Saturday, 2 February 2019

দেশের সেরা মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে মোদীকে আরও চাপে ফেললেন মমতা, আলিমুদ্দিনের মুখে কুলুপ

ওয়েব ডেস্ক ২রা  ফেব্রুয়ারী ২০১৯: একদিকে যখন নরেন্দ্র মোদী ঠাকুরনগরে বিজেপির হয়ে প্রচারে ব্যস্ত তখন একটা ব্যাপার সবার সামনে এলো ।সেটা কি ? দেশের মধ্যে নম্বর ১ মুখ্যমন্ত্রী এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।অভাব দূরীকরণের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে ভাবে দিনের পর দিন উন্নয়নকে হাতিয়ার করে এগিয়ে যাচ্ছে তা সারা ভারত কুর্নিশ না করে থাকতে পারে ?প্রসঙ্গত সব বিরোধী দলেরই প্রধান লক্ষ্য আসন্ন লোকসভা ভোটে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে গদিচ্যুত করা। তাবৎ বিরোধী নেতাকে ব্রিগেডের মঞ্চে হাজির করে দিন কয়েক আগেই মমতা ব্যানার্জি দেখিয়ে দিয়েছেন তাঁর গ্রহণযোগ্যতা ও ক্ষমতা। তা ফের প্রমাণিত হল ইন্ডিয়া টুডে–‌র মুড অফ দ্য নেশন (‌এমওটিএন) ভোটে। সবাইকে পিছনে ফেলে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন সেরা মুখ্যমন্ত্রী (‌‌বেস্ট পারফর্মিং চিফ মিনিস্টার)‌। এই নিয়ে পরপর চারবার।
২০১৬–‌র ফেব্রুয়ারিতেও তিনি ছিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল ও নীতীশকুমারের পরে। ওঁর পক্ষে ভোট পড়েছিল মাত্র ৮ শতাংশ। আর ওই দুজনের ছিল ১৫ শতাংশ। হঠাৎ মমতার নাটকীয় উত্থান। ৮ থেকে ১৪–‌য়। পশ্চিমবঙ্গে দারুণ জনপ্রিয় মমতা।  ৬৪ শতাংশ মানুষ ওঁকে পছন্দ করেন। এই জনপ্রিয়তা আছে আরেক জনের তিনি তেলেঙ্গানার কে চন্দ্রশেখরের। শতাংশের হিসাবে ওঁর ৭৮ শতাংশ। ওঁর দল সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভায় সাংসদ রয়েছেন ৩৮ জন। সংখ্যার দিক থেকে দ্বিতীয়। প্রথম স্থানে রয়েছে কংগ্রেস। আসন্ন লোকসভা ভোটে বিরোধীদের যে জোট হয়েছে, তাতে প্রধানমন্ত্রী পদের দাবিদার হিসাবে ওঁর নাম রয়েছে একেবারে প্রথম সারিতে। কেজরিওয়াল, কেসিআর–‌এর মতো অ–‌বিজেপি, অ–‌কংগ্রেসি নেতা, ন্যাশনাল কনফারেন্সের ওমর আবদুল্লা এবং সমাজবাদী পার্টির অখিলেশ যাদব— সবাই মমতাকে ‘‌দিদি’‌ বলে অভিহিত করেন। প্রধানমন্ত্রী পদের দাবিদার হিসাবে ওঁর প্রধান প্রতিপক্ষ কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী এবং বহুজন সমাজ পার্টির প্রধান মায়াবতী। তবে মমতার মতো মায়াবতীর লোকসভায় অত সদস্য নেই।  আর নেই তার সর্বসম্মত গ্রহণ যোগ্যতা নেই  । মমতার গায়ে দুর্নীতির কোনো কালির দাগ নেই , যেটা আছে মায়াবতীর ।

No comments:

Post a Comment

loading...