Sunday, 5 May 2019

কেশপুরে ভারতী ঘোষের হুমকির পরই দুজন তৃণমূল কর্মী তীর বিদ্ধ হলেন , সন্দেহ বিজেপির দিকে

ওয়েব ডেস্ক ৫ই মে ২০১৯: কেশপুরে ভারতী ঘোষের  হুমকির পরেই তৃণমূল কর্মীরা আক্রান্ত । এ নিয়ে বাংলার রাজনীতিতে সরগরম । এরকম একটা পরিস্তিতি যে তৈরী হবে সেটা কেশপুরের মানুষ স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি , কারণ এতদিন ধরে তাদের মতে শান্তিপূর্ণ ভাবেই ভোট হচ্ছিলো । সেখানে ভারতী ঘোষের উস্কানি মূলক কথা বার্তা বলার ১২ ঘন্টার মধ্যেই দুজন তৃণমূল কর্মী আক্রান্ত ।বিজেপি অতি উৎসাহে এরকম ঘটনা ঘটিয়েছে কি না , সন্দেহ করছেন কেশপুরের বাসিন্দারা ।
প্রসঙ্গত ঘর থেকে টেনে বের করে কুকুরের মতো মারার হুমকি দিয়েছেন ঘাটালের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ। তার ১২ ঘন্টার মধ্যে অর্থাৎ শনিবার রাতে বাড়ি ফেরার সময় তিরবিদ্ধ হন ওই ২ তৃণমূল কর্মী। আক্রান্ত ২ তৃণমূল কর্মীর নাম সঞ্জিত নায়েক ও শাহবুদ্দিন আলি। জানা গিয়েছে, শনিবার রাতে বাইকে করে বাড়ি ফিরছিলেন ওই দুই শাসকদলের কর্মী। সেইসময় কেশপুর ২ নম্বরের বেড়া মহারাজপুর গ্রামে তাঁদের উপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ। ভাঙচুর করা হয় বাইকদুটিও। তিরবিদ্ধ অবস্থায় ওই ২ তৃণমূল কর্মীকে উদ্ধারের পর প্রথমে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে রাতেই কলকাতায় নিয়ে আসা হয় তাঁদের। হামলার ঘটনায় বিজেপির দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলেছে তৃণমূল কংগ্রেস।গতকাল আনন্দপুরের গাড়রবাগে দলীয় কর্মীদের সঙ্গে দেখা করতে যান ভারতী ঘোষ। সেখানেই প্রকাশ্যে তৃণমূল কর্মীদের হুমকি দিতে শোনা যায় তাঁকে। প্রকাশ্যে ভারতী ঘোষ বলেন, “উত্তরপ্রদেশ থেকে হাজার ছেলে নিয়ে এসে ঘরে ঢুকিয়ে দেব। বাড়ি থেকে টেনে বের করে এনে মারব। কুকুরের মতো মারব। খুঁজে পাওয়া যাবে না। ঘরে ঢুকে তালা মার বলছি।” ভারতী ঘোষের এই মন্তব্য সামনে আসতেই শোরগোল পড়ে যায়। এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের কাছে রিপোর্ট তলব করেছে কমিশন। একজন প্রার্থী কী করে পাড়ার গুণ্ডার মতো হুমকি দিতে পারেন, তানিয়ে নানা মহলে প্রশ্ন ওঠে। এই অবস্থায় তৃণমূল কর্মীরা ওইদিনই আক্রান্ত হওয়ায়, এর পেছনে কার হাত তা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে।ব্যাপারটা যে ভালোর  দিকে যাচ্ছেনা সেটা বোঝাই যাচ্ছে, উস্কানি মূলক মন্তব্য থেকে বিশেষ করে বিজেপি নেতা নেত্রীদের বিরত থাকাটাই একান্ত  কাম্য কেশপুরের মানুষের । 

No comments:

Post a Comment

loading...