Thursday, 11 April 2019

মমতার নামে নিন্দে করে পাহাড়ে বিশেষ সুবিধে করতে পারলেননা অমিত শাহ , তার প্রতিটা অভিযোগই ভুল প্রামাণিত হল

ওয়েব ডেস্ক ১১ই এপ্রিল ২০১৯:পাঁচ বার মাথায় আঘাত করেছিল সিপিএম ।তার পরেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দমানো যায়নি ।অমিত শাহ যদি মনে করেন দীর্ঘ চৌত্রিশ বছরের অপশাসন থেকে বাংলাকে মুক্ত করা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সহজেই  বাংলা থেকে উৎখাত করা যাবে তাহলে ব্যাপারটা সহজ নয় বলেই মনে করেন রাজনৈতিক মহলের একটা বড় অংশ ।
প্রসঙ্গত পাহাড়ের ভোট পাওয়ার জন্যই অমিত শাহ বেশ গরম গরম বক্তিতা দেন , কিন্তু হয়তো ভাবেননি তার প্রতিটা অভিযোগকেই সাফল্যের সাথে খণ্ডন করবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।প্রথমে ছিল অমতি শাহের জনসভা। রাজ্যের জনসভায় এসে যে কথাগুলি তিনি বলেন, এ বার সেগুলিই আরও একবার বললেন। সিন্ডিকেট রাজ নিয়ে তোপ দাগলেন রাজ্যের বিরুদ্ধে। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে বলে দাবি করলেন। সেই সঙ্গে শরণার্থীদের নাগরিকত্ব দেওয়ার সেই পুরনো প্রতিশ্রুতিও ফের একবার দিলেন তিনি। তবে যেহেতু পাহাড়ে এসেছেন, তাই পাহাড়বাসীদের উদ্দেশেও কিছু বললেন তিনি। গোর্খাদের অবদান বৃথা যাবে না বলেও মন্তব্য করেন অমিত।
অমিত শাহ যেখানে শেষ করেন, সেই সুরেই যেন পালটা দেওয়া শুরু করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দার্জিলিংয়ের জনসভা থেকে গোর্খা বাহিনীর কথা উল্লেখ করেন তিনি এবং সেই প্রসঙ্গেই বিজেপির উদ্দেশে তোপ দাগেন মমতা। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “গোর্খা বাহিনী, সেনাবাহিনীর গর্ব।” এর পরেই পুলওয়ামা হামলায় কেন্দ্রের গাফিলতি নিয়ে সরব হন মমতা। সেনাকে নিয়ে রাজনীতি করছে বিজেপি, এমনও অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।এর পরেই পাহাড়ের সঙ্গে তাঁর আত্মিক সম্পর্কের কথা তুলে ধরেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “আমি প্রতি তিন মাস অন্তর পাহাড়ে আসি। আমি শুধু ভোটের জন্য আসি না। আমি পাহাড়ের মানুষকে ভালোবাসি, পাহাড়কে ভালোবাসি বলে আসি।” ২০১৭-এর অশান্তির ঘটনা পেরিয়ে এসে দার্জিলিং এখন শান্ত। সেই ঘটনাকে মনে করে ফের একবার বিজেপিকে তোপ দাগেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি দার্জিলিংয়ের ভূমিপুত্রকে ভোট দেওয়ার আবেদনও করেন মমতা। তিনি বলে, “দার্জিলিংয়ের ভূমিপুত্রকে (অমর সিংহ রাই) প্রার্থী করেছে তৃণমূল। এ বারও দার্জিলিংয়ের বিজেপি প্রার্থী বাইরের। ভোটের পর রাজু সিংহ বিস্তা মণিপুর চলে যাবেন। এ বার এমন কাউকে প্রার্থী করবেন যিনি আপনার কথা ভাববেন।” পাহাড়কে তিনি কলকাতার মতোই যে ভালোবাসেন সেটা আরো একবার প্রমান পাওয়া গেল তার কথায়।

No comments:

Post a Comment

loading...