Monday, 1 April 2019

দাদরি গণহত্যার অভুযুক্তরা যোগীর সভায় উল্লাস প্রদর্শন করছেন , ১১ই এপ্রিল থেকে অংশ নেবে বিজেপির প্রচারেও

ওয়েব ডেস্ক ১লা এপ্রিল  ২০১৯: যোগী আদিত্যনাথই কি "মব লিনচিঙের" মতো ঘটনাকে উৎসাহ দিচ্ছেন ? না তার নির্দেশেই মুসলিমদের প্রতি অত্যাচার চলছে ? এরকম ধারকের অপ্রীতিকর প্রশ্নের সম্মুখীন বিজেপিকে হতেই হবে কারণ ২০১৫ সালে উত্তরপ্রদেশের দাদরিতে গোমাংসের গুজবের জন্য একদল উন্মত্ত জনতার হাতে খুন হতে হয়েছিল মহম্মদ আখলাক নামে এক মুসলিমকে। সেই অভিযুক্তদেরই রবিবার যোগী আদিত্যনাথের সভায় দেখা গেল।
ওই জনসভার প্রথম সারিতেই বসেছিল তারা। ১১ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া লোকসভা নির্বাচনে দাদরি কাণ্ডের এই অভিযুক্তরাই বিজেপির প্রচার করবে। জানা গিয়েছে, মহম্মদ আখলাকের হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার হলেও তারা জামিনে ছাড়া পেয়ে যায়। যে জায়গায় আখলাককে হত্যা করা হয়েছিল, সেই গ্রেটার নয়ডার বিসারা গ্রামে জনসভা ছিল উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের। চারজন অভিযুক্তের মধ্যে মূল অভিযুক্ত বিশাল রানাকে সভার প্রথম সারিতে বসে আদিত্যনাথের জন্য হাততালি দিতে দেখা যায়। প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের সেপ্টেম্বরে ৫৫ বছরের মহম্মদ আখলাককে বাড়ি থেকে টেনে বের করে আনা হয়। তাঁর ওপর অভিযোগ উঠেছিল যে তিনি গরু মেরে তার মাংস ফ্রিজে রেখে দিয়েছেন। উন্মত্ত জনতার রোষ থেকে বাদ যায়নি আখলাকের ছেলে দানিশও। তাঁকে বেধড়ক মারধর করা হয়। আখলাকের পরিবারকে গ্রাম ছাড়তে বাধ্য করে। আখলাকের হত্যার পর দাদরি গ্রাম দু’‌ভাগে ভাগ হয়ে যায়। রবিবার যোগী আদিত্যনাথ এই গণহত্যার বিষয়টি তুলে জনসভায় বলেন, ‘বিসারাতে কি ঘটেছিল তা কারোর মনে নেই?‌ সকলে তা জানেন। কি নির্লজ্জভভাবে সমাজবাদী পার্টির সরকার ঘটনাটিকে দমন করার চেষ্টা করেছিল। আমি বলব আমাদের সরকার আসার পর দ্রুত বেআইনি কসাইখানা বন্ধ করতে সফল হয়েছে এবং এ ব্যাপারে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।’‌‌ আদিত্যনাথ এই কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী মহেশ শর্মার হয়ে প্রচারে এসেছিলেন। যোগাজীর  এতো কিছু মনে থাকে তার এটা মনে নেই যারা মোহাম্মদ আখলাককে খুন করেছিল তারাই আজ তার সভায় উপস্থিত হয়ে তার ভাবমূর্তিতে নষ্ট করছেন । না যোগী আদিত্যনাথ এসব  কিছুই "কেয়ার" করেননা ? কোনটা ?

No comments:

Post a Comment

loading...