Sunday, 18 August 2019

কাশ্মীর সমস্যার সমাধান হল তো ? রেখে গেল কিছু প্রশ্ন

ওয়েব ডেস্ক ১৮ই অগাস্ট  ২০১৯:  ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নিজেকে ফেডারেলিজমের একজন উৎসাহদাতা হিসেবে চিত্রিত করতে পছন্দ করেন- যিনি কিনা রাজ্যগুলোকে আরও স্বাধীনতা দেয়ায় বিশ্বাস করেন।কিন্তু জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল ও রাজ্যকে ভেঙ্গে দুভাগ করা এবং যোগাযোগব্যবস্থা সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করে ফেলায় অনেকেই মনে করছেন এর ফলে ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় বড় ধরণের দুর্বলতা তৈরি হয়েছে।জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখ এখন সরাসরি দিল্লীর শাসনে থাকবে।গুলো অন্য রাজ্যের তুলনায় কমই স্বায়ত্তশাসনের অধিকার পাবে।
লন্ডন স্কুল অফ ইকনমিকসের প্রফেসর সুমান্ত্রা বোস যাকে বলছেন, "দিল্লীর গৌরবময় মিউনিসিপালিটি"।আর্টিক্যাল ৩৭০ ছিলো একটি সাংবিধানিক গ্যারান্টি। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই এটা আসলে প্রতীকী। কারণ প্রেসিডেন্সিয়াল ডিক্রির মাধ্যমে স্বায়ত্তশাসনের অনেক কিছু আগেই কেড়ে নেয়া হয়েছে।যেটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ তা হলো অনেকেই বলে থাকেন যে এটা একটা চেতনা যা ভারতীয় সংবিধানে যে মূল ধারা থেকে আলাদা যারা আছে বলে মনে করেন তাদের জন্য একটু জায়গা করে দেয়।

ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো সত্যিকার অর্থে অনেক কষ্টে অর্জিত।
তবে যুক্তরাষ্ট্র বা কানাডার মতো উন্নত দেশে যত সহজে ক্ষমতার ভাগাভাগিকে সংস্কৃতি ও ধর্মীয় বৈচিত্র্যের মাধ্যমে করা হয়েছে ভারতের মতো একটি গরীব দেশে সেটা তত সহজ নয়।
দিল্লী ভিত্তিক থিংক ট্যাংক সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চ এর প্রধান নির্বাহী ইয়ামিনি আইয়ার বলছেন , "সংবিধান একক ও যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে একটি ভারসাম্য নিশ্চিত করেছে"।
যদিও বিশ্লেষকরা অনেকেই ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোর বস্তুনিষ্ঠতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে থাকেন।
'সাংবিধানিক পদ্ধতি যেখানে কাজ করেনা সেখানে ক্ষমতাসীন সরকারের রাজনৈতিক নিয়োগপ্রাপ্তরা রাজ্য গভর্নর হিসেবে কাজ করেন'।এ ধরণের সরাসরি শাসন ১৯৫১ সাল থেকে ৯৭ সাল পর্যন্ত ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে অন্তত ৮৮ বার হয়েছে।

তাই প্রশ্ন জাগে , কাশ্মীর সমস্যা সমাধান হল তো ? না সিনেমা অনেকটাই বাকি আছে ?

No comments:

Post a Comment

loading...