে সিপিএমের মধ্যে অবশিষ্ট কিছুই নেই । মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো বিরোধী ব্যক্তিত্ব না থাকার দরুন বামফ্রন্ট যেই রাজত্বটা করে গেছে বাংলায় এবং কমরেডরা  যেই সময়টা দিয়েছেন পার্টিবাজিতে সেটা নিজেদের সময় নষ্ট ছাড়া আর কিছুই নয় । কিন্তু তবুও বাধ্যহয়েই সিপিএম পার্টিতে ইনকিলাব জিন্দাবাদের অংশ  হতে হয়েছিল ।  কিন্তু কেন ? কারণ ইতিহাস বলছে  সোভিয়েত উনিয়নে, কমিউনিস্ট শাসনকালে যত লোক মারা গিয়েছিল, দ্বিতীয় যুদ্ধেও ততো লোক মারা যায়নি , আর এটা ঘটে ছিল নিঃশব্দে ।

হয়তো এর জন্যই বাংলার সাধারণ মানুষ যারা সিপিএম করতো তারা বিদ্রোহের পথে যেতে পারেনি । কিন্তু এবার বাংলার কমিউনিস্ট ধ্যান ধারণাই বিশ্বাসী মানুষেরা বুঝতে পেরেছেন বাংলার উন্নতি একমাত্র মমতাই করতে পারেন, তাই এবার  দলে দলে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার হিড়িক পরল । এবার মালদহের মালতিপুরের প্রাক্তন আরএসপি বিধায়ক আব্দুর রহিম বক্সী আজ শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে তৃণমূলে যোগদান করতে চলেছেন, এমনটাই সূত্র মারফত খবর মিলেছে।প্রসঙ্গত, ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে তোলা এই ছবিতে আরএসপির এই প্রাক্তন বিধায়ক দাপুটে তৃণমূল নেতার সঙ্গে একটি বৈঠকও করেছিলেন, এমনকি সেই দাপুটে নেতার সঙ্গে একটি ছবি ভাইরাল হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। তারপর থেকেই আব্দুর রহিম বক্সীর তৃনমূলে যোগদানের প্রসঙ্গে জল্পনার সৃষ্টি হয়। এই প্রসঙ্গে মালদহ জেলা তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি দুলাল সরকার জানিয়েছিলেন, এখনও যারা অন্য দলে আছেন কিন্তু মানুষের জন্য কাজ করতে চান তাঁদের অনেকেই আমাদের দলে আসতে চাইছেন। আমি নির্দিষ্টভাবে কারও নাম করছি না। তবে এটুকু বলতে পারি মালতিপুরের প্রাক্তন আরএসপি বিধায়ক রহিম বক্সি মানুষের জন্যই কাজ করেন। আর এই হিরিকের মধ্যে যিনি অনুঘটকের মতো কাজ করেছেন বলে রাজনৈতিক মহল মনে করেছেন তিনি আর কেউ নয় , শুভেন্দু অধিকারী । 

No comments:

Post a Comment

loading...