Tuesday, 28 July 2020

খারাপের থেকেও খারাপ সম্পর্ক এখন মার্কিন-চীনের

ওয়েব ডেস্ক ২৮শে জুলাই ২০২০:পারমাণবিক শক্তিধর দুই দেশ যুক্তরাষ্ট্র আর চীনের মধ্যে বেশ কিছুদিন ধরেই উত্তেজনা বাড়ছে। তবে গত এক সপ্তাহের ঘটনায় তাদের সেই সম্পর্ক একেবারে যেন তলানিতে এসে ঠেকেছে। কিন্তু নতুন এই মার্কিন-চীন দ্বন্দ্বের পেছনে কী উদ্দেশ্য কাজ করছে? এই উত্তেজনা-বৃদ্ধি কী পরিণতি ডেকে আনতে পারে?

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টনে চীনা কনস্যুলেট বন্ধ করে দেওয়ার আদেশের পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে চেংডুর মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছে বেইজিং। এর মধ্যেই চেংডু কনস্যুলেট ছাড়তে শুরু করেছেন আমেরিকান কূটনীতিকরা।

হিউস্টনের কনস্যুলেট থেকে চীন বুদ্ধিবৃত্তিক সম্পদ ‘চুরি’ করার তৎপরতা চালাচ্ছিল বলে অভিযোগ আনে মার্কিন প্রশাসন।
যুক্তরাষ্ট্রের দিক থেকে একটি বিদেশী মিশন বন্ধ করে দেওয়া নজিরবিহীন কিছু নয়। তবে এ ধরনের পদক্ষেপ সচরাচর ঘটে না এবং একবার ঘটে গেলে তা থেকে পিছিয়ে আসা কঠিন। মনে রাখতে হবে, চেংডুতে যা বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে তা একটি কনস্যুলেট, দূতাবাস নয়। তাই এখানে পররাষ্ট্র নীতিসংক্রান্ত কাজকর্ম হয় না।

কিন্তু বাণিজ্য এবং বৈদেশিক কর্মকাণ্ডের আওতা বাড়ানোর ক্ষেত্রে এর একটি ভূমিকা আছে। যেহেতু হিউস্টনে চীনা কনস্যুলেট বন্ধ করে দেওয়ার প্রতিশোধ হিসেবে চেংডুর মার্কিন কনস্যুলেট বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে-তাই এতে যে কূটনৈতিক অবকাঠামোর মাধ্যমে দু’দেশের যোগাযোগগুলো হয়–তার একটা ক্ষতি তো হচ্ছেই।

এর আগে পাল্টাপাল্টি ব্যবস্থা হিসেবে দু’দেশকে ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ, কূটনৈতিক ভ্রমণের নতুন নিয়মকানুন, আর বিদেশী সংবাদদাতাদের বহিষ্কারের মত পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে। এবং সাধারণভাবে বলা যায়, যুক্তরাষ্ট্রই বেশি আক্রমণাত্মক ভূমিকা নিয়েছে।
সব দেশেই বিদেশী মিশনগুলো থেকে কিছুটা গুপ্তচরবৃত্তি চালানো হয়ে থাকে- এটা মোটামুটি ধরেই নেওয়া হয়। কিন্তু মার্কিন কর্মকর্তারা বলছেন, হিউস্টনে যা হচ্ছিল তা গ্রহণযোগ্য মাত্রার চেয়ে অনেক বেশি।
মার্কিন প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বলছেন, হিউস্টন কনস্যুলেটটি অর্থনৈতিক গুপ্তচরবৃত্তি এবং প্রভাব বিস্তারের ক্ষেত্রে সবচেয়ে খারাপ দৃষ্টান্ত স্থাপন করছিল এবং তাদের মতে সবগুলো চীনা কূটনৈতিক স্থাপনাতেই এটা চলছে। সে কারণেই এই কর্মকর্তারা বলছেন, তারা চীনকে একটা শক্ত বার্তা দিতে চেয়েছিলেন যে এগুলো আর সহ্য করা হবে না।

এ মাসের প্রথম দিকে এফবিআইয়ের পরিচালক ক্রিস্টোফার রে একটি ভাষণ দিয়েছিলেন, যাতে তিনি বলেন, গত এক দশকে মার্কিন স্বার্থের প্রতি চীনা হুমকি অত্যন্ত দ্রুতগতিতে বৃদ্ধি পেয়েছে।

তিনি আরও বলেন, তাকে এখন গড়ে প্রতি ১০ ঘণ্টায় একটি নতুন কাউন্টার ইনটেলিজেন্স তদন্ত শুরু করতে হচ্ছে- যার সঙ্গে চীন সম্পর্কিত। তবে বেজিং সবসময়ই এসব অভিযোগকে বিদ্বেষমূলক অপপ্রচার বলে উড়িয়ে দিয়েছে।

তা ছাড়া সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সময় মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের এশিয়া বিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা ড্যানি রাসেল মনে করেন, এটা হয়তো প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের রাজনৈতিক সমস্যা থেকে অন্যদিকে দৃষ্টি ঘুরিয়ে দেওয়ারও একটা চেষ্টা হতে পারে।

তাহলে কি এর সঙ্গে আসন্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের একটা সম্পর্ক আছে? এর উত্তর ‘হ্যাঁ’ এবং ‘না’ দুটোই হতে পারে। ‘হ্যাঁ ’ উত্তরের পক্ষে বলা যায়, ট্রাম্প এখন তার নির্বাচনী প্রচারাভিযানে চীনবিরোধী কথাবার্তা পুরোপুরিভাবে ব্যবহার করছেন। তার প্রচারকৌশলবিদরা মনে করেন এটা ভোটারদের মনে দাগ কাটবে।

ট্রাম্পের ২০১৬ সালের নির্বাচনী বিজয়ের আগেও চীনের ব্যাপারে কঠোর হওয়ার কথা বলা হয়েছিল।
এর সঙ্গে এবার যোগ করা হচ্ছে করোনাভাইরাস মহামারির ক্ষেত্রে চীনের ভূমিকা। এই সংকটে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যা করেছেন তাতে তার জনপ্রিয়তার গুরুতর ক্ষতি হয়েছে, কিন্তু তার বার্তাটা হচ্ছে, কোভিড বিপর্যয়ের জন্য তিনি নন, বরং দায়ী হচ্ছে চীন।

আর ‘না’ উত্তরের পক্ষে যুক্তি হলো- ট্রাম্পের প্রশাসনের মধ্যে যারা কট্টরপন্থী–যেমন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও-তারা দীর্ঘদিন ধরেই বেজিং-এর বিরুদ্ধে কঠোর নীতি নেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন। এখন যে দৃষ্টিভঙ্গী নেওয়া হয়েছে, তার ভিত্তি স্থাপন করেছেন এরাই।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বরং কট্টরপন্থীদের পরামর্শ এবং তার নিজের একটা বাণিজ্য চুক্তি ও চীনা নেতা শি জিনপিং-এর সঙ্গে তার ‘বন্ধুত্ব’ বাড়ানোর আকাঙ্ক্ষার মধ্যে একটা দোদুল্যমান অবস্থায় ছিলেন। তবে এখন কনস্যুলেট বন্ধ করার ঘটনায় আভাস মিলছে যে মার্কিন প্রশাসনের ভেতরে ‘হক‌’ বা কট্টরপন্থীরা এখন শক্তিশালী হয়ে উঠেছে ।

করোনাভাইরাস পৃথিবীতে যে দুর্যোগ নিয়ে এসেছে-তার ব্যাপারে চীনা সরকারের স্বচ্ছতার অভাব ওয়াশিংটনে ক্রোধ সৃষ্টি করেছে। আর এই ক্রোধ মার্কিন প্রশাসনের কট্টরপন্থীদের জন্য সহায়ক হয়েছে।


No comments:

Post a comment

loading...