Saturday, 22 August 2020

তাৎক্ষণিক তালাকের বিরুদ্ধে শিবরাজ সিং চৌহান, পাশে গিয়ে দাঁড়ালেন মুসলিম নারীর

ওয়েব ডেস্ক ২২ শে অগাস্ট ২০২০:  প্রযুক্তির কল্যাণে দূর পরবাসে থেকেও মোবাইলে কল করে কিংবা হোয়াটসঅ্যাপ-স্কাইপে ব্যবহার করে বিয়ে হচ্ছে। কিন্তু এর উল্টোপিঠও দেখা যাচ্ছে। বিদেশে থেকে স্ত্রীকে তালাক দেওয়ার ঘটনা ঘটছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহার করে।জানা গেছে, সিঙ্গাপুর প্রবাসী স্বামী হোয়াটসঅ্যাপে কল করে ভারতে থাকা স্ত্রীকে তিন তালাক দিয়েছেন। হোয়াটসঅ্যাপে স্বামীর এই বিচ্ছেদের কল পেয়ে স্বাভাবিক ভাবেই অস্থির হয়ে পড়েন ওই মুসলিম নারী। সেইসঙ্গে তিন তালাকের মেসেজ পেয়ে আরো ভেঙে পড়েন।

এ নিয়ে কয়েকদিন মানসিকভাবে টানাপড়েনের পর স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন ভোপালের লোকাল থানায়।  অভিযোগে ওই নারী জানান, স্বামী তাকে হোয়াটসঅ্যাপে কল করে তিন তালাক দিয়েছেন। দেশে  তাত্‍‌ক্ষণিক তিন তালাক নিষিদ্ধ হওয়ায় লোকাল থানা অভিযোগ নিয়েছে।জানা গেছে,  ওই নারী নিজেও প্রবাসী। স্বামীর সঙ্গে সিঙ্গাপুরে থাকেন। দিন কয়েক আগে ভোপালের বাড়িতে এসেছেন। তার মধ্যেই ঘটে যায় এই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা।এ ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে সমালোচনার মধ্যেই মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের কানে পৌঁছায় বিষয়টি। তিনি ওই মুসলিম নারীকে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে তিন তালাকের এই মামলাটি এখন হাই প্রোফাইল। পুলিশ জানিয়েছে, অভিযুক্তের মূল বাড়ি ভোপালে হলেও কর্মসূত্রে তিনি নিজে দীর্ঘ দিন বেঙ্গালুরুতে কাটিয়েছেন। সেখানকার একটি হোটেলে ম্যানেজার পদে কাজ করতেন। যদিও তার পরিবার ভোপালেই থাকে।গতকাল শুক্রবার ভোপালের কোহেফিজা থানায় দায়ের করা  অভিযোগে ৪২ বছর বয়সী নারী জানান, কোহেফিজা অঞ্চলের ফৈয়াজ আলম আনসারির সঙ্গে ২০০১ সালের ৪ অক্টোবর তার বিয়ে হয়। তাদের দুই সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর পরিবার নিয়ে বেঙ্গালুরু থেকে সিঙ্গাপুরে যান আনসারি। এখন তারা স্বামী-স্ত্রী দু'জনেই সিঙ্গাপুরের নাগরিক।কোহেফিজা থানার ইনচার্জ অনিল বাজপাই জানান, ওই নারী অভিযোগ করেছেন- তার স্বামী নিয়মিত মারধর করেন। যৌতুক হিসেবে শ্বশুরবাড়ি থেকে ২৫ লাখ টাকা নিয়ে আসার জন্য স্ত্রীর ওপর চাপ দিতে থাকেন। তিনি আরো জানান, ২০১৩ সালে স্বামী-স্ত্রী সিঙ্গাপুরে চলে যায়। চলতি বছরের জুন মাসে ওই নারী তার বাপের বাড়িতে আসেন। ৩১ জুলাই স্বামী তাকে হোয়াটসঅ্যাপ কল করেন। সেসময় তাকে তিন তালাক দেন।

পুলিশ কর্মকর্তা আরো জানান, অভিযুক্ত আনসারির বিরুদ্ধে যৌতুক নিষিদ্ধ আইন এবং মুসলিম নারী বিবাহ অধিকার রক্ষা আইনে অভিযোগ নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনার ব্যাপারে মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান বলেন, শুক্রবার সকালে ভোপালের এক মুসলিম বোন তিন তালাক নিয়ে অভিযোগ করেছেন। তার স্বামী তাকে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ করে তালাক দিয়েছেন। আমি ওই বোনকে আশ্বস্ত করছি, মধ্যপ্রদেশ পুলিশ ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে যথাযথ পদক্ষেপ নেবে।

No comments:

Post a comment

loading...