Wednesday, 1 May 2019

মমতা যখন পশ্চিমবাংলায় মাওবাদী দমনে পুরোপুরি সফল তখন বিজেপি শাসিত মহারাষ্ট্রে মাওবাদীরা ১৫ নিরাপত্তা কর্মীকে হত্যা করল

ওয়েব ডেস্ক ১লা মে ২০১৯: এটা ঠিক মোদী সরকার কেন্দ্রে আসার পর থেকে নিরাপত্তা রক্ষীর  মৃত্যু মিছিল বেড়েছে ।সে জম্মু কাশ্মীরের হিজবুল্লা মুজাহিদ্দিনই  হোক বা মাওবাদী কোনো এলাকা। উড়ি ,পুলওয়ামার পর এবার মহারাষ্ট্রের গডচিরোলিতে আইইডি বিস্ফোরণে নিরাপত্তারক্ষীর  গাড়ি উড়িয়ে দিল মাওবাদীরা ।পুলবামায় মারা গিয়েছিল ৪৯ জন সিআরপিএফ জওয়ান আর  মহারাষ্ট্রের গডচিরোলিতেমারা গেল ১৫ জন নিরাপত্তা কর্মী, যা নিয়ে মোদিকে তুলোধোনা করলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ।
বুধবার হাওড়ার আন্দুলের সভা থেকে তিনি বলেন, ‘কিচ্ছু করেননি মোদী। এই পাঁচ বছরে শুধু বিদেশে গেছেন ঘুরতে আর হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা লাগিয়েছেন। মাওবাদী দমনেও চূড়ান্ত ব্যর্থ।’ এদিন নির্বাচনী প্রচার সভায় তৃণমূল সরকারের আমলে রাজ্য সরকারের সফল মাওবাদী দমন নীতির কথাও তুলে ধরেন মমতা। শুধু তাই নয়, হিংসা দিয়ে যে মাও দমন সম্ভব নয়, সেকথাও বারবার বলেন তিনি।৩৪ বছরের বামেদের শাসন হটিয়ে সরকারে এসেছেন মমতা। সেই বামেরা আজ বিজেপির সঙ্গে হাত মিলিয়েছে জানিয়ে মমতা বলেন, ‘৩৪ বছর ধরে বাংলায় কম অত্যাচার করেনি সিপিএম। লড়াই করে তাদের সরিয়েছি। সেই সিপিএমের হার্মাদরা আজ বিজেপির ওস্তাদে পরিণত হয়েছে। আর সিপিএম-এর মতো অত্যাচার করছে বিজেপি। নিজেরা কপ্টারে চেপে ঘুরে বেড়াচ্ছে। সাত দফায় নির্বাচন করে বাংলার মানুষকে হেনস্থা করছে ওরা।’
বুধবার রাজ্যে প্রচারে এসে এনআরসি-কেও মূল ইস্যু করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। তাঁর জবাব দিতে গিয়ে মমতা বলেন, ‘ক্ষমতা হবে না বাংলাকে ছোঁয়ার। এবার ভোটে গোহারা হারবে বিজেপি।’ সেইসঙ্গে তাঁর যুক্তি, বিজেপি আদৌ হিন্দুপ্রিয় নয়। তাই যত হত, তাহলে অসমে এনআরসির নামে ২২ লক্ষ হিন্দুর নাম বাদ পড়ত না।আসামে বিজেপি যে কাজটা করতে পেরেছে বাংলায় কখনোই সেটা যে খুব সহজ হবেনা সেটা বিজেপি নিজেও জানে বলে মনে করে বিদ্যজনেদের একাংশ । 

No comments:

Post a Comment

loading...