Saturday, 30 March 2019

প্রধানমন্ত্রী পদে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে একমাত্র যোগ্যতম ব্যক্তি পরিষ্কার হয়ে গেল কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান মন্ত্রকের তথ্যেই

ওয়েব ডেস্ক ৩০শে  মার্চ ২০১৯:  তৃণমূলের সাফল্য কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান মন্ত্রকের তথ্যেই উঠে আসছে । এটা লুকোবার কোনো জো নেই কেন্দ্রীয় সরকারের । এটা বলে নেওয়া দরকার  সাংসদরা যেই বিপুল পরিমাণ টাকা পান কেন্দ্রীয় সরকারের কাছ থেকে, অবশ্যই সেটা মুখ দেখার জন্য নয় মানুষের উন্নয়নে খরচ করার জন্য , কিন্তু দেখা যাচ্ছে বহু সাংসদ আছে তারা এই টাকা খরচ করতেই পারেননা , বা বলা ভালো তারা উন্নয়নের জন্য খরচই করার ইচ্ছেই নেই তাদের  ।
ঠিক এই জায়গাতেই টেক্কা দিল তৃণমূলের সাংসদরা । প্রসঙ্গত ৫৪৩ জন সাংসদের মধ্যে মাত্র ৩৫ জন সাংসদই তাঁদের তহবিলের টাকা এলাকার উন্নয়নের জন্য খরচ করতে পেরেছেন। এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এসেছে। বাকি ৫১৯ জন সাংসদ তাঁদের তহবিলের টাকা খরচ করেননি। কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান মন্ত্রকের তথ্য বলছে, সাংসদের অনুমতি ছাড়া এই তহবিলের টাকা ব্যবহার করা যায় না। এবং জেলা শাসকদের কাছেই প্রথমে সেই টাকা আসে। কিন্তু দেশের এই ৫১৯ জন সাংসদই কী তাহলে তাঁদের তহবিলের টাকা এলাকার উন্নয়নে ব্যবহার করেননি। দেশের অধিকাংশ রাজ্যই কিন্তু বিজেপির শাসনে রয়েছে। তাহলে মোদির ভাষায় উন্নয়নের জোয়ার বয়েছে কোন রাজ্যে। এই প্রশ্নের উত্তরেই লুকিয়ে রয়েছে সুখবর।কেন্দ্রীয় পরিসংখ্যান মন্ত্রকের তথ্য বলছে সবচেয়ে বেশি সাংসদ তহবিলের টাকা খরচ হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস শাসিত পশ্চিমবঙ্গে। ৩৪ জন সাংসদের মধ্যে অধিকাংশ তৃণমূল সাংসদই তাঁদের তহবিলের টাকা খরচ করে ফেলেছেন। দলনেত্রী মমতা ব্যানার্জির কড়া নির্দেশের ফলশ্রুতি। রাজ্যে যে উন্নয়নের কাজ হয়েছে তা স্বীকার করেছেন বিরোধীরাও। সেই উন্নয়নকে মন্ত্র করেই আরও একটি লোকসভা ভোটের বৈতরণী পাড় করতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস।
রিপোর্টে আরও একটি যে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য উঠে এসেছে তাতে জানা গিয়েছে, এই তালিকায় সবচেয়ে পিছনে রয়েছে মোদির রাজ্য গুজরাট। মাত্র দু’‌জন সাংসদ তাঁদের তহবিলের টাকা খরচ করেছেন। নীতীশের বিহারের দশা তো আরও করুন। মাত্র একজন সাংসদ তাঁর সহবিলের টাকা খরচ করেছেন এখানে। মণিপুর, নাগাল্যান্ড, অরুণাচল প্রদেশ, রাজস্থানের অবস্থাও এক। এই রিপোর্টই সিলমোহর দিচ্ছে আগামী লোকসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই প্রধানমন্ত্রী পদে একমাত্র দাবিদার । তিনি একমাত্র যোগ্য তম ব্যক্তি , আর কেউ নয় । 

No comments:

Post a Comment

loading...