Saturday, 13 July 2019

রাজনৈতিক ভাবে তৃণমূলের সাথে এঁটে উঠতে না পেরে এখন মমতার ফেস্টুন ছিড়ছে বিজেপি , বর্ধমানে

ওয়েব ডেস্ক ১৩ই জুলাই  ২০১৯: যত দিন যাচ্ছে বিজেপি পার্টিটা যেন হিংস্রতায় পরিণত হচ্ছে , এরকমই অভিমত যারা আদি কাল থেকে কংগ্রেস ও পরবর্তী  কালে তৃণমূল করে আসছে । কেননা যে দিকেই দেখছি সে দিকেই বিজেপির দলে সিপিএমের কিছু হার্মারদরা ঢুকে অশান্তির সৃষ্টি করছে । বাদ যাচ্ছেনা বর্ধমানের মতো জায়গাও । প্রসঙ্গত  ২১ জুলাইয়ের সমর্থনে লাগানো মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ছবি–সহ বড় বড় পতাকা–ফেস্টুন ছিঁড়ে দেওয়া ও তৃণমূল নেতার গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠল বিজেপি–র বিরুদ্ধে। পরপর এই ঘটনায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে বর্ধমানের দেওয়ানদিঘি ও মির্জাপুর এলাকায়।
এ ব্যাপারে বর্ধমান থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এই অভিযোগ পাওয়ার পরই তদন্ত শুরু করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ।মির্জাপুর তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি আদিত্যকুমার ঘোষ বৃহস্পতিবার বর্ধমান থানায় লিখিত অভিযোগ করে বলেছেন, গত লোকসভা নির্বাচনের ফল ঘোষণার পর থেকেই বর্ধমান ১ নম্বর ব্লকের মির্জাপুর গ্রামে বিজেপি–র হার্মাদরা তৃণমূলের নেতা ও কর্মীদের ওপর নানাভাবে আক্রমণ চালাচ্ছে। এলাকায় শান্তি–শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য অত্যাচারিত তৃণমূল নেতা–কর্মীরা মুখ বুজে সহ্য করে চলেছেন। কিন্তু আগামী একুশে জুলাই শহিদ দিবস উপলক্ষে ধর্মতলা যাওয়ার প্রস্তুতি হিসেবে মির্জাপুর ও দেওয়ানদিঘি গ্রামে প্রচুর বড় বড় ফ্লেক্স লাগানো হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর ছবি–সহ ওই সব ফ্লেক্সগুলিকে বুধবার রাতে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে দেয়। সেই সঙ্গে দলীয় পতাকাগুলিও ছিঁড়ে নর্দমায় ফেলে দেয়। এভাবে শান্ত মির্জাপুরকে অশান্ত করার চক্রান্ত শুরু করেছে। তাই  বিজেপি হার্মাদদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশের কাছে আবেদন জানিয়েছেন তিনি। বিদ্দ্যোজনেদের একাংশের অভিমত , রাজনীতিতে বিরোধী পক্ষ ছিল , আছে , এবং থাকবে , তবুও অন্য কোনো প্রতিপক্ষকে কমজোরির করার উদ্দেশ্যে হিংস্রতার শরণাপন্ন হওয়া এক দমই উচিত নয় ।

No comments:

Post a Comment

loading...