Sunday, 14 June 2020

চীনের উস্কানিতে নেপাল বিতর্কিত মানচিত্র পাস্ করাল,নিজেদের ক্ষোভের কথা জানাল ভারত

ওয়েব ডেস্ক ১৪ই জুন  ২০২০:শনিবার নেপালের পার্লামেন্টে নতুন ম্যাপ বিল পাস করার তীব্র সমালোচনা করেছে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়।
কেন্দ্রীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন, নয়াদিল্লি গোটা বিষয়টিকে একেবারেই সমর্থন করছে না। নেপালের এই কাজ নিয়ে ভারত যে অসন্তুষ্ট তা সাফ জানিয়ে দিয়েছে ভারত। ফলে নেপাল ও ভারতের মধ্যে ভাঙ্গন তৈরি হতে শুরু করেছে ,seta সহজেই অনুমেয় ।



অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেন, নেপালের এই নতুন ম্যাপ একেবারেই বাস্তবসম্মত নয়। কোনও তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে এটা তৈরি করা হয়নি। ভারত ও নেপালের মধ্যে যে আলোচনার রাস্তা খোলা ছিলো, তাকে জটিল করে ফেললো এই ম্যাপ।

উল্লেখ্য, গত শনিবার ভারতের কালাপানি, লিমপিয়াধুরা এবং লিপুলেখ এই তিনটি অংশকে নিজেদের বলে দাবি করে নয়া মানচিত্র প্রকাশ করে নেপাল সরকার। নেপালের জাতীয় আইনসভায় সর্বসম্মতভাবে প্রস্তাব পাশ করিয়ে নেয় নেপাল সরকার।

এরই মাঝে গত শুক্রবার ভারতের বিহার নেপাল সীমান্তে নেপালি পুলিশের গুলিতে এক ভারতীয় যুবকের মৃত্যু ঘটে। সেই উত্তেজনার মধ্যেই নয়া বিতর্কিত মানচিত্র পাস করেছে নেপাল।

শনিবার নেপালের ২৭৫ আসন বিশিষ্ট সংসদে এই বিলের পক্ষে ভোট পড়ে মোট ২৫৮ টি। সংবিধান সংশোধনী এই বিল পাশ করতে বিশেষ অধিবেশন ডাকে নেপাল সংসদ। বিরোধী নেপাল কংগ্রেস সেই বিল সমর্থনে সম্মতি দিয়েছিলো। এই বিল পাশ হওয়ার ফলে স্বভাবতই কূটনৈতিক উত্তেজনা বাড়বে ইন্দো নেপাল সম্পর্কের মধ্যে।

এদিকে ভারত নেপাল সীমান্ত নিয়ে নেপালের এই প্রতিক্রিয়ার পিছনে অন্য কোনও শক্তি কাজ করছে বলে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ভারতের সেনাপ্রধান। ভারতের সেনাপ্রধান এম নারভাবে জানান, নেপালের এই আস্ফালনের পিছনে রয়েছে প্রত্যক্ষভাবে চীনের মদত। কাঠমান্ডু এবং নয়াদিল্লির মধ্যে সুসপম্পর্কে চিড় ধরাতে চাইছে চীন। তবে ভারতের এই অভিযোগ জোড়ালোভাবে প্রত্যাখ্যান করেছে নেপাল।

কাঠমান্ডু সরকারের অভিযোগ, সীমান্ত বিরোধ নিয়ে ভারতের কাছে যে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছিল নেপাল, তাতে কোনও সাড়া দেয়নি নয়াদিল্লি।

প্রসঙ্গত, করোনা সঙ্কটের মধ্যেই সীমান্ত এলাকার দখল নিয়ে নেপালের সঙ্গে বিরোধে জড়িয়ে পড়েছে ভারত। সম্প্রতি লিপুলেখ গিরিপথ থেকে কৈলাস-মানস সরোবরে যাওয়ার জন্য একটি সড়ক উদ্বোধন করেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। তাতে প্রতিবাদ জানায় নেপাল সরকার। এরপর তারা সীমান্তের লিমপিয়াধুরা, কালাপানি ও লিপুলেখকে নেপালের অংশ দাবি করে নতুন মানচিত্র প্রকাশ করে। শুধু তাই নয়, গতকাল শনিবার নেপাল পার্লামেন্ট ওই মানচিত্র অনুমোদন করেছে।

No comments:

Post a comment

loading...