Monday, 17 August 2020

ধর্ষণ করেই শেষ নয় ,যোগী রাজ্যে দেওয়া হচ্ছে সিগারেটের ছ্যাকাও ,ভাবা যায় !

ওয়েব ডেস্ক ১৭ ই অগাস্ট ২০২০:   দেশে যেন ধর্ষণের ঘটনা কমতেই চাইছে না। কোনও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি বা ফাঁসির ভয় দমাতে পারছে না এই ঘৃণ্য অপরাধকে। উত্তরপ্রদেশের লখিমপুরের খেরিতে হওয়া ধর্ষণের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার গোরখপুরের এক নাবালিকাকে ধর্ষণ  করা হলো। ওই কিশোরীকে শুধু ধর্ষণই করা হয়নি, সেইসঙ্গে তাঁর সারা গায়ে দেওয়া হয়েছে সিগারেটের ছ্যাঁকা।

ইটভাটার পাশ থেকে মেয়েটিকে যখন উদ্ধার করা হয় তার সারা শরীরে রক্তে মাখামাখি। চামড়া পুড়ে দগদগে ক্ষত হয়ে আছে। রক্ত জমে সারা শরীরে কালশিটের দাগ। নাবালিকাকে এমন অবস্থায় অচৈতন্য হয়ে পড়ে থাকতে দেখে শিউরে ওঠেন পুলিশ কর্তারাও। সঙ্গে সঙ্গেই নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। পরীক্ষায় ধর্ষণের প্রমাণ মেলে। ধর্ষণের অভিযোগে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনা গোরক্ষপুরের।নির্যাতিতার পরিবার জানিয়েছে, গত শুক্রবার থেকেই নিখেোঁজ ছিল মেয়েটি। বাড়ির সামনের কল থেকে জল ভরতে গিয়েছিল। আর ফিরে আসেনি। সারা গ্রাম খুঁজেও মেয়ের সন্ধান না পেয়ে থানায় নিখোঁজ ডায়রি করে পরিবার। এক উচ্চপদস্থ পুলিশকর্মী সূত্রে জানা গিয়েছে, কিশোরীর মেডিক্যাল রিপোর্টের জন্য অপেক্ষা করছে পুলিশ। একজন চিকিত্‍সকই বলতে পারবেন, সিগারেটের বাট দিয়ে পোড়ানো  হয়েছে নাকি পোড়া দাগগুলোর কারণ অন্য কিছু। পুলিশ জানিয়েছে, নাবালিকা ও তার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে পকসো আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পাকড়াও করা হয়েছে দু’জনকে। পুলিশের দাবি, ধৃতদের একজনের নাম অর্জুন। ওই গ্রামেরই বাসিন্দা। নির্যাতিতা মেয়েটির পরিবার এর নামেই অভিযোগ দায়ের করেছে। অর্জুনকে জেরা করে ছোটু নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই দু’জনকেই আদালতে তোলা হবে।একের পর এক নাবালিকা ধর্ষণের ঘটনা ঘটে চলেছে উত্তরপ্রদেশ। গত শনিবারই লখিমপুর জেলায় ১৩ বছরের একট মেয়েকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছে বলে খবর মেলে। পুলিশ জানায়, মেয়েটির উপরে নারকীয় নির্যাতন চালায় অপরাধীরা। ধর্ষণের পরে গলায় ফাঁস দিয়ে মেয়েটিকে খুন করা হয়েছিল বলে অভিযোগ, তার আগে কিশোরীর চোখ উপড়ে নেওয়া হয়েছিল, জিভ কেটে নেওয়া হয়েছিল বলে জানায় পুলিশ। ঘটনায় দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

No comments:

Post a comment

loading...