Friday, 15 November 2019

ব্যাধিতে ছেয়ে গেছে দিল্লি ,প্রধানমন্ত্রীর , স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয় থাকা সত্ত্বেও

ওয়েব ডেস্ক ১৫ই নভেম্বর ২০১৯:  অসুখটা  পুরোনো , পুরোনো প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়টাও , তবুও কেন এমন অবস্থা দিল্লির ? কেন এতো দূষণ ছড়ালো দিল্লিতে ? যখন দেশের রাজধানী আর একটু সতর্কতা কেন অবলম্বন করা গেল না ? এখন সরাসরি না হলেও পরোক্ষে কেন্দ্র সরকারের দিকে আঙ্গুল তুলছে দিল্লিবাসী । ৩৭০ রের মতো কঠিন জিনিস নির্দ্বিধায় বিলুপ্ত করতে পারছে কেন্দ্র সরকার , দিল্লির আবহ বিষয়ে তাদের কি কোনো দায়িত্ব ছিল না ? প্রসঙ্গত ব্যাধি হলো বায়ুদূষণ, দিন দিন যার মাত্রা বেড়েই চলেছে। চলতি সপ্তাহের মাঝামাঝি অবস্থা এতটাই অসহনীয় হয়ে উঠেছে যে আগামী দুই দিন রাজধানীর সব স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অবস্থা সামাল দিতে চলতি মাসের শুরু থেকে রাজধানীতে আরও একবারের জন্য চালু করা হয় ‘অড-ইভন’ বা ‘জোড়-বিজোড়’ গাড়ি চলাচল।
এ ব্যবস্থায় ছুটির দিন বাদ দিয়ে অন্য সব দিনে বেসরকারি গাড়ি চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি থাকে। গাড়ির নম্বরপ্লেটের শেষের সংখ্যা জোড় হলে তা যেদিন চলবে, সেদিন বিজোড় সংখ্যার গাড়ি চলবে না। আবার বিজোড় সংখ্যার গাড়ি যেদিন রাস্তায় নামবে, সেদিন অচল থাকবে জোড় সংখ্যার গাড়ি। দিল্লি সরকারের দায়িত্ব নেওয়ার পর আম আদমি পার্টির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল এ ব্যবস্থা চালু করেছিলেন। তাতে সাময়িকভাবে পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছিল। বৃহস্পতিবার কেজরিওয়াল বলেছেন, অবস্থার উন্নতি না হলে ‘জোড়-বিজোড়’ব্যবস্থা আরও কিছুদিন চালু রাখা হবে। মাসের শুরুতে চালু হওয়া এ ব্যবস্থা আজ শুক্রবার শেষ হওয়ার কথা।শুধু স্কুল-কলেজ বন্ধই নয়, রাজধানী দিল্লি ও তার আশপাশের সব অঞ্চলে যাবতীয় নির্মাণকাজ বন্ধ রাখারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। নির্মাণকাজের জন্য বাতাসে ধূলিকণার পরিমাণ বেড়ে যায়। এই ধূলিকণা, ইংরেজিতে যাকে ‘পার্টিকুলেট ম্যাটার’ বলা হয়, তা ফুসফুসে জমা হয়ে শ্বাসকষ্ট সৃষ্টি করে। মানুষজনকে, বিশেষ করে শিশুদের এর জন্য বেশি ভুগতে হয়। দিল্লির লাগোয়া হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশের ফরিদাবাদ, গুরুগ্রাম, সোনেপত, বাহাদুরগড়, বাগপত, ভিওয়াদি, নয়ডা, গ্রেটার নয়ডার যেসব কয়লাভিত্তিক শিল্প এখনো গ্যাসভিত্তিক হয়ে ওঠেনি, তাদের কারখানা বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। গ্রিন ট্রাইব্যুনাল জানিয়েছে, ১৫ নভেম্বরের পর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে পরবর্তী নির্দেশ দেওয়া হবে।

No comments:

Post a Comment

loading...