Friday, 14 February 2020

দিল্লি ভোটে হারের দায় নিজেদের নেতাদের কাঁধেই চাপাতে ব্যস্ত অমিত শাহ

ওয়েব ডেস্ক ১৪ ই ফেব্রুয়ারী   ২০২০ :দিল্লি ভোটে জেতার জন্য চেষ্টার কোনও ত্রুটি রাখেননি ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিজেপি নেতা অমিত শাহ। কিন্তু তার সে প্রচেষ্টা মাঠে মারা গেছে। নির্বাচনে ব্যাপক ভোটে জয়ী হয়েছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল আম আদমি পার্টি। দিল্লির ৭০ আসনের মধ্যে বিজেপির পেয়েছে মাত্র ৮। কেজরিওয়ালের বাক্সে গেছে বাকি ৬২ আসন।ফলাফল প্রকাশের পর দু’দিন প্রকাশ্যে আসেননি অমিত শাহ। পরে বৃহস্পতিবার দেখা দিলেন এবং হার কবুল করে নিলেন। এরপর ভুল স্বীকার করে বললেন, ‘দেশকে গদ্দারকো, গোলি মারো শালো কো’ বা ‘দিল্লি ভোট ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ’— বিজেপি নেতাদের এ ধরনের মন্তব্যের জন্য ভোটে খেসারত দিতে হয়েছে দলকে। এ সব বলা ‘উচিত’ হয়নি।’যদিও প্রচারে বাজে কথা বলার ক্ষেত্রে কম যাননি অমিত শাহ নিজেও। বলেছিলেন, ‘ইভিএমের বোতাম এত জোরে টিপুন যেন শাহিন বাগে কারেন্ট লাগে।’ অনুরাগ ঠাকুর, কপিল মিশ্রেরাও মেতে উঠেছিলেন বিতর্কিত মন্তব্যে।
এই ভোট জিততে অমিত শাহ আয়োজন করেছিলেন ৫ হাজারের বেশি সভা। শত শত বিজেপি নেতা ছুটেছেন দিল্লির অলিতে-গলিতে। শাহ নিজেও দুই ডজনের বেশি সভা করেছেন। এত মেহনতের পরেও হার কী করে?এক টিভি চ্যানেলের অনুষ্ঠানে এই প্রশ্নের জবাবে শাহ বলেন, ‘পরিশ্রম সব ভোটেই করি। আর হার এই প্রথম বার হয়নি। ভেবেছিলাম, সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাব। স্বীকার করতে দ্বিধা নেই, মূল্যায়ন ভুল হয়েছে। আমার বেশির ভাগ মূল্যায়ন ঠিক হয়, এ বার ভুল হল।’
নেতাদের উস্কানিমূলক মন্তব্য সম্পর্কে অমিত শাহ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে ‘লাঠিপেটা’ করা নিয়ে রাহুল গান্ধীর মতো মন্তব্যের মতো বিজেপি নেতাদের বক্তব্যও দুর্ভাগ্যজনক। তাদের এসব বলা উচিত হয়নি। দল তখনই দূরত্ব তৈরি করেছে। হতে পারে এরও খেসারত দিতে হয়েছে ভোটে।’
এ নিয়ে বিরোধীদের প্রশ্ন, ভোটের প্রচার চলাকালীন কেন মুখ বুজে ছিলেন শাহ? কেন কুমন্তব্য করা থেকে নেতাদের বিরত করেননি তিনি। ওই বিরোধী নেতাদের মতে, অমিত শাহ আজ ভুল কবুল করেননি। স্বীকার করেছেন তার কৌশল কাজে আসেনি, এই যা।

No comments:

Post a Comment

loading...