Saturday, 23 March 2019

চালাকির দ্বারা কখনোই মহৎ কাজ হয়না , হয়তো ভুলে গিয়েছিলেন বাবুল সুপ্রিয় , তাই পড়লেন ফ্যাসাদে ।

ওয়েব ডেস্ক  ২৩শে  মার্চ ২০১৯:এবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র টুইটার হ্যান্ডেলের দিকে তীক্ষ্ণ নজর রাখবে নির্বাচন কমিশন ।বলা বাহুল্য বাবুল সুপ্রিয় যা ব্যাখ্যা দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনকে তা সন্তুষ্ট না হওয়াতেই নির্বাচন কমিশনার এই পদক্ষেপ বলে মনে করা হচ্ছে । প্রসঙ্গত, মঙ্গলবারই, কেন কমিশন ও মিডিয়া মনিটরিং কমিটির কাছ থেকে কোনও রকম ছাড়পত্র (সার্টিফিকেশন) না নিয়ে এমন গান পোর্টালে এবং ইন্টারনেটে আপলোড করে  আদর্শ নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করা হল , জানতে চেয়ে বাবুলকে শোকজ নোটিস দেয় কমিশন।টিএমসির অভিযোগ, এই গানে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কলুষিত করার চেষ্টা করা হয়েছে।
নির্বাচন কমিশনের মিডিয়া ওয়াচ সেন্টার গানটি দেখেছে এবং তারপরেই বাবুলের কাছে জবাব তলব করেছিল । গানের বিষয় নিয়ে আপত্তি তো উঠেছেই, সঙ্গে এও অভিযোগ রয়েছে যে বৈধ ছাড়পত্র ছাড়াই গানটির প্রচার হচ্ছে। এক পদস্থ নির্বাচন কমিশন অধিকারিক বলেন, “ইসিআই ও মিডিয়া মনিটরিং কমিটি বিষয়টি খতিয়ে দেখছে। নোটিশে গানটি টুইটারে আপলোডের কথাও উল্লেখ করা হয়েছে।”বুধবার এক সাংবাদিক বৈঠকে বাবুল দাবি করেন, তিনি গানটি রিলিজ করেন নি, কিন্তু কিছু বন্ধুদের পাঠিয়েছিলেন। বাবুল সাংবাদিকদের বলেন, “আমি এখনও গানটা রিলিজ করি নি। শুধুমাত্র দলের কিছু কর্মীদের সঙ্গে গানটা শেয়ার করেছিলাম”। এমনকি সাংসদ নিজেকে আড়াল করতে এও বলেন যে তাঁকে ক্যামেরাবন্দি করা হয়েছে যখন গানটির রেকর্ডিং চলছিল। কিছু মিডিয়ার প্রতিনিধি স্টুডিওতে উপস্থিত ছিলেন সেই সময়।পুলিশ সূত্রে খবর, এই ঘটনায় পশ্চিম বর্ধমানের স্টুডেন্ট লাইব্রেরী কো-অর্ডিনেশন কমিটির সম্পাদক গৌরব গুপ্ত আসানসোল দক্ষিণ থানাতে বাবুল সুপ্রিয়র বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেন। তিনি আরও বলেন, মমতার বিরুদ্ধে অপ্রয়োজনীয় অভিযোগের সুরেই গানটির কথা লেখা হয়েছে। যা অত্যন্ত বিদ্বেষমূলক ও অপমানজনক।মোদ্দা কথা বাবুল ফ্যাসাদে পড়লেন,এবার তিনি কি করেন সেটাই দেখার ।

No comments:

Post a Comment

loading...