Thursday, 25 April 2019

মোদির বিরুদ্ধে বিধিভঙ্গের অভিযোগ নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটে জমা পড়ার সাথে সাথে উধাও হয়ে যাচ্ছে

ওয়েব ডেস্ক ২৫শে এপ্রিল ২০১৯: দেশটা কি ভাবে চালাচ্ছে ভারতীয় জনতা পার্টি । সব কিছুতেই নিজেদের আধিপত্য বজায় রাখছে । যেই সব জায়গায় নিজেদের সুচ ফোটানোর কথা নয় সেই সব জায়গাতেও নিজেদের কতৃত্ব বজায় রাখছে ।ঠিক যেরকম ৩৪ বছর বাংলায় শাসনের সময় , বামেরা যা উপভোগ করেছিল ।উদাহরণ স্বরূপ, বামেরা, যেরকম বিরোধীদের কব্জায় থাকা কলেজ গুলোতে সর্বাধিক ছাত্রছাত্রীদের জীবন নষ্ট করতো ফেল করিয়ে , অথবা অত্যাধিক খারাপ নম্বর দিয়ে ।আর অন্য দিকে বার এসোসিয়েশনের উকিলদের নিজেদের পতাকা তলে নিয়ে, সেই সব ছাত্রছাত্রীদের বিচার পাওয়ার ব্যবস্থাটাই অর্ধেক রাস্তায় কোপ মেরে দিতো ।
মানে , একটি ছাত্র ভালো পরীক্ষা দিয়ে যদি ফেলের মার্কশীট পেত্, তাহলে মামলা করলেও , সেখানকার উকিল যিনি কাস্তে হাতুড়ির একনোবিষ্ট সৈন্য বলে নিজেকে মনে করতেন ,তিনি সুচতুর ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ছাত্র বা ছাত্রীটিকে পিছিয়ে দিতেন তারিখের পর তারিখের মিথ্যে আশ্বাস দিয়ে ।অতটা বিজেপি করছে কি না কোনো তথ্য নেই ইতিমধ্যে ।তবে এক চাঞ্চল্যকর ঘটনার সাক্ষী থাকলো সারা দেশ।প্রসঙ্গত  নির্বাচনী বিধিভঙ্গের অভিযোগ একের পর এক উঠেই চলেছে সমস্ত দলের রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে। কিন্তু কমিশনে প্রধানমন্ত্রীর  বিরুদ্ধে অভিযোগ জমা পড়তেই তা গায়েব হয়ে গিয়েছে বলেই খবর। মহারাষ্ট্রের লাতুরে একটি জনসমাবেশে মোদির বক্তব্য নির্বাচনী বিধিভঙ্গ করেছিল বলেই অভিযোগ জানানো হয়েছিল। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইট  থেকে বেমালুম হাওয়া সেই অভিযোগ! নির্বাচনী প্রচার নিয়ে এ পর্যন্ত মোট ৪২৬ টি অভিযোগ জানানো হয়েছে কমিশনে। তালিকাটি নির্বাচন কমিশনের ওয়েবসাইটেই প্রকাশ্যে পাওয়া যায়। কিন্তু গত ৯ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী মোদির বিরুদ্ধে ওঠা এমনই একটি অভিযোগ ওই তালিকায় আর দেখা যাচ্ছে না। কলকাতার এক ব্যক্তি মহেন্দ্র সিং ওই অভিযোগ দায়ের করেছিলেন, মহারাষ্ট্রের লাতুরের মোদির একটি সমাবেশে পুলওয়ামা আক্রমণে শহিদ জওয়ানদের স্মৃতি এবং পাকিস্তানকে দেওয়া ভারতের ‘যোগ্য জবাবে'র নিরিখে ভোটারদের ভোট দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন নরেন্দ্র মোদি।দুই দিন পর নির্বাচন কমিশন, আজ বৃহস্পতিবার দুপুরের মধ্যে মহারাষ্ট্রের মুখ্য নির্বাচনী অফিসারের  কাছ থেকে এই ঘটনার একটি ভাষ্য প্রতিলিপি চেয়ে পাঠিয়েছে। অভিযোগের অবস্থা নিয়েও বিভ্রান্তি রয়েছে।

মহেন্দ্র সিং বলেন, তাঁর জানানো অভিযোগের অবস্থা কী তা জানার জন্য যখন তিনি যখন লগ ইন করেন, তাঁকে দেখানো হয় যে, তাঁর অভিযোগের ‘সমাধান' হয়ে গিয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশন জানায়, ‘সমাধান' হয়ে গিয়েছে এর পরিবর্তে পোর্টালটির দেখানো উচিৎ ছিল যে অভিযোগটি, ‘নির্বাচন কমিশনের সদর দফতরে পাঠানো' হয়েছে। নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, আগামীকাল দুপুর ১ টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার কাছ থেকে ব্যাখ্যা চেয়ে পাঠিয়েছেন মহারাষ্ট্রের সিইও।

নির্বাচন কমিশনের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, “প্রযুক্তিগত ত্রুটি”র কারণে বিষয়টা ভুল প্রদর্শিত হয়েছে। ওই কর্মকর্তা জানান, অভিযোগটি সকলেই দেখতে পাবেন এমন অবস্থাতেই ছিল এবং এই জন্য মহারাষ্ট্রের নির্বাচনী অফিসারের থেকে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে যা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।কিন্তু দুই সপ্তাহ পার করেও প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ নিয়ে নির্বাচন কমিশনের তরফে কোন ব্যবস্থাই নেওয়া হয়নি। এবং এই সময়ের মধ্যে, প্রধানমন্ত্রী একাধিকবার তাঁর জনসভায় পুলওয়ামা ও বালাকোটের উল্লেখ করেছেন।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, জাতীয় নির্বাচনের সময়ে বিজেপি'র ‘জাতীয় নিরাপত্তা' ইস্যু প্রদর্শন করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর সমাবেশে পাকিস্তানে বিমান হামলার কথা উল্লেখ করা নিয়ে জমা পড়া অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁরা পদক্ষেপ করবেন শীঘ্রই।

No comments:

Post a Comment

loading...