Monday, 18 March 2019

বাম-কংগ্রেসের মধুচন্দ্রিমা শেষ , সম্পর্কের জবনিকায় পারস্পরিক দোষারোপ



ওয়েব ডেস্ক ১৮ই মার্চ ২০১৯:গত বিধাসভা নির্বাচন থেকে চলে আসা বাম -কংগ্রেসের গাঁটছড়া ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে এসে মুখ থুবড়ে পড়ল ।বিদ্যজনেদের একাংশের মত এটা হবারই ছিল , আর যেটা ছিল তা হল অপেক্ষা , কবে এই মধু চন্দ্রিমা শেষ হয় । কেননা সব রাজনৈতিক দলের নেতা নেত্রীদের সন্তুষ্ট করা সম্ভব সিপিআইএম কে নয় , কারণ নিজেদের জেদ থেকে তাদের বেরিয়ে আসাটা অসম্ভব ,যদি না খুব বিপদে পড়েন । এবার দোষারোপের পালা , যেখানে সিপিআই-এর  সাধারণ সম্পাদক  সুরাভরম সুধাকর রেড্ডি সোমবার বললেন, পশ্চিমবঙ্গে লোকসভা নির্বাচনের   জন্য আসনবন্টন নিয়ে কংগ্রেসের  ‘অন্যায্য' দাবি কোনওভাবেই মানবে না বামফ্রন্ট। প্রসঙ্গত, এই রাজ্যে কংগ্রেস ও বামফ্রন্টের  জোটগঠন করা নিয়ে দীর্ঘ আলোচনার পরে এখন দুই দলই লোকসভায় পৃথকভাবে লড়াই করার তোড়জোর শুরু করেছে।

তিনি বলেন, “ওরা (কংগ্রেস) ১৭'টি আসনে লড়ার দাবি জানিয়েছিল। বামফ্রন্ট ওদের কাছে ১২'টি আসন ছাড়ার প্রস্তাব রাখে। ওরা আরও যে ৫'টি আসনের দাবি করে, সেগুলি সবই বামফ্রন্টের আসন। এটা অন্যায্য। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি আসনে আগের নির্বাচনে ওরা ২ থেকে ৩ শতাংশ ভোট পেয়েছিল”। তাঁর কথায়, বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রে গত লোকসভা নির্বাচনে সিপিআই পেয়েছিল ৪ লক্ষ ভোট। অন্যদিকে, কংগ্রেস পায় ১ লক্ষ ভোট। তা সত্ত্বেও, ওদের দাবি ওই আসন থেকে এবারে লড়াই করবে কংগ্রেস। এটা কী করে সম্ভব? এমন দাবি বামফ্রন্ট কখনওই মেনে নেবে না। ওরা ফরওয়ার্ড ব্লকের একটি আসন এবং সিপিএমের তিনটি আসনও চেয়ে বসেছিল। এর ফলে, ব্যাপারটি ভীষণ জটিল হয়ে যেত।উল্টোদিকে কংগ্রেসের রাজ্য সভাপতি সৌমেন মিত্র রবিবারের রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর বলেন "আমাদের দলের পক্ষ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে যে, নিজেদের সম্মান নষ্ট করে কোনওরকম জোট করব না আমরা। কারা প্রার্থী হবেন বা হবেন না, সেই ব্যাপারে বামফ্রন্ট আমাদের ওপর ছড়ি ঘোরাতে পারে না। আমরা বাংলায় একাই লড়ব"।পুনশ্চ , মধুচন্দ্রিমা শেষ ।   

No comments:

Post a Comment

loading...