Monday, 15 July 2019

সংসদে বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে মহুয়া মৈত্রের ফ্যাসিবাদী শব্দটা কি বেমানান ছিল ? পড়ুন

ওয়েব ডেস্ক ১৫ই জুলাই  ২০১৯: সংসদে মহুয়া মৈত্রের ফ্যাসিবাদী শব্দ ব্যবহারটা , মোদী সরকারের উদ্দেশ্যে, খুব একটা ভুল বলে মনে হচ্ছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের  একাংশের । কেননা যেই মোদির বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে তাদেরই কণ্ঠ রোধ হয়েছে চিরতরে । এর মধ্যে সংবাদমাধ্যমও ছাড় পায়নি। মাস খানেক আগেই যোগীরাজ্যে জেলে পোরা হয়েছিল একাধিক সাংবাদিককে। এবার চলল জম্মু-কাশ্মীরের সংবাদমাধ্যমের কণ্ঠরোধের চেষ্টা। যার ফলে সরব হয়েছে তারা।
জম্মু-কাশ্মীরের সংবাদমাধ্যমের অভিযোগ, সত্য পরিবেশনে বাধা দেওয়া হচ্ছে। ক্রমশ চাপ বৃদ্ধি ও বিভিন্ন তদন্তকারী সংস্থার মাধ্যমে সাংবাদিকদের জিজ্ঞাসাবাদ করে প্রভাবিত করা হচ্ছে সংবাদমাধ্যমকে।রাজ্যের বহুল প্রচারিত ইংরেজি দৈনিক ‘গ্রেটার কাশ্মীর’-এর সম্পাদক ফৈয়াজ কালুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে এনআইএ। জঙ্গী নেতা বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পরে সংবাদ পরিবেশনের ধরণ নিয়ে গোয়েন্দারা তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন বলে শোনা যায়। নিজের সংবাদ সংস্থায় টাকার জোগান নিয়েও প্রশ্নের মুখে পড়েছেন তিনি। দু’দশকের পুরনো মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে একটি উর্দু দৈনিকের সম্পাদক আফাক গুলাম জিলানি কাদরিকে। গ্রেফতার করা হয়েছে একটি পত্রিকার সাংবাদিক আসিফ সুলতানকেও। শ্রীনগরের বিভিন্ন সাংবাদিক ও দৈনিকের কর্ণধারদের দাবি, বিচ্ছিন্নতাবাদীদের খবরের ক্ষেত্রে মৌখিক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে রাজ্য।
একটি ইংরেজি কাগজের সম্পাদক জানিয়েছেন, পুলওয়ামা কাণ্ডের পরে চার-পাঁচ মাস ধরে কোনও দৈনিকের প্রথম পাতায় থাকছে না আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের খবর। তাঁরা মনে করছেন, নিষেধ অমান্য করলে কোপ পড়তে পারে সরকারি বিজ্ঞাপনে। এই যদি অবস্থা হয় , তাহলে আগামী দিনের জন্য এটা খুবই ভয়াবহ ।

No comments:

Post a comment

loading...