Sunday, 17 November 2019

বিজেপি প্রভাব শুধু দেশেই নয় বিদেশেও ,পড়ুন

ওয়েব ডেস্ক ১৭ই নভেম্বর ২০১৯:  ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপ বিতর্ক এখনো মরে যায়নি। এরই মধ্যে অভিযোগ করা হয়েছে, গত জুলাইতে কানাডার নির্বাচনে ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি হস্তক্ষেপ করেছে। এখন ডিসেম্বরে হতে যাওয়া ব্রিটেনের নির্বাচনে ভারত  সরাসরি প্রভাব বিস্তারের ঘোষণা করেছে । বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বিজেপি প্রবাসী হিন্দুদের মধ্যে দারুণ ঐক্য গড়ে তুলেছে। এর ফলে এখন ভারত  সরাসরি যেকোনো দেশের পররাষ্ট্রনীতিকে প্রভাবিত করতে পারছে বলে খবর ।ওভারসিজ ফ্রেন্ডস অব দি বিজেপির সভাপতি কুলদ্বীপ সিং শেখাওয়াত বিজেপির অবস্থান স্পষ্ট করেছেন।
টাইমস অব ইন্ডিয়াকে তিনি জানান, ব্রিটেনের আসন্ন নির্বাচনে তারা বামপন্থি লেবার পার্টিকে নয়, কনজারভেটিভকে সমর্থন দেবে। কারণ লেবার পার্টির পররাষ্ট্রনীতি ভারতের জন্য ক্ষতিকর। গত ১৫ আগস্ট ও ৩ সেপ্টেম্বর ইন্ডিয়া হাউজের সামনে সহিংস বিক্ষোভে দলটির বেশ কয়েকজন এমপি অংশ নেন। কাশ্মীর ইস্যুতে হাউজ অব কমন্সে ভারতের পক্ষে কোনো লেবার এমপি টুঁ শব্দ করেননি। উল্টো দলীয় সম্মেলনে প্রস্তাব পাস করেছেন। কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ ইস্যু জেনেও তারা কেন এমন করলেন? নির্বাচনে আমরা তাদেরই সমর্থন দেব, যারা ভারতের পাশে রয়েছে। কুলদ্বীপের বিশ্বাস, প্রবাসী হিন্দুদের মধ্যে তাদের প্রচেষ্টা দারুণ ফল দিচ্ছে। ৪০টি আসনের (নিম্নকক্ষের ৬ শতাংশ) এসব ভাসমান ভোটার লেবারকে ধসিয়ে দিতে যথেষ্ট। সাম্প্রদায়িকভাবে নয়াদিল্লি নিজ স্বার্থে সরাসরি এগুলো নিয়ন্ত্রণ করে। ইতিমধ্যে ব্রিটেনে বেশ কয়েকজন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।

ফেইসবুক, মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপে নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন প্রবাসী ভারতীয়রা। ভারত ও হিন্দুবিরোধী অবস্থানের জন্য লেবার পার্টিকে ভোট না দেওয়ার আহ্বান-সংক্রান্ত মেসেজ দি গার্ডিয়ান প্রকাশ করেছে। এর একটি হলো, লেবার পার্টি এখন পাকিস্তান সরকারের মুখপাত্র। তারা ভারত, হিন্দু ও মোদির বিরোধিতা করছে। এদের যেসব হিন্দু সমর্থন করবে, তারা দেশদ্রোহী।২০১৮ সালে এক গবেষণায় বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের নির্বাচনে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে প্রবাসীদের মাধ্যমে ভারত প্রভাব বিস্তার করেছে। জুলাইতে কানাডার নির্বাচনে হস্তক্ষেপের পর সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসীদের বিশাল জমায়েত করে সরাসরি প্রেসিডেন্ট ডোনান্ড ট্রাম্পকে বিজয়ী করার আহ্বান জানান মোদি। তবে প্রবাসে বিজেপির এমন নির্বাচনী হস্তক্ষেপকে অবৈধ বলেছেন ব্রিটিশ লেখক পিটার জুকস। তিনি বলেন, বিদেশের নির্বাচনে বিজেপির এমন নগ্ন হস্তক্ষেপ প্রবাসীদের জন্য অমঙ্গল ডেকে আনবে।

No comments:

Post a Comment

loading...