Sunday, 7 April 2019

বিরোধীদের বিরুদ্ধে বিজেপির চরম প্রতিশোধমূলক আচরণ, আয়কর হানা কমলনাথের ঘনিষ্টদের বাড়িতে

ওয়েব ডেস্ক ৭ই এপ্রিল ২০১৯:মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পশ্চিমবঙ্গে  সরকার গড়ার সময় একটা কথাই বলেছিলেন বদলা নয় বদল চাই । সরকারে আসার পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তার কথা অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছেন । কোনোদিন পদের অপব্যবহার করেননি । এবার সেটাই করছে বিজেপি , ভোটের মুখে বিরোধীদের কণ্ঠ রোধ করার জন্য তাদের আইনি প্যাচে ফেলার চেষ্টা করে যাচ্ছে , যা ভারতীয় রাজনীতি এর আগে কখনো হয়নি ।প্রসঙ্গত গত সপ্তাহে জেডিএস নেতাদের বাড়িতে আয়কর আধিকারিকরা হানা দেন। এবার কংগ্রেস। মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথের ঘনিষ্ঠ দুই অফিসারের বাড়িতে হানা দিল আয়কর দফতর। কমল নাথের প্রাক্তন আপ্ত সহায়ক প্রবীণ কুমারের ইনদওরের বাড়িতে রাত ৩টে নাগাদ তল্লাশি চালান আয়কর দফতরের আধিকারিকরা। পাশাপাশি, দিল্লিতে হানা দেওয়া হয় মুখ্যমন্ত্রীর প্রাক্তন উপদেষ্টা রাজেন্দ্র কুমার মিগলানির বাড়িতে-ও।সূত্রের খবর, নির্বাচনের সময় হাওয়ালার মাধ্যমে টাকা লেনদেনর অভিযোগ রয়েছে তাঁদের বিরুদ্ধে। কংগ্রেসের অভিযোগ, রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করে আয়কর দফতরকে কাজে লাগাচ্ছেন মোদী।
গত সপ্তাহে কর্নাটকের কংগ্রেস-জনতা দল সেকুলার (জেডিএস) জোটের নেতাদের বাড়িতে হানা দেন আয়কর দফতরের অফিসাররা। মোদীকে কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে তীব্র সমালোচনা করতে দেখা গিয়েছে সে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামীকে। স্বভাবতই বিরোধীরা প্রশ্ন তুলছেন, শুধু আয়কর দফতর নয় ভোটের মুখে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবেই কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিকে ব্যবহার করা হচ্ছে। একই অভিযোগে সরব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।সূত্রে খবর, দিল্লির গ্রিন পার্ক এবং মধ্য প্রদেশে মোট ৫০ জায়গায় হানা দেয় আয়কর দফতর। প্রায় ৯ কোটি টাকা উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। আয়কর দফতর সূত্রে খবর, নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে তল্লাশি চালানো হয়নি। এমনকি হানা দেওয়ার সময় কমিশনকে জানানো হয়নি বলে জানা যাচ্ছে।এই ভাবে যদি চলতে থাকে তাহলে বিজেপি নেতৃত্বের কি মনে হয় লোকসভা ভোটে তারা ভালো ফল করবেন ? প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে ।

No comments:

Post a Comment

loading...