Monday, 22 July 2019

দেদার জি এস টি ফাঁকি , খোদ অর্থমন্ত্রকই স্বীকার করছে , এটাই কি মোদীজির আচ্ছে দিন ?

ওয়েব ডেস্ক ২২ ই জুলাই ২০১৯: যত সময় যাচ্ছিলো , ততই মানুষের মনে প্রশ্ন জাগছিল "আচ্ছে দিন "প্রকৃতপক্ষে কাদের এসেছে ? সাধারণ মানুষের ? না অন্য কারুর ? তাদের এই প্রশ্ন জাগাটা অমুলূক কিছু নয় । কারণ সরকারে প্রথমবার যখন বিজেপি এসেছিল তখন বছরে দুকোটি বেকারকে চাকরি দেওয়ার ব্যাপারটা জুমলা ছাড়া কিছুই ছিল না ।প্রত্যেকের ব্যাঙ্ক খাতে পনেরো লক্ষ্য টাকা জমা পর্বে , সেটাও জুমলাই ছিল । কিন্তু আচ্ছে দিন অবশ্যই এসেছে , নীরব মোদী , বিজয় মালিয়া , মেহুল চোকসিদের মতো ব্যবসায়ীদের । যারা সবাই রিন্ খেলাপি । তবে এবার দেখা যাচ্ছে, ঋণের পাশাপাশি ‘জিএসটি খেলাপি’দের সংখ্যাও উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে দেশে।২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩৭,৯৪৬ কোটি টাকা এবং চলতি অর্থবর্ষের প্রথম তিন মাসে (এপ্রিল-জুন) ৬,৫২০ কোটি টাকার জিএসটি ফাঁকির হদিশ পেয়েছেন কর আধিকারিকরা। সম্প্রতি সংসদে এই তথ্য জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় অর্থ প্রতিমন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর। শুধু কর ফাঁকি দেওয়াই নয়, জাল ইনভয়েস তৈরি করে গত অর্থবছরে ১১,২৫১ কোটি টাকা এবং এ বছর এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিকে ২,৮০৫ কোটি টাকা কর ফেরতও নেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

গত বছরে জিএসটি আদায়ের বাজেট লক্ষ্যমাত্রা পূর্ণ না হওয়ার আশঙ্কায় ফেব্রুয়ারি মাসে সংশোধিত বাজেট অনুমানে ওই আদায়ের পরিমাণ ১ লক্ষ কোটি টাকা কমিয়ে আনে অর্থমন্ত্রক। কিন্তু, সেই সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রাও বাস্তবে পূরণ হয়নি। ফলে, এ বছর রাজকোষ ঘাটতি বাজেট লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে বেঁধে রাখতে মরিয়া নির্মলা সীতারামন এখন ফাঁপড়ে পড়ে জিএসটি আদায় বাড়ানোয় জোর দিচ্ছেন।

কর আদায় বাড়াতে তাঁর প্রথম লক্ষ্যই হবে করফাঁকি বন্ধ করা। তাই, ব্যবসায়ীদের বিক্রি, জিএসটি রিটার্ন প্রভৃতি ঘেঁটে জোর কদমে তথ্য-তল্লাশি শুরু করেছে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রক। জিএসটি শুরুর প্রথম বছরে জাল ইনভয়েস দেখিয়ে মোট ১২।৬৭ কোটি টাকার কর ফেরত নেওয়ার মাত্র পাঁচটি ঘটনার সন্ধান পাওয়া যায়। এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অপরাধে দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রথম বছরে মাত্র ১২।৬৭ কোটি টাকার তছরূপ ধরা পড়লেও, দ্বিতীয় বছরে জাল ইনভয়েস (কেনার বিল) দেখিয়ে করফাঁকি দেওয়ার ১,৬২০টি ঘটনার হদিশ মিলেছে, যেখানে মোট ১১,২৫১।২৩ কোটি টাকার করফাঁকি দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে ১৫৪ জনকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। তবে এর পরেও করফাঁকির ঘটনায় ইতি পড়েনি।

চলতি অর্থবর্ষের প্রথম তিন মাসেই জাল বিল তৈরি করে কর ফেরত নেওয়ার ৬৬৬টি ঘটনা সামনে এসেছে। মোট করফাঁকির পরিমাণ ২,৮০৪।৯৮ কোটি টাকা! গ্রেফতার করা হয়েছে ৪১ জন ব্যক্তিকে। জিএসটি শুরু হওয়ার পর ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষের জুলাই থেকে মার্চ মাসের মধ্যে ৪২৪টি করফাঁকির খোঁজ পাওয়া গিয়েছে এবং এর সঙ্গে জড়িত অর্থের পরিমাণ ১,২১৬ কোটি টাকা । এবার নির্মলা সীতারামনের নেতৃত্বে কি ভাবে জি এস টি কর আদায় করে কেন্দ্র সরকার এখন সেটাই দেখার ।

No comments:

Post a comment

loading...