Friday, 13 March 2020

দীর্ঘ টানাপোড়েনের পর কুলদীপের ১০ বছরের জেল, দূরত্ব বজায় রাখতে ব্যস্ত বিজেপি

ওয়েব ডেস্ক ১৩ই  মার্চ ২০২০ :২০১৯ সালের ডিসেম্বরে এক নাবালিকা  ধর্ষণের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় যাবজ্জীবন সাজা দেওয়া হয়  ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বহিষ্কৃত নেতা কুলদীপ সিং সেঙ্গারকে। এবার ওই নাবালিকা বাবাকে হত্যার দায়ে দিল্লির আদালত তাকে আরও ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন।   ধর্ষণের শিকার নাবালিকা  ২০১৭ সালে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে দেশব্যাপী আলোচনায় আসে মামলাটি। অভিযোগ আনার পর সন্দেহজনক পরিস্থিতিতে মারা যান নাবালিকার  বাবা। বেআইনি অস্ত্র বাড়িতে রাখার অভিযোগে ২০১৮ সালের ৩ এপ্রিল গ্রেফতার করা হয় তার বাবাকে। পরদিন বিচারিক হেফাজতে মারা যান তিনি।
সূত্রের খবর , খুনের সময় কুলদীপ নিজে দিল্লিতে থাকলেও নিয়মিত ভাবে দোষী পুলিশকর্মীদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছিল সে। ওই ব্যক্তিকে রাস্তা থেকে পুলিশ স্টেশনে তুলে নিয়ে গিয়ে প্রচণ্ড মারধর করা হয়। পরে হাসপাতালে মৃত্যু হয় ৫৫ বছরের ওই ব্যক্তির। ময়নাতদন্তে তাঁর শরীরে ১৪টি গুরুতর আঘাত পাওয়া যায়।গত বছর অগস্টেই কূলদীপের বিরুদ্ধে ধর্ষণের শিকার নাবালিকার  বাবাকে ভুয়ো অস্ত্র আইনে ফাঁসানো ও মারধরের অভিযোগে চার্জ গঠন করা হয়। ধর্ষণের অভিযোগকে ধামাচাপা দিয়ে ওই ব্যক্তির মুখ বন্ধ করতেই বিশাল ষড়যন্ত্র রচিত হয় বলে মন্তব্য করেছেন আদালত।

২০১৯ সালের ২৮ জুলাই ধর্ষণের শিকার ওই নাবালিকা  ও তার আত্মীয়কে বহনকারী একটি গাড়িতে ধাক্কা দেয় এক ট্রাক। এতে তার পিসি  মারা গেলে পরিবারের তরফ থেকে দুর্ঘটনাটিকে পরিকল্পিত বলে অভিযোগ তোলা হয়। পরে তাদের পরিবারের জন্য বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে আদালত।

উত্তর প্রদেশের বাঙ্গেরমাও থেকে বিজেপি’র মনোনয়নে চারবার এমএলএ (লোকসভার সদস্য) নির্বাচিত হন কুলদীপ সিং সেঙ্গার। তার বিরুদ্ধে শিশু অপহরণ ও ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হওয়ার পর ২০১৯ সালের আগস্টে বিজেপি থেকে বহিষ্কার করা হয় তাকে।

No comments:

Post a comment

loading...