Tuesday, 4 August 2020

প্যাংগং লেকের উত্তরের গ্রীন টপ এখনও নিজেদেরই দখলে রেখেছে চীনা সেনা

ওয়েব ডেস্ক ৪ঠা  অগাস্ট ২০২০:পঞ্চমবার চীন-ভারত কোর কম্যান্ডার পর্যায়ের বৈঠকের পরেও সমাধানসূত্র মেলেনি। প্যাঙ্গং লেকের ফিঙ্গার এলাকা, দেপসাং সমতলভূমি থেকে সেনা সরাতে নারাজ চীন। প্যাঙ্গং লেকের উত্তরে সবুজে ঢাকা বিস্তীর্ণ উপত্যকাতেও ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে লাল ফৌজ। ওই এলাকা ভারতীয় সেনাবাহিনীর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। চীনের সেনা ওই উপত্যকায় নিজেদের আধিপত্য কায়েম রাখায় সেখানে ভারতীয় সেনার টহলদারি কার্যত বন্ধ।
এদিকে গোগরার পেট্রল পয়েন্ট ১৭এ, দেপসাং ভ্যালির কাছে ১৩ নম্বর পেট্রল পয়েন্টেও চিনা বাহিনী এখনও সক্রিয়। রোববার পঞ্চম দফায় চুসুল সীমান্ত লাগোয়া চীন-নিয়ন্ত্রিত মলডোতে বৈঠক হয় ভারতীয় সেনার ১৪ নম্বর কোরের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল হরেন্দ্র সিংহ এবং চীনের শিনজিয়াং মিলিটারি ডিস্ট্রিক্ট কমান্ডার মেজর জেনারেল লিউ লিনের।
পূর্ব লাদাখের বেশ কয়েকটি স্পর্শকাতর এলাকা থেকে সেনা সরাতে রাজি নয় চীন। লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় শান্তি ফিরিয়ে আনতেই দুই দেশের মধ্যে সামরিক ও কূটনৈতিক স্তরে আলোচনা চলছে। প্যাঙ্গং লেক সহ পূর্ব লাদাখের একাধিক এলাকা থেকে সেনাবাহিনী সম্পূর্ণ প্রত্যাহারের জন্য চীনের উপর চাপ বাড়িয়েছে ভারত। কিন্তু গালওয়ান নদী উপত্যকা, গোগরা, হট স্প্রিং সহ কিছু এলাকায় মুখোমুখি অবস্থান থেকে সামান্য সেনা পিছনো (ডিসএনগেজমেন্ট) ছাড়া তেমন কোনও কার্যকরী পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি চীনকে।

আদতে গালওয়ানে সেনার সংখ্যা সামান্যই কমেছে, কিন্তু পরিবর্তে উত্তর লাদাখের দেপসাং ভ্যালিতে নতুন করে সেনা মোতায়েন শুরু করেছে চীন। প্যাঙ্গং লেকের উত্তরে সবুজে ঢাকা উপত্যকাও লাল ফৌজের নিশানায় রয়েছে। ৫০০০ মিটার বিস্তীর্ণ এই উপত্যকাকে বলে ‘গ্রিন টপ’ । গত ১৫ জুন প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় দুই দেশের বাহিনীর রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের পরে এই উপত্যকাতেও ঢুকে আসে চীনের বাহিনী। এরপরে বহুবার দুই দেশের সেনা কম্যান্ডার পর্যায়ের বৈঠকে গ্রিন টপ থেকে সেনা সরাতে বলা হয় চীনকে



গত সপ্তাহেই চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন দাবি করেছিলেন, সমস্ত বেস পয়েন্ট থেকেই সেনা সরিয়ে নিয়েছে চীন। কিন্তু ভারতীয় সেনা সূত্র জানাচ্ছে, প্যাঙ্গং লেকের ফিঙ্গার পয়েন্টগুলো তো বটেই সবুজে ঘেরা ওই উপত্যকাও নিজেদের দখলে রেখেছে চীনা বাহিনী। ফলে ওই এলাকায় পৌঁছতে পারছে না ভারতীয় জওয়ানরা। গ্রিন টপ থেকে সোজা রাস্তা চলে গেছে পিপলস লিবারেশন আর্মির বেস ক্যাম্প অবধি।

সেখান থেকেই ওই এলাকার উপর নজর রেখেছে লাল ফৌজ। প্যাঙ্গং রেঞ্জের উত্তরে আট পাহাড়ি ফিঙ্গার পয়েন্টেও তৎপর চীনের সেনা। এতদিন ফিঙ্গার পয়েন্ট ৪ এলাকায় ভারতীয় বাহিনী টহল দিত। কিন্তু ফিঙ্গার পয়েন্ট ৮ দিয়ে ঢুকে এসে ফিঙ্গার ৪ ও ফিঙ্গার ৫ এর মধ্যবর্তী এলাকায় তাঁবু খাটিয়ে বসে গেছে লাল ফৌজ। ফলে ফিঙ্গার ৪ অবধি পৌঁছতে পারছে না ভারতীয় বাহিনী। এই ফিঙ্গার পয়েন্ট ৪ এলাকার কাছেই রয়েছে গ্রিন টপ। কাজেই চীনা বাহিনীকে টপকে ওই এলাকাতেও যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

এদিকে গালওয়ানের পেট্রল পয়েন্টগুলোতেও সম্পূর্ণ ডিসএনগেজমেন্ট এখনও হয়নি। পেট্রোলিং পয়েন্ট বা পিপি ১৫ রয়েছে গালওয়ান উপত্যকা বরাবর। ১৫ জুন সংঘাতের পরে গালওয়ান নদীর উপরে কালভার্ট তৈরি করে অস্ত্রশস্ত্র বয়ে আনা শুরু করে চিনের বাহিনী। নদী উপত্যকার আশপাশে তৈরি করে সামরিক পরিকাঠামো।



অন্যদিকে, পিপি ১০, পিপি ১১, পিপি ১২ ও পিপি ১৩ পয়েন্ট রয়েছে উত্তর লাদাখে, দেপসাং সমতলভূমি বরাবর। রাকি নালা থেকে জীবন নালা পর্যন্ত, যেটা এলএসি-র কাছাকাছি পড়ে না। এই পয়েন্টগুলো ভারতীয় সেনার নিয়ন্ত্রণাধীন। তবে গালওয়ানের সংঘর্ষের পর থেকে এই দেপসাং ভূমিতেও ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে চীনা বাহিনী।

গত ২০ জুলাইয়ের উপগ্রহচিত্রে দেখা গিয়েছে, তিব্বতের শিকুয়ানহিতে বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে নির্মাণকার্য চালাচ্ছে চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি। জায়গায় জায়গায় তৈরি হয়েছে অস্থায়ী সেনা শিবির। অনুমান করা হচ্ছে, ট্যাঙ্ক, প্রচুর অস্ত্রশস্ত্র-সহ মোটর রাইফেল ডিভিশন মোতায়েন করার কাজ চলছে ওই এলাকাগুলিতে। সূত্রের খবর, শিকুয়ানহি ও তার আশপাশের এলাকাজুড়ে বিশাল সামরিক পরিকাঠামো গড়ে তুলছে চিনের বাহিনী। তৈরি হচ্ছে হেলিপ্যাড।

No comments:

Post a comment

loading...