Tuesday, 28 April 2020

এই করোনা দুর্যোগের মধ্যেও পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং তাজিকিস্তান সীমান্তে বিমানবন্দর গড়ছে চীন

ওয়েব ডেস্ক ২৮ শে এপ্রিল ২০২০:জিনজিয়াং উইঘুর স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলের টাক্সকরগান নামক কাউন্টির পাইমারস মালভূমিতে বিমানবন্দর নির্মাণ শুরু করেছে চীন। পাকিস্তান, আফগানিস্তান এবং তাজিকিস্তান; এই তিনটি দেশের সীমান্তের কাছে নতুন করে নির্মাণ করা হচ্ছে এই বিমানবন্দর। সোমবার থেকে নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। এটির কাজ শেষ হবে ২০২২ সালের মাঝামাঝি সময়ে।
আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা যায়, এই প্রকল্পের মোট বিনিয়োগ ধরা হয়েছে প্রায় এক দশমিক ৬৩ বিলিয়ন চীনা ইউয়ান (প্রায় দুইশ ৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। বিমানবন্দর লেআউট অনুসারে, তিন হাজার আটশ মিটার দীর্ঘ এবং ৪৫ মিটার প্রশস্ত একটি রানওয়ে থাকবে। অন্যান্য সুবিধাগুলোর মধ্যে থাকবে তিন হাজার বর্গমিটারের একটি টার্মিনাল এবং একটি চার স্ট্যান্ডের এপ্রোন । বিমানবন্দরটি দিয়ে বছরে এক লাখ ৬০ হাজার যাত্রী এবং চারশ টন কার্গো আনা-নেওয়া করা যাবে।বিমানবন্দরটিকে চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর (সিপিসি) এবং বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের (বিআরআই) একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প হিসেবে ধরা হচ্ছে। এটি সামগ্রিকভাবে টাক্সকরগান এবং জিনজিয়াংয়ের অর্থনীতি বিকাশে সহায়তা করবে। জিনজিয়াংয়ের সিভিল এভিয়েশন প্রশাসনের উপ-পরিচালক জুহা জিয়াং বলেন, চীন থেকে মধ্য এশিয়া এবং দক্ষিণ এশিয়ার দিকে একটি নতুন ‘এয়ার প্যাসেজ’ তৈরি করবে।
বিমানবন্দরটি চীনে আরো অনেক পর্যটক নিয়ে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। টাক্সকরগানের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং অনন্য তাজিক সংস্কৃতির জন্য এই অঞ্চলটি পর্যটকদের জন্য পছন্দের। আর নতুন করে এই বিমানবন্দর চালু হলে পর্যটকের পরিমাণ আরো ব্যাপকভাবে বাড়বে।
বিমানবন্দরটির নির্মাণ সংস্থা জানিয়েছে, এটির কাজ করতে গিয়ে একাধিক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হচ্ছেন তারা। করোনাভাইরাস বিস্তার রোধে এখনো কাজ করছে চীন। এছাড়া এই মালভূমির উচ্চতার কারণেও ভোগতে হচ্ছে কর্মীদের। সাংহাই রোড অ্যান্ড ব্রিজ গ্রুপের উপ-মহাব্যবস্থাপক ঝোউ ইয়েফেং বলেন, অনেক সমস্যা থাকার পরও আমি বিশ্বাস করি সময় মতো নির্মাণ কাজ শেষ করতে পারবো।

No comments:

Post a comment

loading...