Wednesday, 19 February 2020

ভারতীয় রাজনীতিতে প্রতিহিংসার রাজনীতি ছিলোনা , কাদের আমলে এলো বলার জন্য কোনো পুরস্কার নেই

ওয়েব ডেস্ক ১৯ ই ফেব্রুয়ারী   ২০২০ :নাম না করে ভারতের নরেন্দ্র মোদি সরকারকে টলিউড অভিনেতা এবং তৃণমূলের সাবেক সাংসদ তাপস পালের মৃত্যুর জন্য কার্যত কাঠগড়ায় তুললেন মমতা ব্যানার্জি। তিনি বললেন, তাপস পালকে লাঞ্ছিত, বঞ্চিত এবং অপমানিত হতে হয়েছে ১৩ মাস ধরে। তাই অকালে চলে গেল তাপস। আজ বুধবার সকালে রবীন্দ্রসদনে তাপস পালের মরদেহে শ্রদ্ধা জানাতে যান মমতা। সেখানে কিছুক্ষণ সময় কাটানোর পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ করেন এবং নাম না করে মোদি সরকারকেই তাপসের মৃত্যুর জন্য দায়ী করেন। এর আগে রোজভ্যালি নামক এক চিটফান্ড কম্পানির সাথে সম্পর্কের কারণে ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই তাপস পালকে গ্রেপ্তার করে ২০১৭ সালে এবং ১৩ মাস বন্দি থাকেন তিনি। ‘কোনো বিচার ছাড়া এভাবে বন্দি রাখা হয় কারণ তাপস একটা কম্পানির ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর ছিল। এভাবে প্রতিহিংসার রাজনীতির জন্য অকালে চলে যেতে হলো তাপসকে’, বলেন মমতা।
এই প্রসঙ্গে আলাপের সময় মমতা আরো দুই মৃত্যুর প্রসঙ্গ তুলে আনেন। তিনি বলেন, আমাদের এমপি সুলতান আহমেদও এভাবে প্রতিহিংসার কারণে মারা গেল। আমাদের এমপি প্রসূন ব্যানার্জির বউও মারা যান। ভারতে বেশকিছু দুর্নীতির মামলায় তৃণমূলের নেতা সুলতান ও প্রসূনসহ অনেক নেতার নাম ওঠে এসেছে গত কয়েক বছরে, যা মমতার মতে রাজনৈতিক প্রতিহিংসা। টলিউডের সবচেয়ে বড় প্রযোজক শ্রীকান্ত মোহতাও এমন এক দুর্নীতি মামলায় বন্দি। প্রাক্তন সাংবাদিক সুমন চ্যাটার্জিও বন্দি। এই বিষয় নিয়ে মমতা ব্যানার্জি বলেন, খুনের আসামি তিন মাসে জামিন পায়। অথচ তাদের এক বছর ধরে বন্দি করে রেখেছে। আইন নিজের পথে চলুক, কিন্তু প্রতিহিংসা মানা যায় না।

No comments:

Post a Comment

loading...