Wednesday, 2 October 2019

নিকাশি ব্যবস্থায় অষ্টরম্ভা , এখন ফারাক্কা বাঁধটাই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে বিহারের উপমুখ্যমন্ত্রীর

ওয়েব ডেস্ক ২রা অক্টোবর ২০১৯:বন্যা পরিস্থিতি প্রকট আকার ধারণ করার পরিপ্রেক্ষিতে ফারাক্কা বাঁধ ভেঙে দেওয়ার দাবি তুলেছেন  বিহার রাজ্যের জলসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রী সঞ্জয় কুমার ঝা।
গতকাল মঙ্গলবার সঞ্জয় কুমার ঝা এই দাবি করেন। তিনি বলেন, ফারাক্কা বাঁধ ভেঙে দেওয়া হোক। নইলে বন্যার জলনিষ্কাশনের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।ফারাক্কা বাঁধ কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে একটি প্রকল্প।প্রবল বৃষ্টি থেকে সৃষ্ট বন্যায় প্লাবিত হয়েছে বিহার, উত্তর প্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা। এ অবস্থায় বিহার সরকারের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে খুলে দেওয়া হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের ফারাক্কা বাঁধের সব স্লুইসগেট। ফলে প্রবল বেগে ফারাক্কার পানি গিয়ে পড়ছে বাংলাদেশে। এর প্রভাবে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় দেখা দিয়েছে প্রবল বন্যা।
ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহারে বন্যা পরিস্থিতি প্রকট আকার ধারণ করেছে। উত্তর প্রদেশে এই বন্যায় ইতিমধ্যে ১১১ জন ও বিহারে ৪০ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। প্রতিদিনই বাড়ছে পানি। প্লাবিত হচ্ছে নতুন এলাকা।বিহার ও উত্তর প্রদেশের জল  ঢুকে পড়ায় বন্যা দেখা দিয়েছে পার্শ্ববর্তী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গেও। পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলের ফুলহার, মহানন্দা ও কালিন্দী নদীর জল  বিপৎসীমার ওপর দিয়ে বইছে। প্লাবিত হয়েছে মালদহ ও মুর্শিদাবাদের বিস্তীর্ণ এলাকা। জলবন্দী হয়ে পড়েছে লাখো মানুষ। বন্যার পানির তোড়ে বর্ধমানে ভেসে গেছে একটি ফেরি। মুর্শিদাবাদে ভেসে গেছে একটি ভেসেল।

বন্যায় পানির চাপ বেড়ে যাওয়ায় পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদের ফারাক্কা বাঁধ ভেঙে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে সেখানকার বন্যা পরিস্থিতি দেখার জন্য রাজ্যের দুই মন্ত্রীকে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। তাঁরা মালদহ ও মুর্শিদাবাদের বন্যা পরিস্থিতি দেখবেন।

ফারাক্কা বাঁধ কর্তৃপক্ষ বলেছে, ফারাক্কায় গঙ্গার জল  বিপৎসীমার ৭ ফুট ওপর দিয়ে বইছিল। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাঁধের ১০৯টি স্লুইসগেট খুলে দিয়েছে তারা। স্লুইসগেট খুলে দেওয়ায় এই জল ছুটে যাচ্ছে বাংলাদেশের দিকে।

গতকাল বন্যা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্যের নদীগুলোর সংস্কার করছে না। ফারাক্কায়ও নদীর ড্রেজিং হচ্ছে না। এ নিয়ে বারবার চিঠি লিখলেও সাড়া মিলছে না। তাই বারবার বন্যা দেখা দিচ্ছে রাজ্যে।

বিহারে বন্যার কারণে রাজধানী পাটনায় জল বন্দী হয়ে পড়েন রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল কুমার মোদি। পরে জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা টিমের সদস্যরা (এনডিআরএফ) তাঁর বাসভবন থেকে পুরো পরিবারকে উদ্ধার করেন।

রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল কুমার জানিয়েছেন, বিহারের ১২টি জেলা প্রবল বন্যার কবলে পড়েছে।

No comments:

Post a Comment

loading...