Thursday, 11 April 2019

কষ্ট উপার্জিত টাকা জুলুমবাজির হাত থেকে বাঁচাতে নিজের জরায়ু কেটে বাদ দিতে হচ্ছে বিজেপি শাসিত মহারাষ্ট্রের মহিলাদের

ওয়েব ডেস্ক ১১ই এপ্রিল ২০১৯:বিজেপি শাসিত রাজ্য হলেই নক্কার জনক ঘটনা কিছু না কিছু ঘটবেই ।এখন এটাই ট্রেন্ড হয়ে গেছে ।যতই ভোট দরজায় কড়া নাড়ুক দুষ্কর্মের যে কোনো বিরাম নেই সেটা বিজেপি শাসিত রাজ্যকে না দেখলে বোঝা সম্ভব নয় । প্রসঙ্গত ঋতুস্রাবের সময়ে শরীর ভালো না থাকলে এক-আধ দিন কাজে যেতে পারেন না তারা। কিন্তু ঠিকাদার সে কথা শুনবেন না। এক-এক দিন কাজ কামাইয়ের জন্য দিতে হয় ৫০০ করে টাকা। তাই নিজেদের জরায়ু বাদ দিয়ে এখন বন্ধ্যাত্বকরণের পথ বেছে নিচ্ছেন ভারতের মহারাষ্ট্রের বিড় জেলার নারী আখ শ্রমিকরা।
সম্প্রতি  ঘটনা কানে যাওয়ার পর  চমকে উঠেছিল মহারাষ্ট্রের জাতীয় মহিলা কমিশন। সব দিক খতিয়ে দেখে তারা এ নিয়ে বুধবার নোটিশ পাঠিয়েছে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে। যে ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাদের যেন উপযুক্ত শাস্তি দেয়া হয়, মুখ্যসচিবকে সেই অনুরোধও জানিয়েছে মহিলা কমিশন। কমিশনের চেয়ারপারসন রেখা শর্মার বক্তব্য, যে পরিস্থিতিতে ওই সব নারী শ্রমিক আখের খেতে কাজ করছেন, তা শোচনীয়।”বিষয়টি নিয়ে কমিশন যে উদ্বিগ্ন, তা-ও জানিয়েছেন তিনি।
অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত আখ চাষের মৌসুম। পশ্চিম মহারাষ্ট্রের বিড় জেলায় ওই সময়ে ভিড় জমান প্রচুর সংখ্যক শ্রমিক। আখ কাটার কাজ করেন মূলত নারী শ্রমিকেরা। তাদের স্বামীরা করেন খেতের অন্য কাজ। এক এক জন দম্পতিকে এক এক ‘ইউনিট’ হিসেবে ধরা হয়। সেই মতোই তাদের মজুরি দেন ঠিকাকর্মীরা। কিন্তু অভিযোগ, মাসের তিন-চার দিন ঋতুস্রাবের সময়ে শরীর খারাপ থাকলে নারী শ্রমিক যদি কাজ করতে না আসতে পারেন, সে ক্ষেত্রে তার স্বামী তো মজুরি পান-ই না। উল্টে নিজেদের পকেট থেকে দিন প্রতি ৫০০ টাকা করে ঠিকাদারদের দিতে হয় তাদের।
গ্রামের মানুষেরা জানিয়েছেন, এই নিয়মই এইসব অঞ্চলের প্রথা। তাই টাকা কাটা যাওয়ার ভয়ে দুই-তিন সন্তানের মায়েরা এখন জরায়ু বাদ দিয়ে বন্ধ্যাত্বকরণের রাস্তা বেছে নিচ্ছেন। তাতে মাসে কোনো দিন কাজও কামাই হচ্ছে না। আর সেই সঙ্গে মোটা টাকা জরিমানাও দিতে হচ্ছে না।
মুখ্যসচিব ইউপিএস মদনের কাছে নোটিশ পাঠিয়ে রেখা শর্মা জানিয়েছেন, এই অত্যাচারের শিকার যেসব মহিলা, তাদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা ও সমাজের মূলস্রোতে ফেরাতে রাজ্য সরকার কী কী পদক্ষেপ নিলো, তা যেন কমিশনকে জানানো হয়। সেই সঙ্গে অভিযুক্ত ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতেও অনুরোধ করেছে কমিশন, যাতে ভবিষ্যতে নারীদের এই ধরনের অমানবিক আচরণের শিকার হতে না হয়।     

No comments:

Post a Comment

loading...